1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 28, 2024, 9:10 am

 অর্থনীতির সব সূচকে পাকিস্তানের চেয়ে অনেক এগিয়ে বাংলাদেশ

  • প্রকাশিত সময় Saturday, June 17, 2023
  • 67 বার পড়া হয়েছে

এনএনবি : অর্থনীতির সব সূচকে পাকিস্তানকে ছাড়িয়ে গেছে বাংলাদেশ। বর্তমান বাংলাদেশ অনেক দেশের কাছে অনুকরণীয়। মাথাপিছু আয়, রপ্তানি আয় ও বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে পাকিস্তানের চেয়ে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে আছে বলে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে উর্দু ভাষার প্রভাবশালী গণমাধ্যম ডেইলি জং।

প্রতিবেদনে বলা হয়, পাকিস্তান তার ইতিহাসে সবচেয়ে খারাপ অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সংকটে ভুগছে। ফলে দেশটির জনগণ বিপাকে পড়েছে। উচ্চ মুদ্রাস্ফীতি এবং বৈদেশিক ঋণ পরিশোধসহ অনিশ্চিত বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ অর্থনৈতিক পরিবেশের চ্যালেঞ্জ রয়েছে পাকিস্তানের সামনে। দেশটির পতনের জন্য দায়ী মূলত দুর্নীতিগ্রস্ত নেতৃত্ব, দায়িত্বজ্ঞানহীন আর্থিক নীতি ও সন্ত্রাসবাদে গভীর রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতাসহ অভ্যন্তরীণ এবং বিদেশী ঋণের উপর অত্যধিক নির্ভরতা, অতিরিক্ত খরচ। এছাড়া আমদানি নীতির দ্বারা জ্বালানী, অস্থিতিশীল বৈদেশিক ঋণ গ্রহণ পাকিস্তানের অর্থনীতিকে আরও দুর্বল করেছে।

বিপরীতে, বাংলাদেশে কার্যকর নেতৃত্ব, বিচক্ষণ রাজস্ব নীতিসহ মানব উন্নয়নের দিকে অধিকতর গুরুত্ব দেয়ায় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, স্বাস্থ্যখাতে উন্নতি এবং বেকারত্ব হ্রাসে সফল হয়েছে। বাংলাদেশ অতীত থেকে শিক্ষা নিয়েছে যে, দেশের রাষ্ট্রক্ষমতা থেকে সেনাবাহিনীকে কীভাবে দূরে রাখা যায়। এটি না করলে বাংলাদেশের অবস্থাও পাকিস্তানের মতোই হতে পারতো।

প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, বাংলাদেশ ২০২৩-২৪ অর্থবছরে ৭১ বিলিয়ন ডলারের বাজেট পেশ করেছে, জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার ৭.৫ শতাংশ। অন্যদিকে পাকিস্তানের জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার মাত্র ৩.৫ শতাংশ, মুদ্রাস্ফীতি ২১ শতাংশ। জনসংখ্যা পরিকল্পনাতেও পাকিস্তানের থেকে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, স্বাধীনতার আগে ১৯৫১ সালে বাংলাদেশে বিপুল জনসংখ্যা থাকা সত্ত্বেও, সুপরিকল্পিত পরিকল্পনার কারণে বর্তমানে দেশটি ১৬৫ মিলিয়নের মধ্যে জনসংখ্যা সীমিত রাখতে সমর্থ হয়েছে। অন্যদিকে পাকিস্তানের জনসংখ্যা বেড়ে ২০০ মিলিয়ন হয়ে গেছে। বাংলাদেশের শ্রমশক্তিতে নারীদের অবাধ অংশগ্রহণ ক্রমাগত বেড়েছে। অন্যদিকে পাকিস্তানের শ্রমবাজারে নারীদের অংশগ্রহণ দিনদিন কমেছে।

গত কয়েক বছরে বাংলাদেশ তার অর্থনীতিতে পরিবর্তন আনতে সক্ষম হয়েছে। পাকিস্তানের মতো অগোছালো রাজনীতি, দুর্বল জনপ্রশাসন এবং উচ্চ দুর্নীতির মতো সমস্যায় ভোগা সত্ত্বেও বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়েছে।

বাংলাদেশের উন্নয়ন প্রবৃদ্ধির হার পাকিস্তানের তুলনায় উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি। ২০২১ সালের মে মাসে বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ রেকর্ড ৪৫ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছিল। তখন পাকিস্তানের রিজার্ভ ছিল মাত্র ১৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর আজ তা কমে মাত্র ৪ বিলিয়ন ডলারে ঠেকেছে।

বাংলাদেশের বিশাল উন্নতির প্রমাণ দেশের অর্থনৈতিক উত্থানের দিকে তাকালে স্পষ্ট হয়ে ওঠে। স্বাধীনতার পর গত ৫০ বছরে বাংলাদেশের অর্থনীতি ২৭১ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এ থেকে দেশটির প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিক ও স্থিতিস্থাপক গতিপথ সহজেই স্পষ্ট হয়ে ওঠে।

বর্তমানে উৎপাদনমুখী শিল্পের দিকে নজর দিয়েছে বাংলাদেশ। এতে পোশাক শিল্পে চীনের পরেই বিশ্বের দ্বিতীয় পোশাক রপ্তানিকারক দেশ হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করতে সফল হয়েছে। বাংলাদেশের উদ্ভাবনীশক্তির এ এক বড় প্রমাণ। দেশটিতে সুতার মূল উপকরণ তুলার উৎপাদন তেমন একটা না হলেও হাজার হাজার পোশাক কারখানা করতে সফল হয়েছে। ফলে বাংলাদেশের রপ্তানিখাতে ৩৫ বিলিয়ন ডলার আয়ে অবদান রাখে পোশাকখাত।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640