1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 19, 2024, 5:03 am
শিরোনাম :
কুষ্টিয়া লালন বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি বাল্য বিয়ের নির্মম বলি কুষ্টিয়ার মিরপুরে নববধুর ঝুলন্ত লাশ হত্যা করে ঝুলিয়ে দেয়ার অভিযোগ পরিবারের মিরপুরের সাগরখালী আদর্শ ডিগ্রী কলেজ জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০২৪ কুষ্টিয়া জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত কুষ্টিয়ার দৌলতপুর র‌্যাবের অভিযানে ২০ বোতল ফেনসিডিলসহ একজন মাদক কারবারি আটক পবিত্র ঈদুল আজহা কাল পরিত্যক্ত হলো ‘গুরুত্বহীন’ ভারত-কানাডা ম্যাচ আমরা আক্রান্ত হলে ছেড়ে দেবো না সেন্টমার্টিন নিয়ে ওবায়দুল কাদের পদ্মা সেতুতে একদিনে ৫ কোটি টাকা টোল আদায় সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রী গাজার ত্রাণবহরে হামলা: ইসরায়েলি সংগঠনের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা

কুমারখালী সমাজসেবা কার্যালয় প্রতিবারই প্রতারকেরা কৌশলে হাতিয়ে নিচ্ছে সরকারি সহায়তার টাকা, ভাতাভোগীদের ক্ষোভ

