1. nannunews7@gmail.com : admin :
May 26, 2024, 11:45 pm
শিরোনাম :
উপকূলে ঘূর্ণিঝড়রিমালেরআঘাত আলমডাঙ্গায় ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ঝোড়ো হওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি, খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম আলমডাঙ্গার বাঁশবাড়িয়া গ্রামে ঈদগাহ পূণনির্মাণ নিয়ে দুগ্রুপে চরম বিরোধ বাড়ি ঘর ভাঙচুর আলমডাঙ্গায় মিথ্যা অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করার প্রতিবাদে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন কুষ্টিয়ার মিরপুরের ভেদামারীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষে-আহত-১০ কাঙ্খিত সেবা নেই, তবুও ইবির পরিবহন খাতে বছরে বিপুল ব্যয় ! মিরপুরে হাতের রগ কাটা কৃষি ব্যাংক কর্মচারীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার কুমারখালীতে নির্বাচনী সহিংসতায় আহত জয়নাবাদের তারিকের অবশেষে মৃত্ব্য হত্যাকান্ডঘটিয়েছে চেয়ারম্যান এনামুল হক মঞ্জুঃ আব্দুল মান্নান খান কুষ্টিয়ায় স্বাক্ষর জালিয়াতি কান্ডে সেই প্রতারক মীর সামিউল’র জামিন না মঞ্জুর, একদিনের রিমান্ড মিষ্টি আলু চাষ কৌশল

কুমারখালী সরকারি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে ভুয়া ও অবৈধ নিয়োগ বাণিজ্য!

  • প্রকাশিত সময় Saturday, August 20, 2022
  • 508 বার পড়া হয়েছে

প্রধান শিক্ষক আবুল কাশেমের জালিয়াতির শেষ কোথায়?

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী সরকারি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে অবৈধ নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। দুর্নীতি, অনিয়ম,স্বজনপ্রীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহার করে এডহক কমিটির মাধ্যমে নিয়োগপ্রাপ্ত সহকারী প্রধান শিক্ষক সন্তোষ কুমার মোদক ও ভোকেশনাল শাখার ট্রেড ইন্সট্রাক্টর আব্দুস সাত্তার  এবং প্রধান শিক্ষক মোহা. আবুল কাশেম পরস্পর যোগসাজশে লক্ষ লক্ষ টাকার ঘুষ বাণিজ্যের মাধ্যমে ২০ জন শিক্ষক-কর্মচারীকে ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে অবৈধভাবে নিয়োগ দিয়েছেন। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, দুর্নীতি দমন কমিশন প্রধান কার্যালয় হতে ২১ জুন ২০২২ তারিখে ০০.০১.০০০০.৫০৩.২৬.১৯২.২২.২৩১০২ নম্বর স্মারকে কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী সরকারি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে অবৈধ নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগের তদন্তপুর্বক প্রতিবেদন মহাপরিচালক এর নিকট চেয়েছেন। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ ও জেলা শিক্ষা অফিসারের সমন্বয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করে ০৩ জুলাই ২০২২ তারিখে ৩৭.০২.০০০০.১০৬.২৭.০০১.২২.