1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 27, 2024, 4:59 pm

কুষ্টিয়া আদ-দ্বীন হাসপাতালে তুলকালাম কান্ড

  • প্রকাশিত সময় Monday, June 19, 2023
  • 136 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ অ্যানেসথেসিওলোজী বা অজ্ঞানের ম্যাশিনে পর্যাপ্ত গ্যাস না থাকায় অপারেশন থিয়েটারে রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় দিনভর কুষ্টিয়া শহরের আদ-দ্বীন হাসপাতালে তুলকালাম কান্ড ঘটেছে। বিক্ষুদ্ধ জনতার হাতে কুষ্টিয়া ২শ ৫০ শর্য্যার হাসপাতালের প্রাক্তন অ্যানেসথেসিওলোজিষ্ট ডাঃ আব্দুর রহমান বেধড়ক মারপিটের শিকার হয়েছেন। গতকাল সকাল ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। চিকিৎসক ও অ্যানেসথেসিওলোজিষ্টের অজ্ঞতার কারণে মৃত্ব্যবরণকারী ওই রোগীর নাম ফিরোজা খাতুন (৪৫)। সে থানাপাড়া পুরাতন বালুরঘাট এলাকার আইয়ুব আলীর স্ত্রী। পরে বিক্ষুদ্ধ জনতা অভিযুক্ত চিকিৎসক আব্দুর রহমান ও আমিরুল ইসলামকে বেধড়ক মারপিট দেয়। চিকিৎসককে মারধরের একটি ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে জেলাজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। কুষ্টিয়ায় একের পর এক অপমৃত্ব্যুর ঘটনা ঘটেই চলেছে। এমন অবস্থায় জেলার স্বাস্থ্য বিভাগের অবস্থা নাজুক হলেও জেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কোন মাথা ব্যাথা নেই। সোশ্যাল মিডিয়ায় এ নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনাও।
ওই রোগীর স্বজন ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ফিরোজা খাতুন রোববার (১৮ জুন) সকালে পিত্তথলিতে পাথর অপারেশনের জন্য আদ-দ্বীন হাসপাতালে ভর্তি হন। সোমবার সকালে সংশ্লিষ্ট সার্জারী চিকিৎসক আমিরুল ইসলাম ও অজ্ঞানের চিকিৎসক ডাঃ আব্দুর রহমান, নার্স, টেকনিশিয়ানরা মিলে ফিরোজা খাতুনকে অপারেশনের টেবিলে তোলেন। এ সময় হটাৎ করেই অ্যানেসথেসিয়লোজি ম্যাশিনে পর্যাপ্ত গ্যাস ফুড়িয়ে গেলে রোগীর রক্তচাপ বেড়ে নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে আসে। পরে তার রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ায় রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে মান্নান হার্ট হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে নেওয়ার আগেই ওই রোগীর মৃত্যু হয়। এদিকে অপারেশন থিয়েটারে রোগীর মৃত্যুর খবরে ক্ষুব্ধ জনতা অভিযুক্ত চিকিৎসককে হাসপাতালের মধ্যেই মারধর করেন। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। মৃত ফিরোজা খাতুনের ছেলে অনিক আহমেদ বলেন, মাকে সুস্থ্য অবস্থায় অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যাওয়া হয়। তারপর আমি অপারেশনের জিনিসপত্র কিনতে বাইরে যাই। আসার পর চিকিৎসক আমিরুল ইসলাম বলেন, ‘রোগী অজ্ঞান হয়ে গিয়েছে, অপারেশন করতে পারবো না।’ তারপরই আমার মায়ের মৃত্যু হয়।
এ বিষয়ে কুষ্টিয়ার আদ-দ্বীন হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত ম্যানেজার আব্দুল কাদের বলেন, ফিরোজা খাতুন নামে ওই রোগী তার পিত্তথলির পাথর অপারেশনের জন্য আদ-দ্বীন হাসপাতালে ভর্তি হন। তার দাবি, অপারেশনকারী ডা. আমিরুল ইসলাম অভিজ্ঞ চিকিৎসক। তিনি কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের অবসরপ্রাপ্ত সহযোগী অধ্যাপক। ভুল চিকিৎসায় নয়, মূলত ফিরোজা খাতুন হার্ট অ্যাটাকে মারা গেছেন।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত চিকিৎসক আমিরুল ইসলামের সঙ্গে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তার মোবাইলটি বন্ধ পাওয়া গেছে। কুষ্টিয়া মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহাঙ্গীর সেলিম বলেন, সকালে খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে অভিযোগ না থাকায় এ বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া যায়নি। ভুক্তভোগীর স্বজনরা অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ঘটনার সময় ছুটে আসেন কুষ্টিয়া বিএমএর সাধারণ সম্পাদক ডাঃ আমিনুল হক রতন। তিনি জানান, রোগীটি কার্ডিয়াক এরেষ্টের কারণে মৃত্ব্য হয়েছে। এখানে চিকিৎসক, অ্যানেসথেসিওলজিষ্টের কোন অবহেলা নেই। তিনি আরও বলেন, অপারেশনের আগে বলেই নেয়া হয়। যে কোন ভাবে এখানে রোগীর মৃত্ব্যর ঘটনা ঘটতে পারে। তবে এমন অনাকাঙ্খিত ঘটনা যেন না ঘটে সে বিষয়ে আমরা সচেতন থাকবো।
এ ব্যাপারে কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন ডা. এ এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, এ ধরনের একটা সংবাদ শুনেছি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640