1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 28, 2024, 9:09 am

কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মানুষ মারার ফাঁদ !

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, June 13, 2023
  • 105 বার পড়া হয়েছে

অসুস্থ্য স্কুল ছাত্রীর শরীরে দুই ঘন্টা ধরে মেয়াদোত্তীর্ণ স্যালাইন পুশ, টেরপেয়ে ছাড়পত্র নিয়ে রক্ষা

ওয়েব পোর্টাল খোলে না

মিরপুর প্রতিনিধি ॥ দায়িত্বরত চিকিৎসকদের জেলা শহরে অবস্থান, গাইনী ডাক্তার অফিস না করায় গর্ভবতি মায়েদের সীমাহিন দুর্ভোগ, সরবরাহকৃত সরকারী ওষুধ না দেয়া, নি¤œমানের খাদ্য সরবরাহ, জরুরী অবস্থায় কেউ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হলে কোন কিছু না দেখে মেয়াদোত্তীর্ণ স্যালাইন পুশ, ওষুধ সেবন, আবাসিক মেডিকেল অফিসারের নিয়মিত অফিসে না থাকা, কর্তব্যরত নার্সদের রোগীদের না দেখে ডিউটি রুমে বসে মোবাইলে ফেসবুক দেখা, কোন কিছু জানতে চাইলে রোগীদের সাথে দুর্ব্যবহার, সরকারী অ্যাম্বুলেন্স ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার, হাসপাতালের ওষুধসহ চিকিৎসা সামগ্রী গোপনে বাইরে বিক্রি করাসহ বিস্তর অভিযোগ পাওয়া গেছে মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বিরুদ্ধে।

জানা যায়,  কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় ২ লাখ ৮২ হাজার ৭৬০ জন জনসংখ্যার বসবাস। এই বিশাল জনগোষ্টির জন্য কুষ্টিয়ার মিরপুরে একটি উপজেলায় নির্মিত হয়েছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। মানুষের সাধারণ চিকিৎসা সেবাসহ মেডিসিন, গাইনী, অর্থোপেডিক্স, নারী ও শিশু স্বাস্থ্যের জন্য আউট ডোর ও ইনডোর চিকিৎসা সেবা প্রদান করতে একজন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাসহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একজন আবাসিক মেডিকেল অফিসার, মেডিকেল অফিসার, গাইনী কনসালটেন্ট, মেডিসিন কনসালটেন্ট. সিনিয়র স্টাফ নার্স, প্রশিক্ষণাবীশ নার্স, টেকনিশিয়ান, ওয়ার্ড বয়, আয়া, ঝাড়–দার, নৈশ প্রহরী, বাবুর্চিসহ প্রায় শতাধিক সরকারী রাজশ্ব খাতের অর্ন্তভুক্ত বেতনভুক্ত জনবল রয়েছে। এ ছাড়াও প্রতিটি বেডের অনুকুলে রোগীর ওষুধ, খাবারসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধাও প্রদান করা হচ্ছে। তবে প্রতি মাসেই সরকারী কোষাগার থেকে একটি বৃহত অংকের অর্থ মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পেছনে ব্যয় হলেও জনগণের কোন কাজে আসে না এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি। একটি দায়িত্বশীল সুত্র জানিয়েছে, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ পিযুষ কুমার সাহা দায়িত্বে আসার পর থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি মুখ থুবড়ে পড়েছে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মধ্যে চিকিৎসক, কর্মকর্তা, কর্মচারীদের মধ্যে রয়েছে বেশ কয়েকটি গ্রুপ। তাদের মধ্যে অন্তদ্বন্দ লেগেই থাকে। ও এ র বিরুদ্ধে অভিযোগ এ ও র বিরুদ্ধে অভিযোগ।  বেশির ভাগ চিকিৎসক, কর্মকর্তারা দুর্নীতির সাথে জড়িত থাকার কারণে এখানে চিকিৎসা সেবা নেই বললেই চলে। যা আছে তা চিকিৎসা সেবার পরিবর্তে এখন মানুষ মারার ফাঁদে পরিণত হয়েছে।