৭৯৮ স্মারকে ১০ কর্মদিবসের মধ্যে দুর্নীতি দমন কমিশন প্রধান কার্যালয় হতে প্রাপ্ত পত্রের ছায়ালিপি মোতাবেক আনীত অভিযোগের সরেজমিন তদন্ত করে সুস্পষ্ট মতামতসহ প্রতিবেদন দাখিল করতে বলেন। মাউশি অধিদপ্তর কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটি ১৪ আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। একাধিক সূত্রে জানা যায়, প্রধান শিক্ষক আবুল কাশেম তদন্ত কমিটির নিকট তথ্য উপাত্ত সরবরাহ না করে তদন্ত প্রতিবেদন নিজের পক্ষে নেওয়ার জন্য নানামুখী তৎপরতা চালিয়ে গেলেও শেষ রক্ষা হয়নি।ভুয়া ও অবৈধভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত ১৮ জন শিক্ষক-কর্মচারির প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে। কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ সূত্রে জানা যায়,জেলা শিক্ষা অফিসার মো. রমজান আলী আকন্দ বিভিন্ন ধরণের অসহযোগিতার কারণে তদন্ত প্রতিবেদন তৈরিতে দীর্ঘসূত্রিতা দেখা দিয়েছিল। জেলা শিক্ষা অফিসে প্রধান শিক্ষক আবুল কাশেমের অনেক জালিয়াতির তথ্য রয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় শিম/শা-১৩/এমপিও-১২/২০০৯(অংশ)/২০৭ নম্বর স্মারকে ৪ ফ্রেব্রুয়ারি ২০১০ সালে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান(স্কুল, কলেজ,মাদ্রাসা ও কারিগার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ) যা মার্চ ২০১৩ পর্যন্ত সংশোধিত এর শিক্ষক ও কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদির সরকারি অংশ প্রদান এবং জনবলকাঠামো ও এমপিও নীতিমালা জারি করে। ৪ ফ্রেব্রুয়ারি ২০১০ তারিখে প্রকাশিত এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী উক্ত বিদ্যালয়ে প্রাপ্যতা অনুযায়ী প্যাটার্নভুক্ত পূর্ণাঙ্গ শিক্ষক-কর্মচারী এমপিওভুক্ত আছেন। ২০১০ সালের জনবলকাঠামো ও এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী এমপিওভুক্ত শিক্ষক রয়েছেন ১৫ জন এবং তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী রয়েছেন ৪ জন। বিদ্যালয়টিতে ভোকেশনাল শাখায় শিক্ষক রয়েছেন ৮ জন এবং ল্যাব ও শপ এসিস্ট্যান্ট পদে রয়েছেন ২ জন। ২০১০,২০১৮ এবং সর্বশেষ ২০২১ সালের  জনবলকাঠামো ও এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী জেনারেল ও ভোকেশনাল শাখায় প্যাটার্নভুক্ত কোনো শিক্ষক কর্মচারীর পদ শূন্য নেই। অনুসন্ধানে জানা যায়,যেসব উপজেলায় সরকারি স্কুল ও কলেজ নেই সেই সব উপজেলায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় একটি স্কুল ও একটি কলেজ সরকারিকরণের  ঘোষণা দেয়। তারই পরিপ্রেক্ষিতে কুমারখালী বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি সরকারিকরণের তালিকাভুক্ত হয়।শিক্ষা মন্ত্রণালয় ১৬/০১/২০১৮ তারিখে ৩৭.০০.০০০০.০০০.১৫.০০১.১৭-২৩ নম্বর স্মারকে কুমারখালী বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের  সকল প্রকার নিয়োগ, পদোন্নতি, স্থাবর অস্থাবর সম্পদের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। বিদ্যালয়টি সরকারিকরণের তালিকাভুক্ত হলে প্রধান শিক্ষক মোহা. আবুল কাশেম ও সহকারী প্রধান শিক্ষক সন্তোষ কুমার মোদক ও ভোকেশনাল শাখার শিক্ষক মো.  