  • প্রকাশিত সময় Friday, June 7, 2024
  • 29 বার পড়া হয়েছে

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ কুমারখালীর যদুবয়রা ইউনিয়নের চৌরঙ্গী এলাকার মহিরুদ্দিন শেখের ছেলে বারেক আলী। তিনি একজন শারীরিক প্রতিবন্ধী। তাঁর ভাষ্য, এবারই প্রথম তার একাউন্টে ২৮ মে ১০ হাজার ২০০ টাকা ঢুকেছিল। টরের দিন বাজারের নগদ এজেন্ট ব্যবসায়ির কাছে টাকা উত্তোলন করতে গেলে জানতে পারেন টাকা নেই ! সেদিন তিনি কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি ফিরে এসেছেন শূণ্য হাতে।
সমাজে শুধু একজন বারেক আলী নয়, কুমারখালী উপজেলায় কয়েক শত প্রতিবন্ধী, বিধবা, বয়স্ক ও শিক্ষা ভাতাভোগীদের মোবাইল থেকে টাকা গায়েব হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। সম্প্রতি এ ব্যাপারে অনেক ভাতাভোগী উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন। কিন্তু এ বিষয়ে সমাজসেবা অফিসের কর্মকর্তাদের কিছুই করার নেই বলে জানান উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মোহাম্মদ আলী।
তিনিজানান, ভাতা ভোগীদের টাকার পে- রোল দেওয়ার আগে এবং পরে একটি প্রতারক চক্র বিভিন্ন সময়ে ভাতাভোগীদের ফোন করে কৌশলে তাঁদের নগদ অ্যাকাউন্টের ওটিপি ও পিন নাম্বার জেনে নিয়ে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। এ বিষয়ে সমাজসেবা কার্যালয় থেকে সব সময়ই ভাতা ভোগীদের সতর্ক ও সচেতন কর হয়। তবুও অনেকে ভুলক্রমে গোপনীয় তথ্য প্রতারকদের দিয়ে দেন। তবে প্রতাকরা অনেক সময় সমাজসেবা কার্যালয়ের কর্মকর্তা ও মাঠ কর্মচারীদের নাম পরিচয় দিয়েও গোপন তথ্য চেয়ে থাকেন। এ বিষয়েও ভাতা ভোগীদের জানানো হয়, সমাজসেবা কার্যালয় কখনোই কারো গোপন তথ্য জানতে চেয়ে ফোন করে না। যদি কেউ ফোনে এধরণের তথ্য চেয়ে থাকেন, তারাই প্রতারক। সবাইকে ভাতা সংক্রান্ত বিষয়ে কোন প্রকার তথ্য দেওয়া থেকে বিরত থাকতে বলা হয়। তবে কোনো কোনো ভাতাভোগীদের ধারণা সমাজসেবা কার্যালয়ের কর্মকর্তা – কর্মচারীরা প্রতারক চক্রের সঙ্গে জড়িত। এতে বিরম্বনায় পড়ছে তাঁরা।
উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় সুত্রে জানা যায়, কুমারখালীতে প্রায় ২৫ হাজার প্রতিবন্ধী, বিধবা, বয়স্ক ও শিক্ষা বিষয়ক ভাতাভোগী রয়েছে। প্রতি তিনমাস অন্তর অন্তর প্রতিটি ভাতাভোগীদের অ্যাকাউন্টে সরকারিভাবে টাকা পাঠানো হয়। প্রতিবন্ধী অ্যাকাউন্টে প্রতিমাসে ৮৫০ টাকা, বিধবা অ্যাকাউন্টে প্রতিমাসে ৫৫০ টাকা, বয়স্ক অ্যাকাউন্টে ৬০০ টাকা, প্রাথমিক শিক্ষা ভাতার অ্যাকাউন্টে প্রতিমাসে ৯০০ টাকা, মাধ্যমিক পর্যায়ে এক হাজার টাকা এবং কলেজ পর্যায়ের শিক্ষা ভাতার অ্যাকাউন্টে প্রতিমাসে এক হাজার ২০০ টাকা পাঠানো হয়।
২০২০ সাল পর্যন্ত সরকারি বিভিন্ন ব্যাংকের নিজ নিজ হিসাব নম্বরে টাকা পাঠানো হতো ভাতাভোগীদের। সেময় ভাতাভোগীরা ব্যাংকে এসে টাকা তুলতে নানান ভোগান্তি পোহাতেন। সেজন্য ২০২১ সাল থেকে ভাতাভোগীদের টাকা মোবাইল ব্যাংকিং নগদ অ্যাকাউন্টে পাঠানো হয়। আর নগদে আসার পর থেকেই ভাতাভোগীরা প্রতারণার শিকার হয়ে আসছেন। প্রায় ১০ দিন পূর্ব থেকে চলতি কিস্তির টাকা যাওয়া শুরু হয়েছে ভাতাভোগীদের নগদ অ্যাকাউন্টে। নতুন প্রতিবন্ধী ভাতাভোগীদের অ্যাকাউন্টে ১২ মাসের ১০ হাজার ২০০ টাকা করে পাঠানো হয়েছে।
ভাতাভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতি তিনমাস অন্তর অন্তর মোবাইলে ভাতার টাকা ঢুকে। টাকার ঢুকার কয়েকদিন আগে থেকেই সমাজসেবা কর্মকর্তা – কর্মচারীদের নাম ভাঙিয়ে বিভিন্ন মানুষ ফোন দেয় এবং পিন নাম্বার, ওটিপি নাম্বারসহ নানান তথ্য চাই। অনেকেই বুঝতে না পেরে তথ্য দিয়ে প্রতারণার শিকার হচ্ছেন।
কুমারখালী পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা কাজল শেখ জানান, তাঁর বাবা শারীরিক প্রতিবন্ধী। বাবার ভাতার টাকা তাঁর মোবাইলে আসে। টাকার আসার সময় হলেই প্রতারকরা বিভিন্ন তালবাহানা করে তাঁর কাছে তথ্য চাই। এবিষয়ে তিনি সচেতন হলেও অনেকেই তথ্য দিয়ে বিপদে পড়ছেন।
সদকী ইউনিয়নের বালিয়াকান্দি গ্রামের খন্দকার জসিম উদ্দিনের শারীরিক, বাক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ছেলে খন্দকার রিষাদ। তাঁর বড় ভাই খন্দকার জিহাদ জানান, ২৮ মে তাঁর ফোনে ভাতার টাকা ঢুকে। এরপর +৮৮০৯৬৩৮১৪০৬৪৪ এই নাম্বার থেকে কল দিয়ে সমাজসেবা অফিসের পরিচয় দিয়ে তাঁর কাছ থেকে ওটিপি নাম্বার নিয়েছিল। গত রবিবারে তিনি টাকা তুলতে গিয়ে দেখেন একাউন্টে টাকা নেই।
জানা গেছে, প্রতারক চক্রের সঙ্গে উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের কর্মকর্তা – কর্মচারীদের জড়িত থাকার সন্দেহে গত মঙ্গলবার সকালে উপজেলার কয়া এলাকায় বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন প্রতিবন্ধী ফেডারেশনের কতিপয় ভাতাভোগীরা। ওইদিন কর্মসূচি শেষে তাঁরা জেলা প্রশাসকের নিকট কর্মকর্তা – কর্মচারীদের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দেন। এরপর তাঁদের ভুল বুঝতে পেরে গত বুধবার অভিযোগ পত্রটি প্রত্যাহার করেন তাঁরা। এতথ্য জানিয়েছেন প্রতিবন্ধী ফেডারেশনের সভাপতি নওশের আলী।জানতে চাইলে কুমারখালী উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক হাবীব চৌহান জানান, প্রযুক্তি ব্যবহার করে, না-কি সরাসরি ফোন করে গোপন তথ্য জেনে নিয়ে ভাতা াগীদের টাকা হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে? এ ব্যাপারে নিশ্চিত হতে আগে পুলিশের সহায়তা নেওয়া দরকার। এই হতদরিদ্র মানুষের টাকা হাতিয়ে নেওয়া প্রতারকদের খুঁজে করা পুলিশের পক্ষেই সম্ভব। সেই সাথে ভাতা ভোগীদের সচেতনতাও বাড়ানোর দাবি জানান তিনি।
কুষ্টিয়া সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মোঃ আব্দুল লতিফ শেখ জানান, হ্যাকারদের বিষয়ে তাঁরা সব সময় ভাতাভোগীদের সচেতন করে আসছেন। সমস্যা নিরোসনে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ করছেন তিনি।
পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে এগিয়ে নেওয়া প্রকল্প গুলোর ভাতা প্রকল্প মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একটি অহংকারের জায়গা বলে জানান জেলা প্রশাসক মো. এহেতেশাম রেজা। তিনি জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কোনো অনিয়ম হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। জড়িত কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640