1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 24, 2024, 11:26 pm
শিরোনাম :
১৩ প্রকার যন্ত্রপাতি কেনায় অনিয়মের অভিযোগে দুদকের তদন্ত চলমান চাপ বেড়েছে তিন গুণ কুষ্টিয়া হাসপাতালে, ফাঁকা পড়ে আছে মেডিকেল কলেজের বিশাল ভবন ২৪ রানে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সেমিতে ভারত ৯ শত ৯৮ কোটি ৫৫ লাখ ৩৭ হাজার টাকার মানব সম্পদের ক্ষতি ঈদযাত্রায় ১৩ দিনে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণহানি বেড়েছে ১৩.৩১ শতাংশ খোকসায় আগুনের লেলিহান শিখায় নিঃস্ব ব্যবসায়ীরা আলমডাঙ্গায় ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের গতিশীলতা আনয়ন শীর্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত প্রকৌশলী আতিকুজ্জামান থ্রি-ডি প্রিন্টারে যন্ত্রাংশ তৈরি করে সফল হওয়ায় পুরস্কার পেলেন ভেড়ামারায় বিষাক্ত সাপের কামড়ে গৃহবধু’র মৃত্যু ॥ এলাকায় আতংক বিরাজ করছে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা জামরুল চাষ প্রযুক্তি টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠালো অস্ট্রেলিয়া

গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় খালেদার মুক্তি দরকার : গয়েশ্বর