আব্দুস সাত্তার পরস্পর যোগসাজশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা অমান্য ও বৃদ্ধাঙ্গলী প্রদর্শন করে দুর্নীতি, অনিয়ম,জাল জালিয়াতি ও অসৎ উদ্দেশ্যে ভুয়া কাগজপত্র তৈরি ও আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে ব্যাকডেটে জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিকে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে ভুয়া রেজুলেশন তৈরি,ভুয়া মহাপরিচালকের প্রতিনিধি মনোনয়ন ও ভুয়া নিয়োগ বোর্ড গঠন করে ২০ জন শিক্ষক-কর্মচারীকে নিয়োগ দিয়েছেন। ভুয়া ও অবৈধ নিয়োগপ্রাপ্ত ২০ জন শিক্ষক-কর্মচারিকে কখনও বিদ্যালয়ে নিয়মিত দেখা যায় না। মাঝে মধ্যে তারা বিদ্যালয়ে হাজিরা দেন বলে একাধিক সূত্রে জানা যায়। অনুসন্ধানে জানা যায় নিয়োগকৃত শিক্ষক-কর্মচারির অনেকের জাল ও ভুয়া সনদ রয়েছে। আবার অনেকের শিক্ষক নিবন্ধন সনদও নেই। মাউশি অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, কোনো মাধ্যমিক বিদ্যায়য়ে শিক্ষক -কর্মচারী নিয়োগ দিতে হলে জনবলকাঠামো ও এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী প্যাটার্নভুক্ত শূন্য পদ থাকতে হয়। শূন্য পদ না থাকলে কোনো প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ দেওয়া যায় না। কোনো শিক্ষক-কর্মচারীকে নিয়োগ দিতে হলে শূন্য পদের বিপরীতে  জেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট হতে মহাপরিচালকের প্রতিনিধি মনোনয়ন নিতে হয়। মহাপরিচালকের প্রতিনিধি মনোনয়ন পেলে নিয়োগ বোর্ড গঠন করে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ দিতে হয়। কিন্তু  প্রধান শিক্ষক মোহা. আবুল কাশেম কোনো নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে দুর্নীতি, অনিয়ম,জাল জালিয়াতি,ভুয়া কাগজপত্র তৈরি ও ক্ষমতার অপব্যবহার করে বিধিবহির্ভুতভাবে অসৎ উদ্দেশ্যে ২০ জন শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ দিয়েছেন। খুলনা আঞ্চলিক অফিস সূত্রে জানা যায়,মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর খুলনা অঞ্চলের  সাখায়েত হোসেন বিশ্বাস,সহকারী পরিচালক (মাধ্যমিক-১) এর ৩০/০১/২০১৮ তারিখের ৩৭.০২.০০০০.১০৬.৪৯.০৪৯.১৭-১৮২ নম্বর স্মারকে জাতীয়করণের লক্ষ্যে কুমারখালী পাইলট  বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়টির পরিদর্শন প্রতিবেদন প্রেরণের জন্য উপপরিচালক এবং সহকারী পরিচালক(মাধ্যমিক-সেসিপ) মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা,খুলনা অঞ্চল, খুলনা কে পত্র দেন। মো. ইমরান আলী,সহকারী পরিচালক(মাধ্যমিক) এবং টি. এম জাকির হোসেন,উপপরিচালক  স্বাক্ষরিত ০৯/০২/২০১৮ তারিখের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা, খুলনা অঞ্চল  এর প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়,খন্ডকালীন পদে নিয়োগপ্রাপ্তরা হলেন-(১) আসমা বেগম মালা,(শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক তদন্তে জাল ও ভুয়া নিবন্ধন সনদ দিয়ে চাকরি করার অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে)সহকারী শিক্ষক, সামাজিক বিজ্ঞান, জন্ম তারিখ- ০৩/০১/১৯৭৯, যোগদানের তারিখ- ০১/০৩/২০০৩ (২) এস এম আতি বিন বাপ্পী (প্রধান শিক্ষক মোহা. আবুল কাশেমের ভাতিজা), সহকারী শিক্ষক,ব্যবসায় শিক্ষা, জন্ম তারিখ- ০১/০১/১৯৯০, যোগদানের তারিখ- ০৮/০৪/২০১৫ (৩) কুতুবুল আলম(প্রধান শিক্ষক মোহা. আবুল কাশেমের  আপন ভাতিজা, বর্তমানে বিআরবি গ্রুপে কর্মরত), সহকারী শিক্ষক সামাজিক বিজ্ঞান, জন্ম তারিখ- ১০/০৮/১৯৮৯, যোগদানের তারিখ- ০৮/০৪/২০১৫ (৪) মোছা. মনিরা পারভীন (প্রধান শিক্ষক মোহা. আবুল কাশেমের আত্মীয়), সহকারী শিক্ষক সামাজিক বিজ্ঞান, জন্ম তারিখ- ১০/০১/১৯৯০, যোগদানের তারিখ- ০৮/০৪/২০১৫ (৫) মোছা. লুৎফুন নাহার লাবণী(সরকার বিরোধী আন্দোলনের সময় নাশকতা ও শিক্ষক মারার আসামী শিক্ষক আল শাহরিয়ারের ভাবী)সহকারী শিক্ষক জীববিজ্ঞান, জন্ম তারিখ- ২৪/০৬/১৯৮৫, যোগদানের তারিখ- ২৫/১১/২০১৭ (৬) শুভ্র প্রকাশ দে(বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা রতœা রাণী দের  বড় ছেলে),সহকারী শিক্ষক আইসিটি, জন্ম তারিখ- ২০/০১/১৯৮৭, যোগদানের তারিখ- ০১/০৩/২০১৬ (৭) শাম্মী আক্তার(প্রধান শিক্ষকের আত্মীয়), কম্পিউটার প্রদর্শক, জন্ম তারিখ- ১০/১১/১৯৯৬, যোগদানের তারিখ-২০/১২/২০১৭ (৮) বাসনা রাণী কর্মকার(সহকারী প্রধান শিক্ষক সন্তোষ কুমার মোদকের আত্মীয় ), অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর, জন্ম তারিখ-২৪/১২/১৯৭৯,যোগদানের তারিখ- ০৮/০৪/২০১৫ (৯) মোছা. রূপালী খাতুন(প্রধান শিক্ষকের আত্মীয়), ঝাড়ুদার/অফিস সহায়ক,জন্ম তারিখ-২১/০৩/১৯৭৯,যোগদানের তারিখ- ১৪/০২/২০১৭১০,(১০) সনজিত কুমার বাঁশফোড়, পরিচ্ছন্নতাকর্মী, জন্ম তারিখ- ১২/০৬/১৯৮৭, যোগদানের তারিখ-১৪/০২/২০১৭,(১১) মো.নাসিম হোসেন(ভোকেশনাল শাখার শিক্ষক মো. আব্দুস সাত্তার এর আত্মীয়), নৈশ প্রহরী, জন্ম তারিখ- ০১/০১/১৯৮৯, যোগদানের তারিখ-১৪/০২/২০১৭ (১২) মো. আলমগীর হোসেন(ভোকেশনাল শাখার শিক্ষক মো. আব্দুস সাত্তার এর আত্মীয়),অফিস সহায়ক, জন্ম তারিখ- ১১/০১/১৯৮২, যোগদানের তারিখ-১৬/০৭/২০১৭ (১৩) মো. আমিরুল ইসলাম(ভোকেশনাল শাখার শিক্ষক মো. আব্দুস সাত্তার এর আত্মীয়),নিরাপত্তাকর্মী, জন্ম তারিখ-২০/০৬/১৯৯৭, যোগদানের তারিখ-১১/০২/২০১৭। বিদ্যালয়ের কয়েকজন স্থায়ী শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে  এ প্রতিবেদককে জানান মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা  খুলনা আঞ্চলিক অফিসের  প্রথম পরিদর্শন  প্রতিবেদন টেম্পারিং করে  প্রধান শিক্ষক মোহা. আবুল কাশেম জাল জালিয়াতি ও ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে যেসব শিক্ষক-কর্মচারীকে অবৈধভাবে নিয়োগ দিয়েছেন। তাদের মধ্যে আছেন (১৪) শেখ মো. সেলিম রেজা(প্রধান শিক্ষক মোহা. আবুল কাশেমের জামাতা)সহকারী শিক্ষক, ভৌত বিজ্ঞান, জন্ম তারিখ-২৯/১০/১৯৮৭, যোগদানের তারিখ-০১/০৪/২০১৭। কিন্তু পদার্থবিজ্ঞান/রসায়ন এ তার স্নাতক ডিগ্রি  এবং শিক্ষক নিবন্ধন সনদ নেই।(১৫)আমিরুল ইসলাম(ভোকেশনাল শাখার শিক্ষক মো. আব্দুস সাত্তার এর আত্মীয়), সহকারী শিক্ষক, ইসলাম শিক্ষা,জন্ম তারিখ-০১/০১/১৯৮৫, যোগদানের তারিখ-০১/০৪/২০১৭ ( ১৬) মো. শহিদুল ইসলাম(কুমারখালী রেল বাজারের কাগজ বিক্রেতা),সহকারী শিক্ষক,ভোকেশনাল শাখার সামাজিক বিজ্ঞান, জন্ম তারিখ-০৭/০২/১৯৭৫, যোগদানের তারিখ-০১/০৫/২০১৫।