1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 24, 2024, 9:43 pm
শিরোনাম :
১৩ প্রকার যন্ত্রপাতি কেনায় অনিয়মের অভিযোগে দুদকের তদন্ত চলমান চাপ বেড়েছে তিন গুণ কুষ্টিয়া হাসপাতালে, ফাঁকা পড়ে আছে মেডিকেল কলেজের বিশাল ভবন ২৪ রানে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সেমিতে ভারত ৯ শত ৯৮ কোটি ৫৫ লাখ ৩৭ হাজার টাকার মানব সম্পদের ক্ষতি ঈদযাত্রায় ১৩ দিনে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণহানি বেড়েছে ১৩.৩১ শতাংশ খোকসায় আগুনের লেলিহান শিখায় নিঃস্ব ব্যবসায়ীরা আলমডাঙ্গায় ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের গতিশীলতা আনয়ন শীর্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত প্রকৌশলী আতিকুজ্জামান থ্রি-ডি প্রিন্টারে যন্ত্রাংশ তৈরি করে সফল হওয়ায় পুরস্কার পেলেন ভেড়ামারায় বিষাক্ত সাপের কামড়ে গৃহবধু’র মৃত্যু ॥ এলাকায় আতংক বিরাজ করছে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা জামরুল চাষ প্রযুক্তি টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠালো অস্ট্রেলিয়া

কুষ্টিয়াসহ সারাদেশে জানুয়ারি মাসে সড়ক দুর্ঘটনায় ॥  সাংবাদিক, পুলিশ, সেনা কর্মকর্তাসহ নিহত ৪ শ ৮৪ জন ॥ আহত ৬শ ৭৩

  • প্রকাশিত সময় Saturday, February 6, 2021
  • 265 বার পড়া হয়েছে

 