  • প্রকাশিত সময় Monday, February 8, 2021
  • 222 বার পড়া হয়েছে

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, খালেদা জিয়া আজ তিন বছর ধরে কারাগারে, আবার কখনো গৃহবন্দী। সরকারের ইচ্ছায় আদালত কর্তৃক শাস্তির নামে তার সঙ্গে অন্যায় করা হচ্ছে। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে হলে খালেদার মুক্তি দরকার। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম আল জাজিরায় যা প্রকাশ করা হয়েছে, তা এমন দুর্নীতির এক’শ ভাগের এক ভাগ। তথ্য প্রমাণ দিয়ে সরকারের প্রমাণ করতে হবে আল জাজিরা ঠিক নয়।
সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারাবন্দী তৃতীয় বার্ষিকী উপলক্ষে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়।
গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, খালেদা জিয়া কোনো অন্যায় করেননি। তিনি কোনো টাকা আত্মসাৎ করেননি। তার সম্পদের হিসাব দিয়েছিলেন। তারপরও কেন তাকে কারাগারে দেয়া হলো? কারণ, আরেকটি দেশের তাবেদারী করতে হলে খালেদা জিয়াকে বন্দি করতে হবে, তিনি (খালেদা জিয়া) মুক্ত থাকলে তাঁবেদারি করা যাবে না।
গয়েশ্বর বলেন, গণতন্ত্রহীন রাষ্ট্র তৈরি করতে গেলে তিনি (খালেদা জিয়া) বাইরে থাকতে পারেন না। বাংলাদেশে দুর্নীতির অভয়ারণ্য তৈরি করতে হলে খালেদা জিয়াকে জেলে থাকতে হবে।
আলজাজিরার প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা কখনো আলজাজিরা টিভি চ্যানেল দেখতে চাইনি। এখন আলজাজিরা দেখতে হচ্ছে কেন? আলজাজিরা টিভি চ্যানেলের প্রতিবেদনে যা প্রকাশ করা হয়েছে তা বাংলাদেশের দুর্নীতির এক হাজার ভাগের এক ভাগ। সরকারের স্বভাব সূলভভাবে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে প্রতিবাদ জানায়। তথ্যপ্রমাণ দিয়ে আপনাদেরকে প্রমাণ করতে হবে আলজাজিরার প্রতিবেদন সত্য নয়। আজকে বাংলাদেশের জনগণ দেশের দুর্নীতির কাহিনী জানে। এই দুর্নীতিগ্রস্ত দেশকে যদি বাঁচাতে চান, যদি গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে চান তাহলে অলিখিত যুদ্ধে শামিল হতে হবে। এই যুদ্ধ গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় হবে। এই যুদ্ধে নিজেদের অবস্থান তুলে না ধরা, দেশের স্বার্থে, গণতন্ত্রের স্বার্থে বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দীদশা থেকে মুক্ত করতে হবে। খালেদা জিয়ার মুক্তি হলে দেশে গণতন্ত্রের নেতৃত্বের মুক্তি হবে। তিনি (খালেদা জিয়া) মুক্তি হলে বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে বিদেশের মাটিতে থাকতে হয় না। তিনি (তারেক রহমান) বাংলাদেশের মাটিতে এসে জনগণকে নেতৃত্ব দিতে পারেন।
তিনি বলেন, ‘আমি বারবার বলছি, আমরা আন্দোলন সংগ্রাম করে রাজপথ ছাড়বো না। আমাদের কথায় নয় কাজেই প্রমাণ করতে হবে। রাজপথ আমাদের দখলে নিতে হবে। রণাঙ্গনের সকল পথ ঘাট জনগণের দখলে নিতে হবে।’
এ সময় সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘এই সরকারকে ঘর থেকে বের হওয়ার পথ তৈরি করতে হবে। ঘরে বসে তারা প্রতিদিন (সরকার) আবোল-তাবোল কথা বলছে। মানুষকে অবজ্ঞা ও তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে কথা বলা তাদের রোগে পরিণত হয়েছে। কারণ তাদের ভোটের প্রয়োজন হয় না, তাদের জনগণের সমর্থন লাগে না।’
তিনি বলেন, ‘জিয়াউর রহমান যুদ্ধ করেছিলেন, স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে এই দেশ স্বাধীন করে ছিলেন। একটি গণতান্ত্রিক দেশ দেখার জন্য। ওই গণতান্ত্রিক দেশে জিয়াউর রহমানের সৈনিক, খালেদা জিয়ার অনুসারী ও তারেক রহমানের সহকর্মী হিসেবে আমাদের দায়িত্ব জনগণের পাশে থেকে, অধিকার ফিরিয়ে আনা। নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে কথা বলে লাভ হবে না। এটি একটি প্রতারক কমিশন। এরা জনগণের সাথে প্রতারণা ও ঠাট্টা-মশকরা করছে।’
গয়েশ্বর চন্দ্র নেতা-কর্মীদের আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘করোনাকে উপেক্ষা করে আপনারা যারা রাস্তায় বেরিয়েছেন এই জীবনটাকে অর্থবহ করার জন্য, দেশে গণতান্ত্রিক পরিবেশ তৈরি করার জন্য, আমরা ওই যুদ্ধে শামিল হই।’
স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, ‘আমরা শুরুতেই ক্ষমা চাই খালেদা ও তারেক রহমানের কাছে। কারণ, আমরা তাঁদের মুক্ত করতে পারি নাই। তবে চিরদিন তাঁরা বন্দী থাকবেন না। তাঁদের আমরা অবশ্যই মুক্ত করব।’
বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবীবুন নবী খান সোহেল বলেন, ‘গত তিন বছর আগে যখন খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়, তখন “আওয়ামী গুন্ডা বাহিনী” দিয়ে ঢাকা ভরে ফেলা হয়েছিল। আমরাও রাজপথ ছাড়ি নাই।’
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে আরো রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, হাবিবুর রহমান হাবিব, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপির তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দীন টুকু, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোর্তাজুল করিম বাদরু, বিএনপির সহ-প্রচার সম্পাদক আমিরুল ইসলাম খান আলিম, স্বেচ্ছাসেবক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েল, কৃষকদলের সদস্য সচিব কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিন, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সিনিয়র সহ-সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবন, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল প্রমুখ।
এ ছড়াও প্রতিবাদ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, সহ-সভাপতি নবী উল্লাহ নবী, সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশিদ হাবিব, উত্তরের সিনিয়র সহ-সভাপতি মুন্সি বজলুল বাসিত আঞ্জু, কৃষকদলের কেন্দ্রীয় নেতা কৃষিবিদ মেহেদী হাসান পলাশ, তাঁতী দলের ড: কাজী মনিরুজ্জামান মনির, ছাত্রদল নেতা মোস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ।
সমাবেশে রিজভী অসুস্থ
সমাবেশে বক্তব্য দেয়ার সময় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। সমাবেশে মাথা ঘুরে পড়ে যাচ্ছিলেন তিনি। পরে তাকে রাজধানীর কাকরাইলের ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে নিয়ে যান বিএনপির স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম। জানা যায়, তার ডায়াবেটিস বেড়ে গেছে, তাই তিনি হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে দুপুর ১২টার দিকে হাসপাতাল থেকে বাসায় ফেরেন রিজভী।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640