1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 4:55 am

প্রায় ৬ কোটি টাকার ফার্ণিচার ঢাকায় নয়, মাগুড়ায় স্থানীয় কারখানায় তৈরি!

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, May 31, 2023
  • 85 বার পড়া হয়েছে

অনিয়ম-দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার কাছে বন্দী কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ফার্মেসী ও বায়োমেডিকেল বিভাগসহ বিভিন্ন বিভাগে আখতার ফার্ণিচারের সরবরাহকৃত প্রায় ৬ কোটি টাকার ফার্নিচার ঢাকায় নয় বরং রেইন ট্রি সহ নি¤œ মানের কাঠ দিয়ে মাগুড়া জেলায় স্থানীয় কারখানায় নির্মাণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। একের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, কর্মকর্তাদের দুর্নীতি, অপকর্মের অডিও ফাঁস হলেও কর্তৃপক্ষ কার্যকর কোন পদক্ষেপ গ্রহন না করে নাকে শর্ষ্যরে তেল দিয়ে ঘুমোচ্ছেন। এর প্রেক্ষিতে অনিয়ম-দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার কাছে এখন বন্দী কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়। এসব জেনে শুনেও নানান দুর্বলতা অনিয়ম অস্বচ্ছতা নিয়ে যেমন এগিয়ে চলছে উন্নয়ন প্রকল্প তেমনি ভাবে চলছে বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে।

সুত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি, বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং, হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের জন্য ২ হাজার টেবিল ৬ হাজার চেয়ারের জন্য মোট বাজেট ধরা হয়েছে ৫ কোটি ৮২ লাখ টাকা। এই কাজের অনুমোদন পায় আখতার ফার্নিচার। অভিযোগ রয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের আহবানকৃত দরপত্রে উল্লেখিত চুক্তি অনুযায়ী আখতার ফার্নিচারের পণ্যগুলো ঢাকা সাভার থেকে আনার কথা থাকলেও এই পণ্য গুলো খুলনা ও মাগুরা জেলার বিভিন্ন লোকাল কারখানাতে তৈরি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সূত্র। এতে চেয়ার-টেবিল গুলো ক্যাম্পাসে নিয়ে আসতেই  ফাটল ধরছে। ফাটল ধরা চেয়ার-টেবিল গুলো পুনঃরায় পরিবর্তন করা হলেও অনেক চেয়ার-টেবিল এখনো বিভাগগুলোতে রয়ে গেছে। আবার অল্প একটু ঘর্ষণেই রং উঠে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। অপরদিকে ফার্নিচারের টেন্ডারে ১ প্যাকেজ লট ১ ও লট ২ এর ১৪টি কোম্পানি অংশ গ্রহণ করে। এবং দুইটি লটের টেন্ডারই পায় আক্তার ফার্নিচার। আর এই টেন্ডারকে ঘিরে চলছে নানান ধরনের অভিযোগ। এক ঠিকাদার জানান, লট ১ এর আক্তার ফার্নিচারের রেটের চেয়ারে কমরেট দেওয়া আছে ৮টি কোম্পানির আবার লট ২ এর ৬টি কোম্পানির রেটও নিচে আছে। তারা বলেন এত রেট নিচে থাকার পরও হাই রেট দেওয়া কোম্পানি টেন্ডার পাওয়ায় এতে ইবির প্রকল্পের অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়েছে। আবার হাতিল, ব্রাদার্স ও পারটেক্স এর মত কোম্পানিও টেন্ডার পায়নি। আমরা এই টেন্ডার নিয়ে কিছু একটা হচ্ছে ঠিক পাওয়াতে মানববন্ধন করি। ইবির টেন্ডার সংশ্লিষ্টদের সাথে বৈঠক করি। এছাড়াও বিভিন্ন ধরনের আন্দোলন করেও আমরা কোন ফল পেলাম না। আমরা গত ৩০ বছর ধরে ইবিতে ফার্নিচার দিচ্ছি। ফার্নিচার ইবির ভেতরে তৈরি করাতেন। আবার বাইরে তৈরি করলে যশোর থেকে টিটমেন্ট করিয়ে নিয়ে আসাতেন। আবার রং করতে হলে ভেতর থেকে রং করতে হতো। রং করার আগে দেখে নিতো কোন অসারী কাঠ দেওয়া আছে কিনা থাকলে মার্কার কলম দিয়ে সেটা বাতিল করে দিত। আর এখন রং করেই ফার্নিচার ঢুকছে সারী অসারী বোঝার উপায় থাকছে না। এজন্যই চেয়ার টেবিল গুলো ফেটে যাচ্ছে। জনৈক ঠিকাদার বলেন, এইটার যে অনিয়ম হচ্ছে এটা আমরা আগে থেকেই জানি। আমরা বিভিন্ন ধরনের আন্দোলন, মানববন্ধন, চিঠি ইবির কর্তৃপক্ষদের সাথে বৈঠক সহ একটি মামলা ও দায়ের করি। আমি এখানকার ঠিকাদার সমিতির সভাপতি আমরা পাওয়ার জন্যই মামলাটি করেছিলাম। আমাদেরকে বলেছিল টেন্ডার দিবে এজন্য আমাদের অনুরোধে পাঁচ দিনের মত টেন্ডার ক্রয় বন্ধ রেখেছিল। টেন্ডার নোটিশ দেওয়ার সময় ও আমাদেরকে বলেছিল আমরা বিবেচনা করে দেখছি। এতকিছুর পরও সবকিছুকে তারা বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েই টেন্ডার দিয়েছে। টেন্ডার হওয়ার আগে থেকেই একটা পরিকল্পনা করে তারা এই টেন্ডারটি দিয়েছে।