সুত্রটি বলছেন, ইচ্ছে করেই চিকিৎসক, নার্সরা রোগীদের মেয়াদোত্তীর্ণ স্যালাইন, ওষুধ প্রদান ও দুর্ব্যাবহার করে থাকেন যাতে সাধারণ মানুষ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে না এসে বিভিন্ন প্রাইভেট ক্লিনিক বা চিকিৎসক চেম্বারের স্বরণাপন্ন হন। এমন ঘটনা ঘটেছে গতকাল মঙ্গলবার। তখন দুপুর অনুমান ১২টা।  বিজিবি সেক্টর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনীর ছাত্রী জারিন সুলতানা প্রার্থনা পরীক্ষা দিতে দিতে হটাৎ বুকে ব্যাথা ও পেটে ব্যাথা হলে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এ অবস্থায় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও সহপাঠিরা তাকে তাৎক্ষণিক ভাবে মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। জরুরী বিভাগ থেকে তাকে ভর্তি করানো হয়। ভর্তির পর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দ্বিতীয় তলায় বিছানায় শয়ন করানোর পর কর্তব্যরত নার্স তাকে একটি স্যালাইন পুশ করিয়ে দ্রুত নেমে পড়েন। এর পর প্রায় দুই ঘন্টা অতিবাহিত হয়ে যায়। মেয়ের অবস্থা জানতে পিতা-মাতাসহ সহপাঠিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসেন। এ সময় অসুস্থ্য রোগীর পিতাসহ অন্যান্যরা স্যালাইনটি ভালো করে পর্যবেক্ষণ করলে দেখতে পান, স্যালাইনের প্যাকেটে লেখা উৎপাদন তারিখ ০১/২০২০ এবং মেয়াদ শেষে হওয়ার তারিখ ১২/২০২২। অর্থাৎ ৬ মাস আগেই শেষ হয়ে গেছে সরকারী এই স্যালাইনের মেয়াদ। তবে তারিখ দেখার পূর্বেই প্রায় এক তৃতীয়াংশ রুগীর শরীরে চলে গেছে। এ অবস্থায় রোগীর পিতা দিকবিদিক হারিয়ে ফেলে। তিনি কি করবেন বুঝে উঠতে পারছেন না। এ সময় দায়িত্বরত  সিনিয়র নার্স- ইনচার্জ গুলশানারা, আজমিরা খাতুন, রোজিনা খাতুনসহ অন্যান্যদের বিষয়টি এমন হলো কিভাবে জানতে চাইলে তারা উল্টো রোগীর অভিভাবক, সহপাঠিদের সাথে দুর্ব্যবহার করে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এমনই চিকিৎসা সেবা বলে মোবাইল টিপতে থাকেন। এর পর কয়েকবার তাদের অনুরোধ করার পরও রোগীকে নতুন স্যালাইন না দিয়ে তাদের কাজে মনোযোগ দেন। কখনও কখনও রোগীকে অন্যকোথাও নিয়ে যেতে বলেন, এবং নানা রকম অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করেন বলেও অভিযোগ করেন ওই রোগীর অভিভাবক।  এ অবস্থায় প্রাথর্নার অভিভাবক কোন উপায় না দেখে দ্রুত রোগীর শরীর থেকে স্যালাইনটি নার্সদের খুলে দিতে বলেন এবং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে রোগীর ছাড় পত্র নিয়ে জীবন রক্ষা করেন। এ ব্যাপারে কথা বলতে মিরপুর উপজেলা তথ্য বাতায়নের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স,  উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার মুঠোফোনের নম্বরসহ তথ্য জানতে ওয়েব পোটালে গেলে ওয়েব পোটালটি খুলছে না। এ ভাবে তথ্য বাতায়নটির পেজে কোন সরকারী দপ্তরটির পেজই খুলছে না। অবশেষে ডাঃ পিযুষ কুমার সাহার মুঠোফোনে রিং দিলেও সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। এ ব্যাপারে কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন ডাঃ এ এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। এখন জানলাম কালকে দিনের বেলায় খোঁজ নিয়ে জানবো কি হয়েছে।

জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গ্রামের মানুষের চিকিৎসা শত ভাগ দিতে চিকিৎসক ও চিকিৎসার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের নানা রকম সুবিধা, উপজেলা পর্যায়ে এক্সরে ম্যাশিন, ইসিজি, অ্যানেসথেসিয়া ম্যাশিন, সনোসহ সব ধরণের আধুনিক যন্ত্রপাতি দিয়ে চিকিৎসা সেবাকে আরও উন্নত এবং মানবিক করতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন তখন কিছু অসাধু চিকিৎসক এবং চিকিৎসা বিভাগের জড়িত ব্যক্তিরা সরকারের এমন ভালো পদক্ষেপকে ইচ্ছে করে অপব্যবহার করে সাধারণ মানুষকে সরকারের বিরুদ্ধে ফুঁসিয়ে তোলার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে।  এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করা যাচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640