গত জানুয়ারি মাসে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে ৪২৭ টি। নিহত ৪৮৪ জন এবং আহত ৬৭৩ জন। নিহতের মধ্যে নারী ৯২, শিশু ৪৭। ১৫৯ টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত ১৬৮ জন, যা মোট নিহতের ৩৪.৭১ শতাংশ। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার হার ৩৭.২৩ শতাংশ। দুর্ঘটনায় ১৪৬ জন পথচারী নিহত হয়েছে, যা মোট নিহতের ৩০.১৬ শতাংশ। যানবাহনের চালক ও সহকারী নিহত হয়েছেন ৫৩ জন, অর্থাৎ ১০.৯৫ শতাংশ। এই সময়ে ৪টি নৌ-দুর্ঘটনায় ৭ জন নিহত, ৪ জন আহত এবং ৬ জন নিখোঁজ হয়েছে। ১১ টি রেলপথ দুর্ঘটনায় ১৪ জন নিহত এবং ৬ জন আহত হয়েছে। রোড সেফটি ফাউন্ডেশন ৭টি জাতীয় দৈনিক, ৫টি অনলাইন নিউজ পোর্টাল এবং ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যমের তথ্যের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে। দুর্ঘটনায় বাস যাত্রী ৩১, ট্রাক যাত্রী ১৪, পিকআপ যাত্রী ৪, ট্রলি যাত্রী ১, ট্রাক্টর যাত্রী ৩, মাইক্রোবাস যাত্রী ২, প্রাইভেটকার যাত্রী ৭, অ্যাম্বুলেন্স ২, জীপ যাত্রী ৭, সিএনজি যাত্রী ১১, ইজিবাইক-অটোরিকশা-মিশুক-লেগুনা-টেম্পু যাত্রী ৫৫, নসিমন-ভটভটি-আলমসাধু-মাহিন্দ্র-বোরাক যাত্রী ২১, টমটম ৪, বাই-সাইকেল আরোহী ৬, মাটিকাটার ভেকু মেশিন গাড়ি শ্রমিক ১, এবং হ্যালোবাইক আরোহী ১ জন। রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ বলছে, দুর্ঘটনাগুলোর মধ্যে ১৫৩ টি (৩৫.৮৩%) জাতীয় মহাসড়কে, ১০৭ টি (২৫.০৫%) আঞ্চলিক সড়কে, ৯৭ টি (২২.৭১%) গ্রামীণ সড়কে, ৫৯ টি (১৩.৮১%) শহরের সড়কে এবং অন্যান্য স্থানে ১১ টি (২.৫৭%) সংঘটিত হয়েছে। দুর্ঘটনাসমূহের ৮৮ টি (২০.৬০%) মুখোমুখি সংঘর্ষ, ১৩৯ টি (৩২.৫৫%) নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে, ১৪৪ টি (৩৩.৭২%) পথচারীকে চাপা/ধাক্কা দেয়া, ৪৭ টি (১১%) যানবাহনের পেছনে আঘাত করা এবং ৯ টি (২.১০%) অন্যান্য কারণে ঘটেছে। দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে দায়ী- ট্রাক-কাভার্ডভ্যান-পিকআপ ২৪.৭৫ শতাংশ, ট্রাক্টর-ট্রলি-লরি ৩.৬৫ শতাংশ, মাইক্রোবাস-প্রাইভেটকার-অ্যাম্বুলেন্স-জীপ ৩.২৩ শতাংশ, যাত্রীবাহী বাস ১১.৬৭ শতাংশ, মোটরসাইকেল ২৩.০৬ শতাংশ, থ্রি-হুইলার (ইজিবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা-অটোভ্যান-টেম্পু-লেগুনা-মিশুক) ২০.৮১ শতাংশ, নসিমন-ভটভটি-আলমসাধু-মাহিন্দ্র-বোরাক-টমটম ৮.২৯ শতাংশ, রিকশা-রিকশাভ্যান, বাই-সাইকেল ২.৮১ শতাংশ এবং অন্যান্য (পুলিশের পিকআপ, কোস্টগার্ডের ট্রাক, হ্যান্ড ট্রলি, হ্যালোবাইক, মিকচার মেশিন, মাটিকাটার ভেকু মেশিন গাড়ি, ডিসিসি’র ময়লাবাহী ট্রাক) ১.৬৮ শতাংশ। দুর্ঘটনায় আক্রান্ত যানবাহনের সংখ্যা ৭১১ টি। (ট্রাক ১১৯, বাস ৮৩, কাভার্ডভ্যান ২১, পিকআপ ৩৬, লরি ৫, ট্রলি ১৩, ট্রাক্টর ৮, মাইক্রোবাস ৭, প্রাইভেটকার ৯, অ্যাম্বুলেন্স ৪, জীপ ৩, পুলিশের পিকআপ ৩, কোস্ট গার্ডের ট্রাক ১, ডিসিসি’র ময়লাবাহী ট্রাক ১, হ্যান্ড ট্রলি ২, হ্যালোবাইক ৩, মিকচার মেশিন ১, মাটিকাটার ভেকু মেশিন গাড়ি ১, টমটম ৬,  মোটরসাইকেল ১৬৪, নসিমন-ভটভটি-আলমসাধু-মাহিন্দ্র-বোরাক ৫৩, ইজিবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা-অটোভ্যান-টেম্পু-লেগুনা-মিশুক ১৪৮, বাই-সাইকেল ৯, প্যাডেল রিকশা-রিকশাভ্যান ১১টি।

