1. nannunews7@gmail.com : admin :
May 27, 2024, 12:23 am
শিরোনাম :
উপকূলে ঘূর্ণিঝড়রিমালেরআঘাত আলমডাঙ্গায় ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ঝোড়ো হওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি, খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম আলমডাঙ্গার বাঁশবাড়িয়া গ্রামে ঈদগাহ পূণনির্মাণ নিয়ে দুগ্রুপে চরম বিরোধ বাড়ি ঘর ভাঙচুর আলমডাঙ্গায় মিথ্যা অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করার প্রতিবাদে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন কুষ্টিয়ার মিরপুরের ভেদামারীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষে-আহত-১০ কাঙ্খিত সেবা নেই, তবুও ইবির পরিবহন খাতে বছরে বিপুল ব্যয় ! মিরপুরে হাতের রগ কাটা কৃষি ব্যাংক কর্মচারীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার কুমারখালীতে নির্বাচনী সহিংসতায় আহত জয়নাবাদের তারিকের অবশেষে মৃত্ব্য হত্যাকান্ডঘটিয়েছে চেয়ারম্যান এনামুল হক মঞ্জুঃ আব্দুল মান্নান খান কুষ্টিয়ায় স্বাক্ষর জালিয়াতি কান্ডে সেই প্রতারক মীর সামিউল’র জামিন না মঞ্জুর, একদিনের রিমান্ড মিষ্টি আলু চাষ কৌশল

এবারের নির্বাচন ’১৮ সালের মতো হবে না ঃ সিইসি

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, July 26, 2022
  • 83 বার পড়া হয়েছে

