1. nannunews7@gmail.com : admin :
May 19, 2024, 3:21 pm

১৫আগস্ট জাতীয় শোক দিবস

  • প্রকাশিত সময় Sunday, August 14, 2022
  • 134 বার পড়া হয়েছে

 

আজ শোকাবহ ১৫ আগস্ট। জাতীয় শোক দিবস। বাঙালি জাতির শোকের দিন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ৪৭ তম শাহাদত বার্ষিকী। জাতির পিতাকে সপরিবারে নির্মম

-নিষ্ঠুর ভাবে হত্যার ৪৭ বছর। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভোর রাতে রাজধানী ঢাকায় সংঘটিত হয়েছিল ইতিহাসের এক কলঙ্কিত অধ্যায়।সেদিন ঘাতকদের মূল টার্গেট ছিল বঙ্গবন্ধুসহ তাঁর পুরো পরিবার ও নিকট আত্মীয়রা। ঘাতকরা তাদের কাউকে পৃথিবীতে জীবিত রাখবে না এটাই ছিল তাদের মূল পরিকল্পনা। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী তারা ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়ীসহ আশেপাশের একাধিক বাড়ীতে হত্যার জঘন্য উল্লাসে মেতে ওঠে। এদিন স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা, শত সহস্র বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, ইতিহাসের মহানায়ককে হত্যা করেছিল ক্ষমতালোভী,স্বাধীনতা বিরোধী নরপিশাচ কুচμী মহল। ইতিহাসের মহানায়ককে হত্যা

করলেও শেখ মুজিব চিরঞ্জীব,তাঁর চেতনা অবিনশ^র। মুজিব আদর্শে শানিত বাংলার আকাশ

-বাতাস,জল-সমতল। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের কাছে শেখ মুজিবুর রহমান অবিনাশী চেতনা ও আদর্শ চির প্রবহমান থাকবে। বঙ্গবন্ধু ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বৈষম্যহীন সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে

চেয়েছিলেন। হিন্দু-মুসলমান কোনো ভেদাভেদ থাকবে না এই রাষ্ট্রে। এই রাষ্ট্রের মানুষ হবে বাঙালি। ১৫ জানুয়ারি ১৯৭৫ প্রথম পুলিশ সপ্তাহের ভাষণে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন,জীবন অত্যন্ত ক্ষণস্থায়ী-এ কথা মনে রাখতে হবে। আমি বা আপনারা সবাই মৃত্যুর পর সামান্য কয়েক গজ কাপড় ছাড়া সঙ্গে আর কিছুই নিয়ে যাব না। তবে কেন আপনারা মানুষকে শোষণ করবেন,মানুষের উপর অত্যাচার করবেন? গরিবের উপর অত্যাচার করলে আল্লাহর কাছে তার

জবাব দিতে হবে। তাই,শুধু আপনাদের নয়,সব সরকারি কর্মচারীকেই আমি অনুরোধ করি,যাদের অর্থে আমাদের সংসার চলে তাদের সেবা করুন।যাদের জন্য,যাদের অর্থে আজ অমরা চলছি,তাদের যাতে কষ্ট না হয়, তার দিকে খেয়াল রাখুন। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের জনগণের  মুক্তির যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, তাঁর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যকে জয় করে বিশ^সভায় একটি উন্নয়নশীল, আত্মমর্যাদাবান জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু বলতেন,ভিক্ষুক জাতির কোনো সম্মান থাকে না। জননেত্রী শেখ হাসিনা বাঙালি জাতিকে পরনির্ভরশীলতার অভিশাপ থেকে মুক্ত করেছেন। বিদেশ নির্ভরতার ফাঁদ থেকে বেরিয়ে আজ বাংলাদেশ নিজস্ব অর্থায়নে স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মাণ করেছেন। জাতির পিতার উন্নয়ন দর্শনকে হৃদয়ে লালন ও ধারণ করে তারই রক্ত এবং আদর্শের উত্তরসূরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যাচ্ছেন এক অনন্য উচ্চতায়। সারা বিশে^ বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল। বাংলাদেশ আজ বিশে^র অনেক রাষ্ট্রের জন্য অনুকরণীয় হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। বাংলাদেশকে আজ বিশ^বাসী সম্মান করে।বাংলাদেশ আজ স্বপ্ন দেখছে চতুর্থ শিল্প