(১৭) আব্দুল্লাহ মোহাম্মদী, সহকারী শিক্ষক,বিজ্ঞান, জন্ম তারিখ-২৯/১০/১৯৮৭, যোগদানের তারিখ-৩০/১১/২০১৭  (১৮) আব্দুল্লাহ আল মামুন, (প্রধান শিক্ষক মোহা. আবুল কাশেমের  আপন ভাতিজা, বর্তমানে ঢাকায় বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত), কম্পিউটার ল্যাব অপারেটর, জন্ম তারিখ-২০/১০/১৯৯৬, যোগদানের তারিখ-২৫/০৮/২০১৬ (১৯) মোছা. খাদিজাতুল কোবরা, বিজ্ঞান ল্যাব অ্যাসিস্ট্যান্ট, জন্ম তারিখ-২৩/০৬/১৯৮২, যোগদানের তারিখ-১৪/০৩/২০১৬ (২০) মো. আমিরুল ইসলাম, দারোয়ান, জন্ম তারিখ-২০/০৬/১৯৯৭, যোগদানের তারিখ-২৭/১২/২০১৫। প্রধান শিক্ষক আবুল কাশেমের জালিয়াতি এখানেই শেষ না। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা খুলনা আঞ্চলিক অফিসের প্রথম পরিদর্শন প্রতিবেদনে খন্ডকালীন শিক্ষক-কর্মচারীর প্রথমে যে যোগদানের তারিখ ছিল তা টেম্পারিং করে পরিবর্তন করেছেন। আসমা বেগম মালার প্রথম যোগদানের তারিখ ছিল ০১/০৩/২০০৩, পরিবর্তিত তারিখ হয়েছে ১৫/১১/২০১১। এস এম আতি বিন বাপ্পী, প্রথম যোগদানের তারিখ ছিল ০৮/০৪/২০১৫, পরিবর্তিত তারিখ হয়েছে ০১/০৪/২০১৭। কুতুবুল আলম, প্রথম যোগদানের তারিখ ছিল ০৮/০৪/২০১৫, পরিবর্তিত তারিখ হয়েছে ০১/০৪/২০১৭। মোছা. মনিরা পারভীন, প্রথম যোগদানের তারিখ ছিল ০৮/০৪/২০১৫, পরিবর্তিত তারিখ হয়েছে ২৭/১২/২০১৫। মোছা.লুৎফুন নাহার লাবনী , প্রথম যোগদানের তারিখ ছিল ২৫/১১/২০১৭, পরিবর্তিত তারিখ হয়েছে ২৭/১২/২০১৫। বাসনা রাণী কর্মকার, প্রথম যোগদানের তারিখ ছিল ০৮/০৪/২০১৫, পরিবর্তিত তারিখ হয়েছে ২৭/১২/২০১৫। মোছা. রম্নপালী খাতুন, প্রথম যোগদানের তারিখ ছিল ১৪/০২/২০১৭, পরিবর্তিত তারিখ হয়েছে ০১/০৪/২০১৭। সনজিত কুমার বাঁশফোড়, প্রথম যোগদানের তারিখ ছিল ১৪/০২/২০১৭, পরিবর্তিত তারিখ হয়েছে ১১/০২/২০১৭ মো. আলমগীর হোসেন, প্রথম যোগদানের তারিখ ছিল ১৬/০৭/২০১৭, পরিবর্তিত তারিখ হয়েছে ২৭/১২/২০১৫। এদেরকেও নিয়ম বহির্ভূতভাবে প্রধান শিক্ষক তথ্য গোপন, জাল ও ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে  সরকারিকরণের তালিকায় নাম দিয়ে  শিক্ষা মন্ত্রণালয় হতে পদ সৃজনের প্রস্তাবনা তৈরি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে মাধ্যমে অর্থ মন্ত্রণালয়ে অর্থ ছাড়ের অপেক্ষায় আছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে। অবৈধভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত এ সব শিক্ষক-কর্মচারীর পদ সৃজন, এডহকে নিয়োগ ও পদায়ন করার জন্য মাউশি অধিদপ্তর, শিক্ষা মন্ত্রণালয়,জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের নামে প্রত্যেকের কাছ থেকে সাত/আট লক্ষ টাকা করে প্রধান শিক্ষক,সহকারী প্রধান শিক্ষক ও ভোকেশনাল শাখার ট্রেড ইন্সট্রাক্টর আব্দুস সাত্তার ঘুষ হিসেবে নিয়েছেন বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়। অবৈধভাবে  নিয়োগপ্রাপ্ত কয়েকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, আমাদেরকে