সময় বিশ্লেষণে দেখা যায়, দুর্ঘটনাসমূহ ঘটেছে ভোরে ২.১০%, সকালে ৩২.৩১%, দুপুরে ১৯.২০%, বিকালে ২২%, সন্ধ্যায় ৯.৬০% এবং রাতে ১৪.৭৫%। দুর্ঘটনার বিভাগওয়ারী পরিসংখ্যান বলছে, ঢাকা বিভাগে দুর্ঘটনা ২৬.২২%, প্রাণহানি ২৬.৪৪%, রাজশাহী বিভাগে দুর্ঘটনা ১১.৪৭%, প্রাণহানি ১১.৯৮%, চট্টগ্রাম বিভাগে দুর্ঘটনা ১৯.২০%, প্রাণহানি ২০.০৪%, খুলনা বিভাগে দুর্ঘটনা ১০.৭৭%, প্রাণহানি ১২.৩৯%, ময়মনসিংহ বিভাগে দুর্ঘটনা ৭.০২%, প্রাণহানি ৭.৪৩%, বরিশাল বিভাগে দুর্ঘটনা ৯.৮৩%, প্রাণহানি ৮.২৬%, রংপুর বিভাগে দুর্ঘটনা ৭.৯৬%, প্রাণহানি ৭.৮৫% এবং সিলেট বিভাগে দুর্ঘটনা ৭.৪৯%, প্রাণহানি ৫.৫৭% ঘটেছে। ঢাকা বিভাগে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটেছে। ১১২টি দুর্ঘটনায় নিহত ১২৮ জন। সবচেয়ে কম সিলেট বিভাগে। ৩২টি দুর্ঘটনায় নিহত ২৭ জন। একক জেলা হিসেবে ঢাকা জেলায় সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটেছে। ৩১টি দুর্ঘটনায় ৩৬ জন নিহত। সবচেয়ে কম ঝালকাঠি জেলায়। ২টি দুর্ঘটনায় ১ জন নিহত।গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায়, নিহতদের মধ্যে পুলিশ সদস্য ৭ জন, সেনা সদস্য ২ জন, স্কুল-কলেজ-মাদরাসার শিক্ষক ১৬ জন, চিকিৎসক ৩ জন, ব্যাংক কর্মকর্তা ৩ জন, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস) এর টেলিফোন অপারেটর ১ জন, দেশীয় পর্যটক ৪ জন, ক্রিকেটার ১ জন, মানসিক প্রতিবন্ধি ৩ জন, একাত্তর টিভির ভিডিও এডিটরসহ সাংবাদিক ৪ জন, এনজিও কর্মকর্তা-কর্মচারী ১৯ জন, ঔষধ ও বিভিন্ন পণ্যসামগ্রী বিক্রয় প্রতিনিধি ২৩ জন, পরিবহন শ্রমিক ২ জন, প্রবাসী শ্রমিক ২ জন, নির্মাণ শ্রমিক ৪ জন, পোশাক শ্রমিক ৬ জন, রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের শ্রমিক ৩ জন, পল্লী বিদ্যুতের সুপারভাইজার ১ জন, বিটিসিএল’র লাইনম্যান ১ জন,  ইটভাটা শ্রমিক ৭ জন, মাটিকাটা শ্রমিক ৩ জন, কাঠ মিস্ত্রি ২ জন, নৈশ প্রহরী ৩ জন, স্থানীয় পর্যায়ের বিভিন্ন ব্যবসায়ী ৪৬ জন, ইউপি সদস্য ২ জনসহ স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা ৭ জন এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৭৯ জন শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে।

পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সিনিয়র সচিব) এবং বরিশাল দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন।

 

দেশে সড়ক দুর্ঘটনার প্রধান কারণসমূহ:

 

১. ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন;

২. বেপরোয়া গতি;

৩. চালকদের বেপরোয়া মানসিকতা, অদক্ষতা ও শারীরিক-মানসিক অসুস্থতা;

৪. বেতন ও কর্মঘন্টা নির্দিষ্ট না থাকা;

৫. মহাসড়কে স্বল্পগতির যানবাহন চলাচল;

৬. তরুণ ও যুবদের বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালানো;

৭. জনসাধারণের মধ্যে ট্রাফিক আইন না জানা ও না মানার প্রবণতা;

৮. দুর্বল ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা;

৯. বিআরটিএ’র সক্ষমতার ঘাটতি;

১০ গণপরিবহণ খাতে চাঁদাবাজি।

 

সুপারিশসমূহ:

১. দক্ষ চালক তৈরির উদ্যোগ বৃদ্ধি করতে হবে;

২. চালকের বেতন ও কর্মঘন্টা নির্দিষ্ট করতে হবে;