বিপ্লবে বিশ^কে নেতৃত্ব দেওয়ার। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ নিশ্চয়ই ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ হিসেবে বিশে^র বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। জাতির পিতার সোনার বাংলার লাল সবুজের পতাকা আত্মমর্যাদায় বলিয়ান হয়ে উড়বে বিশে^র বুকে।

সেই কালো রাতে শহীদ হয়েছিলেন যারাঃ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালরাতে ঘাতকদের বুলেটের আঘাতে নিহত হন বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিনী শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, ছেলে শেখ কামাল, ছোট ছেলে শেখ রাসেল, পুত্রবধু সুলতানা কামাল ও রোজী জামাল, বঙ্গবন্ধুর একমাত্র ভাই শেখ আবু নাসের, বঙ্গবন্ধুর টেলিফোন পেয়ে তাঁর জীবন বাঁচাতে ছুটে আসা প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা কর্নেল জামিল,বিশেষ শাখার কর্মকর্তা সিদ্দিকুর রহমান ও সেনা সদস্য সৈয়দ মাহবুবুল হককে হত্যা করা হয়। বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে যুবলীগ নেতা শেখ ফজলুল হক মনির বাসায় হামলা চালিয়ে তাকে,তার অন্তঃসত্ত্বা আরজু মনি, বঙ্গবন্ধুর ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাতের বাসায় হামলা করে তাকে ও তার কন্যা বেবী,পুত্র আরিফ সেরনিয়াবাত,নাতি সুকান্ত বাবু, সেরনিয়াবাতের বড় ভাইয়ের ছেলে সজীব সেরনিয়াবাত এবং আওয়ামী লীগ নেতা আমির হোসেন আমুর খালাত ভাই রেন্টু খানকে হত্যা করা হয়। ঘাতকরা বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবার এবং নিকট আত্মীয়সহ ২৬ জনকে ঐ রাতে নৃশংসভাবে হত্যা করে। বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহেনা সে সময় পশ্চিম জার্মানিতে অবস্থান করায় প্রাণে বেঁচে যান। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে সপরিবারে হত ̈ার পর ঢাকার ৩২ নম্বর রোডের বাড়ীর দৃশ্য যেমন ছিল ঃ লেফটেন্যান্ট কর্নেল এম এ হামিদ পিএসসি তাঁর লেখা ‘তিনটি সেনা অভ্যুত্থান এবং না বলা কিছু কথা’ বইটিতে ১৫ আগস্ট হত্যাকান্ডের কিছু তথ্য পাওয়া যায়। তিনি লিখেছেন, আমি অফিসিয়ালি আদেশপ্রাপ্ত হয়ে ৩২ নম্বর রোডের বাড়ীটির মধ্যে প্রথমবারের মত ঢুকতে পেরেছিলাম। সেদিন বঙ্গবন্ধুর দেহ সিঁড়ির উপর এমনভাবে পড়েছিল যেন মনে হচ্ছিল সিঁড়ি দিয়ে নামতে নামতে হঠাৎ পা পিছলে পড়ে গেছেন। কারণ তাঁর মুখে কোনো আঘাতের চিহ্ন ছিল না। তাঁর বুকের অংশটুকু ছিল ভীষণভাবে রক্তাক্ত। তাঁর বাম হাতটা ছিল

বুকের উপর ভাঁজ করা। ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুর বুক গুলিতে ঝাঁঝরা করে দিয়েছিল। বঙ্গবন্ধুর মৃত শরীরের উপরও ঘাতকরা সহিংসতা চালিয়েছিল। যে তর্জনীর ইশারায় ৭ই মার্চে রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু জনসমুদ্রে ঢেউ তুলেছিলেন ঘাতকরা তাঁকে হত্যা করে সেই তর্জনী কেটে দেয়। শেখ জামালের স্ত্রী রোজী জামাল, তাকেও গুলি করে হত্যা করা হয়। তাদের