সরকারিকরণের তালিকায় নাম ঢুকানোর জন্য ধাপে ধাপে বিভিন্ন কৌশলে  তারা অর্থ  নিয়েছে। বিদ্যালয়ের আরো কয়েকজন শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে এই প্রতিবেদককে জানান আমরা খুবই বিব্রত, অনেক শিক্ষক -কর্মচারিকে আমরা কখনো আগে দেখি নাই । মাঝে মধ্যে তাদেরকে আমরা বিদ্যালয়ে আসতে দেখি। কবে কিভাবে প্রধান শিক্ষক এসব শিক্ষক-কর্মচারি নিয়োগ দিয়েছেন আমরা তা জানি না। সহকর্মী হিসেবে আমরা তাদেরকে মেনে নিতে পারছি না । এইসব অবৈধ নিয়োগ বাণিজ্যের সাথে যারা জড়িত তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত বলে অনেকেই মনে করেন। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের সরকারি স্কুল শাখার এক জন কর্মকর্তা  নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান আমরা উক্ত ২০ জন শিক্ষক-কর্মচারির নিয়োগ বিধি মোতাবেক না হওয়ায় খন্ডকালিন হিসেবে তাদেরকে তালিকাভুক্ত করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব প্রেরণ করেছি। তিনি আরো জানান খন্ডকালিন শিক্ষক-কর্মচারির কোনো ভাবেই সরকারিকরণেরে তালিকায় যাওয়ার সুযোগ নেই। সূত্রে আরো জানা যায়, প্রধান শিক্ষক মোহা. আবুল কাশেম মাউশি অধিদপ্তর, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অসাধু কর্মকর্তাদের পরস্পর যোগসাজশ ও মোটা অঙ্কের অবৈধ অর্থ লেনদেনের মাধ্যমে খন্ডকালিন শিক্ষক -কর্মচারিদের পদ সৃজনের প্রস্তাব জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। পদ সৃজনের প্রস্তাব অর্থ মন্ত্রণালয়ে যাওয়ার পর অবৈধ নিয়োগপ্রাপ্তদের নিকট হতে ৪ বছরের  বকেয়া পাওয়ার আশায় প্রত্যেকের নিকট হতে প্রধান শিক্ষক,সন্তোষ কুমার মোদক ও আব্দুস সাত্তার  ব্যাংকের ব্ল্যাংক  চেক নিচ্ছে মর্মে অভিযোগ রয়েছে। জাল জালিয়াতি ও  অবৈধভাবে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগের বিষয়ে প্রধান শিক্ষক আবুল কাশেমের কাছে জানতে চাইলে তিনি কোনো কথা বলতে রাজি হননি। অবৈধ নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগের তদন্তে কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মো. মনজুর কাদির জানান সঠিক তদন্তের  ফলে  থলের বিড়াল বেড়িয়ে এসেছে। তদন্ত চলাকালীন সময়ে খুলনা আঞ্চলিক অফিসের ডিডি, মোহা. আবুল কাশেমের ভুয়া ও  অবৈধ নিয়োগ বাণিজ্যের তদন্ত প্রতিবেদন মাউশি অধিদপ্তরে প্রেরণ করেন। জালিয়াতির বিষয়টি সন্দেহাতিতভাবে প্রমাণিত হলেও মোটা অঙ্কের অর্থের বিনিময়ে মাউশি অধিদপ্তর থেকে পদ সৃজনের প্রস্তাব শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগে প্রেরণ করা হয়। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ কোনো প্রকার যাচাই বাছাই ছাড়াই পদ সৃজনের প্রস্তাব জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে। ভুয়া ও অবৈধ নিয়োগের মাধ্যমে পদ সৃজনের বিষয়ে কারা কারা জড়িত সে বিষয়ে উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন তদন্ত কমিটি হওয়া প্রয়োজন বলে অনেকেই মনে করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640