1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 27, 2024, 6:03 pm

মিরপুরে গৃহবধূকে পিটিয়ে হাত-পা ভেঙ্গে টাকা ছিনতাই

  • প্রকাশিত সময় Thursday, February 18, 2021
  • 180 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার চারুলিয়ায় মমতাজ খাতুন (৪৫) নামের এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হাত-পা ভেঙ্গে টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। অভিযুক্তরা হলেন, চারুলিয়া গ্রামের (আগা ইউসুফ মসজিদ সংলগ্ন এলাকার) জাফর আলী বক্সেল, ডলি খাতুন ও মোঃ সুমন ডাক্তার। পরদিন আহত গৃহবধূ মমতাজ নির্যাতনকারী তিনজনের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার দিলেও মামলা গ্রহণে পুলিশ গড়িমসি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত ১৫ ফেব্রুয়ারী সোমবারের এঘটনায় ভূক্তভোগী গৃহবধূ পরদিন মঙ্গলবার মিরপুর থানায় এজাহার দায়ের করলেও পুলিশ বলছে (১৭ফেব্রুয়ারী) বুধবার এজাহার দিয়েছেন ওই গৃহবধূ। মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ বলছেন মামলা এন্ট্রি হয়েছে, কিন্তু বক্শী বলছেন মামলা এন্ট্রি হয়নি। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে ভূক্তভোগী গৃহবধু মমতাজ খাতুনের অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে, মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মামলা এন্ট্রি হয়েছে জানিয়ে ডিউটি অফিসারের কাছে মামলার নম্বর নিতে বলেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে দায়িত্বরত ডিউটি অফিসারে ওই সময় ডিউটিতে ছিলেন না জানিয়ে বক্শীর নিকট থেকে মামলার নম্বর নিতে বলেন। এব্যাপারে বক্শী জানান, মামলা এন্ট্রি হয়নি, ওই গৃহবধূ গতকাল বুধবার (১৭ফেব্র“য়ারি) এজাহার দিয়েছেন, স্যার (সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা) বাইরে থাকায় মামলা এন্ট্রি হয়নি, উনি ফিরলে সন্ধ্যার পর বা রাতে এন্ট্রি হতে পারে। গৃহবধূ মমতাজ খাতুন তার দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন, মিরপুর থানাধীন চারুলিয়া গ্রামস্থ পুরাতন বাড়ি ভাড়া দিয়ে (বর্তমানে) কুষ্টিয়া শহরের পূর্ব মজমপুরে বাস করেন তিনি। পূর্ব শক্রতার জেরে গত ১৫ ফেব্র“য়ারি সকাল ১০টায় প্রতিবেশী জাফর আলী বক্সেল (৩৮), পিতা মৃত-রসূল বক্স, ও তার স্ত্রী ডলি খাতুন (২৬), স্বামী- জাফর আলী বক্সেল, আমার উক্ত পুরাতন বাড়িতে অনধিকার প্রবেশ করে রান্নাঘর ভাঙচুর করে।  সেময় আমার ভাড়াটিয়া শাবনুর খাতুন রান্না ঘর ভাঙার কারণ জানতে চাইলে দুই নম্বর আসামি ডলি খাতুন তাকে (ভাড়াটিয়া শাবনুর খাতুনকে) চড় থাপ্পড় মারে।

এজাহারে তিনি আরো বলেন, এঘটনা জানতে পেরে আমি (মমতাজ খাতুন) আমার বড় ছেলে মিরাজুল কাদের (৩০) ও ছোট ছেলে মাইনুদ্দিন (১৬) কে সাথে নিয়ে একইদিন দুপুর দু’টার দিকে চারুলিয়া গ্রামস্থ আমার পুরাতন বাড়িতে আসি। এসময় আসামীগণ হাতে বাঁশের লাঠি সোটা নিয়ে পুনরায় আমার (উক্ত পুরাতন) বাড়িতে অনধিকার প্রবেশ করে, তারা আমাকে গালিগালাজ করতে থাকে। আমি গালিগালাজ করতে নিষেধ করলে এক নম্বর আসামি জাফর আলী বক্সেল উত্তেজিত হইয়া হত্যার উদ্দেশ্যে আমার মাথার উপর বাঁশের লাঠি দ্বারা আঘাত করতে গেলে আমি আমার মাথা সরাইয়া নিলে উক্ত আঘাত আমার ডান হাতের কব্জির হাড় ভাঙ্গা জখম হয়। আমি জখম অবস্থায় মাটিতে পড়ে গেলে আসামি জাফর আলী বক্সেল লাঠি দিয়ে আমার বাম পায়ের পাতায় আঘাত করিয়া হাড়ভাঙ্গা জখম করে। তারপরে আসামি ডলি খাতুন ও মোঃ সুমন ডাক্তার (৩০), পিতা- মোঃ সুর্মা আমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে বাঁশের লাঠি ও কিল-ঘুষি-লাথি মারিয়া  বেদনাদায়ক কালশিরা ফোলা জখম করতঃ আসামিগণ আমার পরনের কাপড়-চোপড় টানা হ্যাচড়া করিয়া শ্লীলতাহানি ঘটায়। আসামিদের মারপিটে আমি মাটিতে লুটিয়ে পড়লে আমার নিকট ভ্যানিটি ব্যাগের মধ্যে থাকা ইট কেনার ৪০হাজার ৫’শ টাকা এক নম্বর আসামি জাফর আলী বক্সেল আমার নিকট থেকে জোরপূর্বক বের করে নেয়। আমার ডাক-চিৎকারে আমার বড় ছেলে মিরাজুল কাদের ও ছোট ছেলে মাহিন উদ্দিন আসামীগনের কবল হতে আমাকে ঠেকাতে আসলে এক নম্বর আর তিন নম্বর আসামি আমার দুই ছেলেকে মারপিট করে। তখন আমি সহ আমার দুই ছেলে ডাক-চিৎকার করলে সাক্ষী ১। মোঃ সাজ্জাদ (৩৫), পিতা-মৃত মহাম্মদ, ২। মোঃ মামুন (৩০), পিতা- খসরুল প্রামানিক ওরফে খসে, ৩। মোঃ মুনির (৪৫), পিতা- আনসার প্রামানিক ওরফে গেদু, সর্ব সাং-চারুলিয়া, থানা- মিরপুর গণসহ এলাকার অন্যান্য  লোকজন এগিয়ে আসলে আসামীগণ আমাকেসহ আমার দুই ছেলেকে খুন-জখমের হুমকিসহ বিভিন্ন ধরনের ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। আমার অবস্থা খারাপ দেখে এক নম্বর সাক্ষী সাজ্জাদ সহ আমার দুই ছেলে আমাকে জখম অবস্থায় পাখি ভ্যানে করে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। আমি উক্ত হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহন করি। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে, মামলা হয়নি এবং আসামীরাও কেউ গ্রেফতার হয়নি।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640