1. nannunews7@gmail.com : admin :
May 27, 2024, 12:10 am
শিরোনাম :
উপকূলে ঘূর্ণিঝড়রিমালেরআঘাত আলমডাঙ্গায় ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ঝোড়ো হওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি, খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম আলমডাঙ্গার বাঁশবাড়িয়া গ্রামে ঈদগাহ পূণনির্মাণ নিয়ে দুগ্রুপে চরম বিরোধ বাড়ি ঘর ভাঙচুর আলমডাঙ্গায় মিথ্যা অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করার প্রতিবাদে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন কুষ্টিয়ার মিরপুরের ভেদামারীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষে-আহত-১০ কাঙ্খিত সেবা নেই, তবুও ইবির পরিবহন খাতে বছরে বিপুল ব্যয় ! মিরপুরে হাতের রগ কাটা কৃষি ব্যাংক কর্মচারীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার কুমারখালীতে নির্বাচনী সহিংসতায় আহত জয়নাবাদের তারিকের অবশেষে মৃত্ব্য হত্যাকান্ডঘটিয়েছে চেয়ারম্যান এনামুল হক মঞ্জুঃ আব্দুল মান্নান খান কুষ্টিয়ায় স্বাক্ষর জালিয়াতি কান্ডে সেই প্রতারক মীর সামিউল’র জামিন না মঞ্জুর, একদিনের রিমান্ড মিষ্টি আলু চাষ কৌশল

কুষ্টিয়ায় বিক্রি নেই তাই ফেলে দেয়া হচ্ছে গরু-ছাগলের চামড়া

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, July 13, 2022
  • 78 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ায় এবার ক্রয়কৃত পশুর চামড়া বিক্রি না হওয়ায় রাস্তায় ফেলে দিচ্ছে আড়তে আসা চামড়া বিক্রেতারা। দিনে-রাতে চামড়া পট্রিতে ফেলে রাখা চামড়া পচে-দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। দুষিত হচ্ছে পরিবেশ।