আখতার ফার্নিচার কর্পোরেশন সেল এর কে এম রেজাউল ইসলাম জানান, টেন্ডার এ কোয়ালিফাই হওয়ার জন্য বেশ কিছু নিয়ম থাকে এগুলো যাচাই-বাছাই করে আমরা টেন্ডার পেয়েছি। কোম্পানির সব কাগজ পত্র ঠিক আছে কিনা এত টাকার মাল তৈরি করার অ্যাভেলিটি আছে কিনা পে অর্ডার ঠিক আছে কিনা, ইবির বিভিন্ন কমিটি আমাদের মিল কার কারখানা ভিজিট করেছে। তারপরে টেন্ডার দিয়েছে। আর এই টেন্ডার এর রেট হয়েছে ২০১৮ সালে এর দিকে তখনকার রেট আর এখনকার রেট এক নয়, যখন টেন্ডার দিয়েছিলাম তখন আমাদের ৩০-৩৫ লক্ষ টাকা মতো লাভ হতো কিন্তু এখন আমরা লসে আছি। সব কিছুর দাম বৃদ্ধি পেয়েছে তারপরও আমরা মানের দিক থেকে ইবির ইতিহাসে সবচেয়ে সেরা ফার্নিচার দিচ্ছি। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় চীফ ইঞ্জিনিয়ার মুন্সী শহিদ উদ্দীন মো. তারেকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তবে কিছুদিন আগে তিনি বলেছিলেন যারা টেন্ডার পায়নি তারাই এসব রটাচ্ছে। এ সব বিষয়ে কুষ্টিয়া থেকে প্রকাশিত স্থানীয় ও বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় খবর প্রকাশিত হলে ইবি কর্তৃপক্ষ ও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান আখতার ফার্নিচার নড়ে চড়ে বসে। শুরু করে দৌড় ঝাপ। তবে একটি দায়িত্বশীল সুত্র জানিয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের মঞ্জুরী কমিশন কর্তৃক একটি উচ্চ পদস্থ তদন্ত কমিটি বিষয়টি আমলে নিয়ে সরবরাহকৃত ঠিকাদার প্রতিষ্টানকে মালামাল যাচাই-বাছাই না করে বিল প্রদান করা হয়েছে বা প্রদানের উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে এসব বিষয়ে তারা খতিয়ে দেখবে বলে সুত্র জানিয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640