1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 27, 2024, 5:16 pm

কুষ্টিয়ার মিরপুরে ওএমএসের চাল আত্মসাতের ঘটনায় থমকে গেছে তদন্ত কমিটি

  • প্রকাশিত সময় Monday, February 1, 2021
  • 214 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার ফুলবাড়িয়া ইউনিয়নের বিজনগর ৬নং নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মীর জাকিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে স্বাক্ষর জাল করে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ওএমএসের বরাদ্দকৃত চাল আত্মসাতের অভিযোগ উঠে। চার বছর ধরে উঠে চাল,জানে না কার্ডধারী ব্যক্তি। বিষয়টি জানতে পেরে বঞ্চিত জয়নাল আবেদীন প্রতিকারের আশায় জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ করেন। জেলা প্রশাসক ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করতে নির্দেশ দেন মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে এঘটনায় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। উপজেলা সহকারী ভূমি কমিশনার রকিবুল হাসানকে আহবায়ক করে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমেশ চন্দ্র সরকার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জুলফিকার হায়দারকে সদস্য করা হয়। তদন্ত কমিটির তিন মাস পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত শুরু হয়নি তদন্ত। কবে শেষ হবে তদন্ত তাও অজানা। ভুক্তভোগী জয়নাল আবেদীন বলেন,আমার নামে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ওএমএসের বরাদ্দকৃত চালের কার্ড আছে এটা আমার জানা ছিল না। উপকারভোগীদের কার্ড যাচাইবাছাই করতে গেলে অনিয়মের বিষয়টি টের পায় আমি। তারপর থেকেই ইউনিয়ন পরিষদ থেকে গ্রাম পুলিশ দিয়ে ডেকে পাঠালে একটি কার্ডে চেয়ারম্যান মেম্বর টিপসই দিতে বলে। আমি এসএসসি পাস। কেন টিপসই দিব? এমন বলতেই স্বাক্ষর দিতে বলেন তারা। স্বাক্ষর দিতেই দেখি কার্ডের সঙ্গে ছবি আমার। তখন স্বাক্ষর দিতে রাজি না হলে জোর করে টিপসই নেন তারা। পরে চেয়ারম্যানকে বছর ধরে চাল তুলে নেওয়ার কথা জানালে আমার উপরই চড়াও হন তিনি। এমন প্রতারণার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ শাস্তির আশায় জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ করেছিলাম। জেলা প্রশাসক মহোদয় বিষয়টির তদন্তের নির্দেশ দেন মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে এঘটনায় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয় শুনেছি। কিন্তু তদন্ত কমিটি গঠনের তিন মাস পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত এঘটনার তদন্ত শুরু হয়নি। কবে শেষ হবে তদন্ত তাও অজানা। অনেকটাই নিষ্ক্রিয় কমিটি। মনে হচ্ছে চেয়ারম্যান মেম্বর তদন্ত কমিটিকে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে যেন থমকে গেছে কমিটি। চেয়ারম্যান মেম্বরের  সঙ্গে অফিসারের ভালো সম্পর্ক শুনেছি। তাই এটা হতেই পারে বলে ধারণা ভুক্তভোগীর। তা না হলে এতো দিনে এঘটনায় তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতো কমিটি। তবে যেহুতু তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়নি এটা হওয়াটাই স্বাভাবিক এমনটাই মনে করছেন তিনি।

মিরপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জুলফিকার হায়দার বলেন, বিষয়ে আমার কাছে কোনো চিঠি আসেনি। তবে আমি শুনেছি তদন্ত কমিটিতে সদস্য হিসেবে রয়েছি। এর চেয়ে বেশি কিছু আমি জানি না। মিরপুর উপজেলা সহকারী ভূমি কমিশনার তদন্ত কমিটির আহবায়ক রকিবুল হাসানের সঙ্গে মুঠোই ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি কলটি রিসিভ করেননি। মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিংকন বিশ^াস বলেন,এঘটনায় উপজেলা সহকারী ভূমি কমিশনার রকিবুল হাসানকে আহবায়ক তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি করেছি। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমেশ চন্দ্র সরকার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জুলফিকার হায়দারকে সদস্য করা হয়েছে তদন্ত কমিটিতে। অবশ্যই এঘটনায় তদন্ত হবে। দ্রুত সময়ের মধ্যে বিষয়টির তদন্ত কাজ সম্পন্ন করা হবে। কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন বলেন,এঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। তবে বিষয়টি নিয়ে মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বললে তিনি বিষয়টি ভালো বলতে পারবেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640