ঢাকা অফিস ॥ এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০১৮ সালের মতো হবে না বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। মঙ্গলবার আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপকালে তিনি এ কথা জানান। এদিকে, নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সঙ্গে সংলাপে বিকল্প ধারা দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনেই ইভিএমে ভোট চায় বলে প্রস্তাব দিয়েছে। সংলাপকালে সিইসি বলেন, সময় মতোই দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
আর সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য যা যা করণীয় তা করা হবে। তবে, রাজনৈতিক দলগুলোকে সহযোগিতা করতে হবে। তিনি বলেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশন প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে এসেছে, ডিগবাজি দিতে নয়। তাই আমরা ডিগবাজি খাব না, নির্বাচনে সর্বশক্তি দিয়ে দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করব। আইন অনুযায়ী নির্বাচন হবে। নির্বাচনকে নিরপেক্ষ ও দুর্নীতিমুক্ত করতে চায় নির্বাচন কমিশন। ইসির প্রতি আস্থা রাখার জন্য রাজনৈতিক দলগুলোর উদ্দেশে সিইসি বলেন, আমাদের ওপর একটু আস্থা রাখুন। তবে, আস্থা রাখতে গিয়ে চোখ বন্ধ করে রাখলে হবে না। নজরদারি থাকতে হবে।
আমরা কি আসলেই সাধু পুরুষ, না ভেতরে ভেতরে অসাধু, সেদিকে নজর রাখতে হবে। আপনারা যদি নজরদারি না রাখেন, তাহলে আপনারাও আপনাদের দায়িত্ব পালন করলেন না। তাই আমাদের কঠোর নজরদারিতে রাখতে হবে। কোন অভিযোগ পেলে সঙ্গে সঙ্গে আমাদের কাছে পাঠান। নির্বাচনকালে অনেকগুলো টেলিফোন থাকবে। সিসি ক্যামেরা দিয়ে হয়তো আমরা অনেকগুলো সেন্টার ওয়াচ করতে পারব। সিইসি ইভিএম প্রসঙ্গে বলেন, এই পদ্ধতিতে ভোটে কারচুপির সুযোগ নেই। তবে, ইভিএম নিয়ে আমরা এখনও কোন সিদ্ধান্ত নেইনি। লাঠি-হকিস্টিক দিয়ে ইভিএম মেশিনটা ভেঙ্গে ফেলতে পারবেন। কিন্তু এখানে ভোটের নড়চড় হবে না, ভোট নষ্ট হবে না। ব্যালটে ৫ জনে ১০০টা করে ৫০০ ভোট দিয়ে দেয়া সম্ভব। এর ফলে ভোটের হারও অনেক বেশি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
কারণ, পাঁচজন যদি কোনভাবে ১০০ করে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে, তাহলে ৫০০ জনের ভোট দিয়ে দিতে পারে। তাই ব্যালট পেপারের ভোটে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা আছে। সমস্যাগুলো বুঝে নিয়ে আমরা কিভাবে একটু ব্যালেন্স করে যতদূর সম্ভব নিরপেক্ষ ও দুর্নীতিমুক্ত নির্বাচন করা যায়- সে চেষ্টা করছি। ভবিষ্যতে নির্বাচনে নির্বাচন কমিশন দুর্নীতিতে জড়িত হবে না- এটি আমরা সাফ জানিয়ে দিচ্ছি।
প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, নির্বাচনকে বাঁচিয়ে না রাখলে রাজনীতি উধাও হয়ে যাবে। তিনি বলেন, রাজনীতি থেকে গণতন্ত্রের জন্ম। নির্বাচনটাকে যদি বাঁচিয়ে রাখা না যায়, তাহলে রাজনীতি থাকবে না, গণতন্ত্রও থাকবে না। তখন অন্য কোন তন্ত্রে আপনারা চলে যাবেন। ইসির সফলতা পরিমাপ করা যাবে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, আমি ফেল করলাম, পুরোপুরি সফল হলাম, না আংশিক সফল হলাম, না পুরোপুরি ব্যর্থ হলাম- এটা নির্ভর করবে জনগণ কিভাবে পরিমাপ করে।
কোন বাটখারা দিয়ে সেটা মাপ করা যাবে না। তবে, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে নির্বাচন যথেষ্ট কঠিন একটা কাজ। এই কঠিন কাজটি করতে রাজনৈতিক দলসহ সবাইকে আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করতে হবে।
সিইসি বলেন, পেশীশক্তি ও ভোটে কালো টাকা ব্যবহার বন্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এটার জন্য কমিশন একা কিছু করতে পারবে না, রাজনৈতিক দলগুলোকে এই সংস্কৃতি থেকে বের হয়ে আসতে হবে। নির্বাচনে অর্থশক্তির ব্যবহার সামাল দিতে রাজনৈতিক দলের পরামর্শ চান সিইসি। তিনি বলেন, অর্থশক্তি আমরা কিভাবে সামাল দেব- আপনারা আমাকে একটা বুদ্ধি দেন। দেশে অর্থ বেড়েছে। সবার বাড়িতে বস্তা বস্তা টাকা। এসব বস্তা বস্তা অর্থ নির্বাচনে ব্যয় করা হয়। এই অর্থ নিয়ন্ত্রণ করব কিভাবে?
ইসিতে জমা দেয়া প্রার্থীর নির্বাচনী খরচের হিসাবের সঙ্গে প্রকৃত খরচের মিল থাকে না জানিয়ে সিইসি বলেন, যেটা প্রকাশ্যে হয় তার কিছুটা নির্বাচন কমিশনে দেখানো হয়। বলা হয় পাঁচ লাখ টাকা খরচ করেছে। তার বাইরে যদি আমি গোপনে পাঁচ কোটি টাকা খরচ করি, কিভাবে আপনি আমাকে ধরবেন বা আমি আপনাকে ধরব? এ জন্য সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এখন একটি অপসংস্কৃতি হয়ে গেছে।
নির্বাচন করছি, পয়সা নিয়ে ঢালতেছি, মস্তান ভাড়া করছি। প্রফেশনাল কিলারও ভাড়া করতে খুব বেশি পয়সা লাগে না। এই সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসতে আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে হবে। অর্থ ও পেশীশক্তির ব্যাপারে আমরা এখনই কিছু বলতে পারব না। এটি প্রতিরোধ করতে মাঠে রাজনীতিবিদদের থাকতে হবে।
সংলাপে নির্বাচন কমিশনার বেগম রাশেদা সুলতানা বলেন, সবার আস্থা পাওয়ার জন্য আমরা অবশ্যই চেষ্টা করে যাব। রাজনীতিবিদরা একটু শুধু বলুন, আমরা আস্থার জন্য কাজ করছি কি না? আপনারা চোখ-কান খোলা রাখুন, দেখুন আমরা কতটুকু করতে পারি। ভুল হলে ধরিয়ে দিন। তিনি বলেন, পেপার-পত্রিকায় যা দেখছি, তাতে মনে হচ্ছে আমরা কিছুই করছি না। মনে হচ্ছে যে যাবে বৃন্দাবন, সেই হবে রাবণ।
আপনারা যদি একটু ফিডব্যাক দেন, তাহলে আমরা আরেকটু উজ্জীবিত হই। আমাদের কতটুকু ইতিবাচক, কতটুকু নেতিবাচক; তা যদি বলেন, তাহলে আমরাও বলতে পারি যে, জনগণের কাছে আমাদের কাজ পৌঁছে গেছে। নিজেদের কাজ নিজেদের কাছে বোঝা কঠিন। আমরা আস্থা অর্জনের চেষ্টাই করছি না- এই চিন্তা থেকে আপনারা একটু বেরিয়ে আসুন। নির্বাচন কমিশনার আহসান হাবিব খান বলেন, আমাদের আপ্রাণ চেষ্টা থাকবে, ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের মতো ঘটনা প্রতিহত করার। একজন মা যদি ভিডিও কলে তার ছেলের সঙ্গে কথা বলতে পারেন, তবে ইভিএম মেশিনে একটি মাত্র চাপ দিয়ে ভোট দিতে পারবেন না কেন? ইভিএম মেশিন নিয়ে অবিশ্বাস থাকা উচিত নয়। মঙ্গলবার সকালে প্রথমেই ইসির সংলাপে অংশ নেয় জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640