জানা যায়, প্রতিবছর ঈদুল আজহায় ত্যাগের মহিমায় লাখ লাখ পশু তথা গরু, ছাগল, ভেড়া কোরবানি করা হয়। ধর্মীয় বিধান মোতাবেক, কোরবানিকৃত এসব পশুর চামড়ার টাকা গরিবের হক। অথচ কয়েক বছর ধরে কোরবানির সময় পশুর চামড়া ন্যায্যমূল্যে বিক্রি না হওয়ায় গরিব-দুঃখী, অসহায় ও দুস্তরা তাদের প্রাপ্য হক থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। অসাধু ও ‘শক্তিশালী’ সিন্ডিকেটের বেড়াজালে কয়েক বছর ধরে ঈদের আগেই কোরবানির পশুর চামড়ার দাম কমিয়ে মূল্য নির্ধারণ করা হয়ে আসছে। কুষ্টিয়ায় কোরবানির চামড়া ক্রয়বিক্রয়ের সবচেয়ে বড় জায়গা শহরের বাবরআলী গেটের চামড়াপট্টি। ঈদের দিন দুপুরের পর থেকে বিভিন্ন উপজেলা পার্শ্ববর্তি জেলাগুলো থেকে চামড়া আসতে থাকে এখানে। সময় যত গড়ায় তত বেচাবিক্রি জমে ওঠে। শুরুতে দাম কিছুটা মিললেও বিকেল যত গড়ায় দাম তত পড়তে থাকে। অধিকাংশ আড়তদার ছোট আকারের গরু ও ছাগলের চামড়া কিনতে অনীহা দেখান। ছোট আকারের গরুর চামড়া কেউ বিক্রি করতে আনলে ১০০-১৫০ টাকা দামও বলছেন আড়তদারেরা। আর ছাগলের চামড়া ১০-৩০ টাকার বেশি বিক্রি হয়নি এ আড়তে। এদিকে ঈদেরদিন রাতে প্রায় ২ হাজার পিস ছাগলের চামড়া বিক্রি করার জন্য কুষ্টিয়ার মোকামে আনেন পার্শ্ববর্তি পাবনা জেলার এ ক মৌসুমী চামরা ব্যাবসায়ী কিš’ মূল্য না পাওয়ায় রাস্তার উপরই সেই চামড়া ফেলে চলে যান। প্রক্রিয়াজাত না করার করনে একদিন পর সেই চামড়া দিয়ে তীব্র দুর্গন্ধ বের হয়। এদিকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় গত সপ্তাহে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক করে ঢাকার বাইরে লবণযুক্ত গরুর চামড়ার দাম প্রতি বর্গফুট ৪০ থেকে ৪৪ টাকা নির্ধারণ করে। ছাগলের চামড়া প্রতি বর্গফুট ১৮ থেকে ২০ টাকা, বকরির চামড়া প্রতি বর্গফুট ১২ থেকে ১৪ টাকা নির্ধারণ করা হয়। তবে কুষ্টিয়ার বাজারে চামড়া বেচা-বিক্রির ক্ষেত্রে বেধে দেওয়া এ মূল্যেও কোন নিয়ম নীতি মানা হয়নি বলে জানায় চামড়া বিক্রি করতে আসা মৌসুমী ব্যবসায়ীরা। তবে গত বছরের তুলনায় কুষ্টিয়ায় বেড়েছে কোরবানির পশুর চামড়া। চামড়া ব্যবসায়ীদের হিসেবে, জেলার চামড়া পট্টি মোকামে ঈদে লক্ষমাত্রা ধরা হয় ৫ লাখ পশু কোরাবানীর চামড়া। এরমধ্যে গরু ১ লাখ ৫০ হাজার। খাসী ও অন্যান্য পশু ৩ লাখ ৫০ হাজার। ঈদের দ্বিতীয়দিন অর্থ্যাত সোমবার পর্যন্ত এই মোকামে প্রায় ৫০ হাজার গরু ও ১ লাখ খাসির চামড়া আমদানি হয়েছে। এদিকে যে সমস্ত ফড়িয়ারা চামড়া ব্যাবসার সাথে জড়িত তারা দাম বৃদ্ধির আশায় চামড়া বিক্রি না লবণজাত করে রেখে দিয়েছে। কুষ্টিয়ার মোকামে আশেপাশের কয়েকটি জেলার চামড়া আমদানি হয়। ঈদেরদিন দুপুরে চামড়া পট্টি এলাকায় বড় আকারের গরুর চামড়ার দাম ছিল ৮’শ থেকে ৯শ ৫০ টাকা। গত বছরের তুলনায় বড় গরুর চামড়ার দাম কিছুটা বাড়লেও গত ৪ বছর তি হওয়ায় এবার মৌসুমি চামড়া ক্রেতা ছিল খুবই কম। সেভাবে দেখা যায়নি অলিতে গলিতে চামড়া কেনাকাটা। দাম না পাওয়ার অভিজ্ঞতায় কোরবানীদাতারা মাদ্রাসা ও এতিমখানায় বেশী পরিমান দান করেছে। তবে একাধীক মাদ্রাসার অভিযোগ ঈদের দিন রাত পর্যন্ত অসাধু সিন্ডিকেটে গত তিন বছরের মত এবারো কম মূল্যে চামরা বিক্রি করতে হয়েছে তাদের। একাধীক মাদ্রাসা ও এতিমখানা কর্তৃপ বলছেন, গত বছরগুলের ধারাবাহিকতায় এবারও বঞ্চিত। শহরের ঐতিহ্যবাহী মোমতাজুল উলুম মাদ্রাসার প্রধান মুফতি আরিফুজ্জামান জানান, গত বছর গরুর চামড়া বিক্রি করেছি ৮শ থেকে ৯৫০ টাকায় আর ছাগলের চামড়া ৩০-৪০ টাকা। কুষ্টিয়া চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আনিস কোরাইশি জানান,  চামড়া প্রক্রিয়াজাত করার লোকবলের অভাব, লবনের মূল্য ব”দ্ধিসহ বিভিন্ন কারনে ছোট গরু ও ছাগলের চামড়ার প্রতি ব্যবসায়ীদের আগ্রহ কম। অন্যদিকে তার অভিযোগ, বিগত বছরগুলোর মতো ট্যানারী মালিকরা ট্যানারি মালিকদের কাছে তাদের মূলধন বকেয়া আটকে আছে, আর এ কারনে নগত টাকা দিয়ে চামড়া ক্রয় করতে তাদের সমস্যার সম্মুক্ষিন হতে হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640