1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 5:14 pm

আলমডাঙ্গার জোড়গাছা গ্রামের আলমগীরের বিরুদ্ধে ৪ যুবককে ইতালি নিয়ে যাবার কথা বলে প্রতারণা করে কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ, সংবাদ সম্মেলন

  • প্রকাশিত সময় Thursday, May 23, 2024
  • 50 বার পড়া হয়েছে

বশিরুল আলম,আলমডাঙ্গা থেকে ॥ আলমডাঙ্গার জোড়গাছা গ্রামের আলমগীর হোসেনের বিরুদ্ধেএলাকার ৪ যুবককে ইতালি নিয়ে যাবার কথা বলে লিবিয়ায় আটকে রেখে দফায় দফায় কোটি টাকা হাতিয়ে নেবার অভিযোগ উঠেছে। প্রায় ৬ মাস ধরে ওই চার যুবক আদম দালালদের হাতে রয়েছে বন্দি। তাদের না নিয়ে যাচ্ছে ইতালি, না ফিরিয়ে আনছে দেশে। ফলে চার যুবকের স্বজনরা চরম উদ্বেগ আর উৎকন্ঠার মধ্য দিন কাটাচ্ছেন। তারা সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ভুক্তভোগী পরিবারে সদস্য মতিয়ার রহমান জানান,উপজেলার নাগদহ ইউনিয়নের জোড়গাছা গ্রামের আদম দালাল আলমগীর হোসেন জোড়গাছা গ্রামের ৪ যুবককে ইতালি নিয়ে যাবার জন্য জন প্রতি ১৩ লাখ টাকা চুক্তি করে। ৪ জন হলেন— জোড়গাছা গ্রামের আমোদ আলীর ছেলে আতিয়ার রহমান (৫০), একই এলাকার মজিবর রহমানের ছেলে তুষার (২২), বাবলুর রহমানের ছেলে হাসান (২৩), ও বাঁশবাড়িয়া গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে আজিজুল ইসলাম রঞ্জু (২৫)। ২০২৩ সালের ২৫ নভেম্বরে ওই চারজনকে পানি পথে ইতালি নিয়ে যাবে বলে সাড়ে ১৩ লাখ টাকা করে জনপ্রতি চুক্তি করেন আলমঙ্গীর হোসেন। পরিবারের অভাব-অনটন দূর করতে ওই ৪ জন চুক্তির টাকা দিয়ে আদম দালাল আলমগীরের মাধ্যমে অবৈধভাবে ইতালির যাবার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে রওনা দেয়। কিন্তু লিবিয়ায় পৌছানোর পর বিপদে পড়ে তারা। তাদের স্বজনদের কাছে আলমগীর তাদের ইতালি নিয়ে যাবার জন্য আরো ১৩ লাখ টাকা দাবী করেন। ভুক্তভোগী পরিবারের স্বজনরা কোন উপায় না দেখে লিবিয়া প্রবাসি আলমগীর হোসেনের দেশে থাকা স্ত্রী তাসলিমা খাতুনের মাধ্যমে প্রত্যেকে সাড়ে ১১ লাখ টাকা করে দেন । টাকা পাবার পরও গত ৬ মাস তাঁদের জিম্মি করে আটকে রাখা হয়। ইতালিতে না পাঠিয়ে ভুক্তভোগী পরিবারের নিকট আবারও ১৮ লাখ টাকা দাবী করেন তিনি । দাবীকৃত অর্থ তাদের পরিবার দিতে রাজি না হওয়ায় ভুক্তভোগী অভিবাসনপ্রত্যাশীদের উপর নির্মম নির্যাতন শুরু করে । দাবীকৃত টাকা না দিলে তাদের ক্ষতি হবে বলে হুমকি দেয়া হয়। একপর্যায়ে জিম্মিদশা থেকে মুক্তির জন্যআবারো প্রত্যেকে ১৩ লাখ টাকা চুক্তি করেন। গত ১৯ শে মে তাঁদের মুক্তির জন্য বিভিন্ন ইসলামি ব্যাংকের শাখায় ভুক্তভোগী পরিবার বসতবাড়ির জমি বিক্রি করে ও ব্যাংক লোন নিয়ে আতিয়ার রহমানের পক্ষ থেকে আরও ৬ লাখ টাকা জিম্মিকারীদের নিকট টাকা পাঠান। এভাবে দফায় দফায় তাঁদের নিকট থেকে প্রায় ১ কোটি টাকা হাতিয়ে নিলেও আটকে রাখা চারজনকে না পাঠাচ্ছেন ইতালি, না ফিরিয়ে আনছেন দেশে। ফলে ভুক্তভোগী পরিবারের ঐবষঢ়ভঁষ চরম উদ্বেগ আর উৎকন্ঠার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। তারা গত ১১ মে আলমডাঙ্গা থানায় ভুক্তভোগী পরিবার আলমঙ্গীর তাঁর স্ত্রী ও মা-বাবার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।এদিকে ওই চার জনের স্বজনরা তাঁদের ছেলেসহ ভাই-ভাতিজাদের উদ্ধারের জন্য আলমডাঙ্গা প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