৩. বিআরটিএ’র সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে;

৪. পরিবহনের মালিক-শ্রমিক, যাত্রী ও পথচারীদের প্রতি ট্রাফিক আইনের বাধাহীন প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে;

৫. মহাসড়কে স্বল্পগতির যানবাহন চলাচল বন্ধ করে এগুলোর জন্য আলাদা পার্শ্বরাস্তা (সার্ভিস লেন) তৈরি করতে হবে;

৬. পর্যায়ক্রমে সকল মহাসড়কে রোড ডিভাইডার নির্মাণ করতে হবে;

৭. গণপরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধ করতে হবে;

৮. রেল ও নৌ-পথ সংস্কার ও সম্প্রসারণ করে সড়ক পথের উপর চাপ কমাতে হবে;

৯. টেকসই পরিবহন কৌশল প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করতে হবে।

১০.“সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮” এর সুষ্ঠু প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে।

 

মন্তব্যঃ সড়ক দুর্ঘটনা এবং প্রাণহানি উভয়ই বেড়েছে। ২০২০ এর জানুয়ারিতে ৩৪০টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৪৫ জন নিহত এবং ৮৩৪ জন আহত হয়েছিল। এই হিসেবে চলতি বছরের জানুয়ারিতে দুর্ঘটনা বেড়েছে ২৫.৫৮%, প্রাণহানি বেড়েছে ৮.৭৬%। গত বছরের জানুয়ারি মাসে ৮৯টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১০৩ জন নিহত হয়েছিল। এই হিসেবে চলতি বছরের জানুয়ারিতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা বেড়েছে ৭৮.৬৫% এবং মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণহানি বেড়েছে ৬৩.১০%। মোটরসাইকেল চালক ও পথচারী নিহতের হার চরমভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ে অজ্ঞতা, অবহেলা এবং ট্রাফিক আইনের প্রয়োগহীনতা এর প্রধান কারণ। দেশের কলুষিত রাজনীতিতে মোটরসাইকেল সংস্কৃতি চালু হয়েছে। এসব কিশোর-যুবক মোটরসাইকেল চালক চরম বেপরোয়া এবং এরাই বেশি দুর্ঘটনাক্রান্ত হচ্ছে। মোটরসাইকেল ক্রয় এবং চালনার ক্ষেত্রে ট্রাফিক আইনের প্রয়োগ ও নিয়মিত মনিটরিং নিশ্চিত করতে না পারলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হবে। রেল ক্রসিংয়ে ৬ টি দুর্ঘটনা ঘটেছে। দেশে ৮২% রেল ক্রসিং অরক্ষিত, ফলে মাঝে-মধ্যেই ট্রেনের সঙ্গে সড়ক পরিবহনের ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটছে। এসব রেল ক্রসিংয়ের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। দুর্ঘটনায় ১৮ থেকে ৬৫ বছর বয়সী কর্মক্ষম মানুষ নিহত হয়েছেন ৩৫৯ জন, অর্থাৎ ৭৪.১৭%। চিত্রটি ভয়াবহ। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তির নিহত বা আহতের মধ্য দিয়ে অসংখ্য পরিবার পথে বসছে, হারিয়ে যাচ্ছে সামাজিক অর্থনীতির মূল স্রোত থেকে। ফলে দেশে বাড়ছে আর্থ-সামাজিক সংকট। অথচ সড়ক পরিবহন খাতে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি নেই। শুধু বৈঠক, কমিটি গঠন এবং সুপারিশ তৈরির মধ্যেই ঘুরপাক খাচ্ছে পুরো উদ্যোগ। পরিস্থিতি বিবেচনায় গোটা পরিবহন খাত ঢেলে সাজানো জরুরি। জাতীয় স্বার্থেই সরকারকে এ বিষয়ে মনোযোগী হওয়া উচিত। এজন্য প্রয়োজন রাজনৈতিক সদিচ্ছা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

সুত্রঃ সাইদুর রহমান

নির্বাহী পরিচালক

রোড সেফটি ফাউন্ডেশন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640