মাত্র ৩০ দিনের বিবাহিত জীবন ছিল। মেহেদির রং তখনও তার দুই হাতে ছিল। বঙ্গবন্ধু পরিবারের সবাইকে একের পর এক হত্যা করে তাদের লাশ দেখিয়ে তারপর শিশুপুত্র শেখ রাসেলকে হত্যা করা হয়। শেখ রাসেলকে কাজের লোকজন পেছনের সিঁড়ি দিয়ে নিচে নিয়ে যায়। কিন্তু ঘাতকরা তাকে দেখে ফেলে। শেখ রাসেল প্রথমে তাঁর মায়ের কাছে যাওয়ার জন্য কান্নাকাটি করে। মায়ের লাশ দেখার পর অশ্র“সিক্ত কন্ঠে ঘাতকদের কাছে শেখ রাসেল কাকুতি মিনতি করেছিল আমাকে হাসু আপার কাছে পাঠিয়ে দিন। সেদিন শিশু শেখ রাসেলের কান্নাকাটিতে ঘাতকদের হৃদয়ে কোনো রক্তক্ষরণ হয়নি। সুলতানা কামালের কোল ঘেঁষে নিষ্পাপ ছোট্র রাসেলের মৃতদেহ পড়ে ছিল। তার মাথার পেছনের দিক একেবারে থেঁতলে গিয়েছিল। ইতিহাসের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শহিদ হওয়ার পর গোটা বিশে^ নেমে এসেছিল শোকের ছায়া। ঘাতকদের প্রতি ছড়িয়ে পড়েছিল ঘৃণার বিষবাষ্প। পশ্চিম  জার্মানির নেতা নোবেল পুরস্কার বিজয়ী উইলি ব্রানডিট বলেছিলেন,শেখ মুজিবকে হত্যার পর

বাঙালিদের আর বিশ^াস করা যায় না। যে বাঙালি শেখ মুজিবকে হত্যা করতে পারে, তারা যেকোনো জঘন্য কাজ করতে পারে। বঙ্গবন্ধুকে নির্মম ও নৃশংসভাবে হত্যা করার পর স্বাধীনতা বিরোধীরা এদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় পুনর্বাসিত হতে থাকে। তারা এদেশের ইতিহাস থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে নানা উদ্যোগ নেয়। শাসকদের রোষানলে বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণও যেন নিষিদ্ধ হয়ে পড়েছিল। বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার ঠেকাতে কুখ্যাত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করেছিল মোশতাক সরকার। দীর্ঘ ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার গঠন করলে স্বাধীনতার মহান স্থপতিকে যথাযোগ্য সম্মান প্রদর্শনের পথও সুগম হয়। বঙ্গবন্ধু হত্যার দিনটিকে জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করা হতে থাকে। কিন্তু দুঃখের বিষয় ২০০১ সালে বিএনপি- জামায়াত জোট সরকার গঠন করলে বঙ্গবন্ধু হত্যার দিনটিকে জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন বন্ধ হয়ে যায়। তারা রাষ্ট্রীয়ভাবে দিবসটি পালন বাতিল করে দেয়। পরে ২০০৭ সালে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আবারও রাষ্ট্রীয়ভাবে

বঙ্গবন্ধুর শাহাদতবার্ষিকী পালন করার সিদ্ধান্ত নেয়। ২০০৯ সালে জাতীয় নির্বাচনে নিরঙ্কুশ

সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে আবারও রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসেন বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার আওয়ামীলীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট। ফলে রাষ্ট্রীয়ভাবে জাতীয় শোক দিবস পালনের ধারাবাহিকতা বজায় থাকে।বঙ্গবন্ধুকে হারানোর পর অনেক বছর পেরিয়ে গেছে। তবুও তাঁর কন্যাদের এবং আমাদের চেতনার জায়গা থেকে সঙ্গ দিয়ে যাচ্ছেন। নিরন্তর সাহস ও অনুপ্রেরণা দিচ্ছেন আমাদের বিস্ময়কর উন্নয়ন অভিযাত্রায়। আমরা আশাবাদী যে, ডেমোগ্রাফিক ও ডেনসিটি ডিভিডেন্টের কল্যাণে বাংলাদেশের এ সাফল্যের ধারা আরও কয়ে

ক দশক ধরে অব্যাহত থাকবে।আর এসব কারণেই বাংলাদেশের উন্নয়নের গল্পটি এতটা চমকপ্রদ। আর এর ভিত্তি গড়ে দিয়ে গেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

 

 

লেখক: মো. শাহজালাল

সহকারী প্রধান শিক্ষক,

পুলিশ লাইনস স্কুল অ্যান্ড কলেজ, কুষ্টিয়া।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640