 

 

আলমডাঙ্গার জোড়গাছা গ্রামের আলমগীরের বিরুদ্ধে ৪ যুবককে ইতালি নিয়ে যাবার কথা বলে প্রতারণা করে কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ, সংবাদ সম্মেলন

বশিরুল আলম,আলমডাঙ্গা থেকে ॥ আলমডাঙ্গার জোড়গাছা গ্রামের আলমগীর হোসেনের বিরুদ্ধেএলাকার ৪ যুবককে ইতালি নিয়ে যাবার কথা বলে লিবিয়ায় আটকে রেখে দফায় দফায় কোটি টাকা হাতিয়ে নেবার অভিযোগ উঠেছে। প্রায় ৬ মাস ধরে ওই চার যুবক আদম দালালদের হাতে রয়েছে বন্দি। তাদের না নিয়ে যাচ্ছে ইতালি, না ফিরিয়ে আনছে দেশে। ফলে চার যুবকের স্বজনরা চরম উদ্বেগ আর উৎকন্ঠার মধ্য দিন কাটাচ্ছেন। তারা সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ভুক্তভোগী পরিবারে সদস্য মতিয়ার রহমান জানান,উপজেলার নাগদহ ইউনিয়নের জোড়গাছা গ্রামের আদম দালাল আলমগীর হোসেন জোড়গাছা গ্রামের ৪ যুবককে ইতালি নিয়ে যাবার জন্য জন প্রতি ১৩ লাখ টাকা চুক্তি করে। ৪ জন হলেন— জোড়গাছা গ্রামের আমোদ আলীর ছেলে আতিয়ার রহমান (৫০), একই এলাকার মজিবর রহমানের ছেলে তুষার (২২), বাবলুর রহমানের ছেলে হাসান (২৩), ও বাঁশবাড়িয়া গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে আজিজুল ইসলাম রঞ্জু (২৫)। ২০২৩ সালের ২৫ নভেম্বরে ওই চারজনকে পানি পথে ইতালি নিয়ে যাবে বলে সাড়ে ১৩ লাখ টাকা করে জনপ্রতি চুক্তি করেন আলমঙ্গীর হোসেন। পরিবারের অভাব-অনটন দূর করতে ওই ৪ জন চুক্তির টাকা দিয়ে আদম দালাল আলমগীরের মাধ্যমে অবৈধভাবে ইতালির যাবার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে রওনা দেয়। কিন্তু লিবিয়ায় পৌছানোর পর বিপদে পড়ে তারা। তাদের স্বজনদের কাছে আলমগীর তাদের ইতালি নিয়ে যাবার জন্য আরো ১৩ লাখ টাকা দাবী করেন। ভুক্তভোগী পরিবারের স্বজনরা কোন উপায় না দেখে লিবিয়া প্রবাসি আলমগীর হোসেনের দেশে থাকা স্ত্রী তাসলিমা খাতুনের মাধ্যমে প্রত্যেকে সাড়ে ১১ লাখ টাকা করে দেন । টাকা পাবার পরও গত ৬ মাস তাঁদের জিম্মি করে আটকে রাখা হয়। ইতালিতে না পাঠিয়ে ভুক্তভোগী পরিবারের নিকট আবারও ১৮ লাখ টাকা দাবী করেন তিনি । দাবীকৃত অর্থ তাদের পরিবার দিতে রাজি না হওয়ায় ভুক্তভোগী অভিবাসনপ্রত্যাশীদের উপর নির্মম নির্যাতন শুরু করে । দাবীকৃত টাকা না দিলে তাদের ক্ষতি হবে বলে হুমকি দেয়া হয়। একপর্যায়ে জিম্মিদশা থেকে মুক্তির জন্যআবারো প্রত্যেকে ১৩ লাখ টাকা চুক্তি করেন। গত ১৯ শে মে তাঁদের মুক্তির জন্য বিভিন্ন ইসলামি ব্যাংকের শাখায় ভুক্তভোগী পরিবার বসতবাড়ির জমি বিক্রি করে ও ব্যাংক লোন নিয়ে আতিয়ার রহমানের পক্ষ থেকে আরও ৬ লাখ টাকা জিম্মিকারীদের নিকট টাকা পাঠান। এভাবে দফায় দফায় তাঁদের নিকট থেকে প্রায় ১ কোটি টাকা হাতিয়ে নিলেও আটকে রাখা চারজনকে না পাঠাচ্ছেন ইতালি, না ফিরিয়ে আনছেন দেশে। ফলে ভুক্তভোগী পরিবারের ঐবষঢ়ভঁষ চরম উদ্বেগ আর উৎকন্ঠার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। তারা গত ১১ মে আলমডাঙ্গা থানায় ভুক্তভোগী পরিবার আলমঙ্গীর তাঁর স্ত্রী ও মা-বাবার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।এদিকে ওই চার জনের স্বজনরা তাঁদের ছেলেসহ ভাই-ভাতিজাদের উদ্ধারের জন্য আলমডাঙ্গা প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

 

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640