1. nannunews7@gmail.com : admin :
May 19, 2024, 3:33 pm

কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতির গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা

  • প্রকাশিত সময় Monday, July 4, 2022
  • 56 বার পড়া হয়েছে

বিভিন্ন মহলের ক্ষোভ ও প্রতিবাদ

কাগজ প্রতিবেদক ॥ হ্যানোলাক্স কোম্পানি ১ কোটি ২৬ লাখ টাকা আত্মসাৎ করায় হতাশাগ্রস্ত হয়ে জাতীয় প্রেসক্লাবে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন গাজী আনিস নামের এক ব্যক্তি। তিনি কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ছিলেন। সোমবার বিকেলের দিকে জাতীয় প্রেসক্লাবের ব্যাটমিন্টন মাঠে এ ঘটনা ঘটে। পরে লোকজন এসে আগুন নেভায় এবং পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ খবর পেয়ে দ্রুত তাকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিউটে নিয়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শী সাংবাদিক ইসমাইল হোসেন টিটু বলেন, হঠাৎ করে দেখি এক ব্যক্তির গায়ে আগুন জ্বলছে। সঙ্গে সঙ্গে আমি চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন এসে আগুন নেভায়। পরে পুলিশ খবর পেয়ে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। জানা গেছে, ১ কোটি ২৬ লাখ টাকা পান হ্যানোলাক্স কোম্পানির কাছে। এই টাকা না দেওয়ায় হতাশা থেকে নিজের গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন তিনি। কাজী আনিসের ভাই কাজী নজরুল ইসলাম বলেন, আমি কিছুক্ষণ আগে শুনেছি, আনিস আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। হ্যানোলাক্স কোম্পানির কাছে ১ কোটি ২৬ লাখ টাকা পাবে কিনা সত্যতা জানতে চাইলে তিনি বলেন, হ্যাঁ, আমার ভাই ঐ টাকা পাবে, এটা সত্য। দীর্ঘদিন ধরে আনিস পাওনা টাকা ওঠানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু উঠাতে পারছে না। শাহবাগ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) গোলাম হোসেন বলেন, প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি, এই আত্মহত্যাচেষ্টাকারীর নাম গাজী আনিস। তার গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালি এলাকায়। হ্যানোলাক্স কোম্পানির কাছে ১ কোটি ২৬ লাখ টাকা পান তিনি। দীর্ঘদিন যাবৎ এই টাকা না দেওয়ায় হতাশাগ্রস্ত হয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। উল্লেখ্য ১৯৯১ সালে কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। ১৯৯৩ সালে কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পেয়েছিলেন তিনি। উদ্ধারকারী আরেক সাংবাদিক জানান, বিকাল আনুমানিক ৫টার সময়ে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে থেকে পুলিশের সহযোগিতায় দ্রুত সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নেওয়া হয়। তিনি আরও বলেন, হাসপাতালে নিয়ে আসার সময় কিছুক্ষণ তার সঙ্গে কথা হয়। তিনি হেনোলাক্স কোম্পানি কাছ থেকে ২ কোটি ২৬ লাখ টাকা পাবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। ওই কোম্পানি পাওনা টাকা দিচ্ছেন না। এ নিয়ে এর আগে সংবাদ সম্মেলন করেছেন তিনি। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। চলতি বছরের ২৯ মে হেনোলাক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান ডা. নুরুল আমিন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও তার স্ত্রী ডা. ফাতেমা আমিনের বিরুদ্ধে ব্যবসায়িক অংশীদার বানানোর লোভ দেখিয়ে ২ কোটি ২৬ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি। এ সময় টাকা ফেরতসহ তাদের শাস্তি দাবি করেন কাজী আনিস। সেই সংবাদ সম্মেলনে কাজী আনিস জানিয়েছিলেন, ২০১৬ সালে নুরুল আমিন ও ফাতেমা আমিনের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। এক পর্যায়ে ব্যবসায়িক অংশীদায়িত্বের সিদ্ধান্ত নেন তারা। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কাজী আনিস ব্যবসায় ২ কোটি ২৬ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেন। ২০২০ সালের ডিসেম্বরে লভ্যাংশসহ মোট তিন কোটি টাকা আনিসকে ফেরত দেওয়া হবে মর্মে চুক্তি হয়। পরে কয়েক দফায় লাভের অংশ থেকে ৭৪ লাখ টাকা তারা আনিসকে দেয়। কিন্ত চুক্তি অনুযায়ী অবশিষ্ট ২ কোটি ২৬ হাজার(লাভসহ) টাকা ফেরত দেয়নি। ওই সংবাদ সম্মেলনে কাজী আনিস আরও বলেছিলেন, ২ কোটি ২৬ লাখ টাকা ব্যবসায় বিনিয়োগ করতে গিয়ে তার সহায় সম্বল সবকিছু বিক্রি করতে হয়েছে। এখন তিনি নিঃস্ব। এ নিয়ে আদালতে দুটি মামলাও করেছেন বলেও জানিয়েছিলেন তিনি। এদিকে কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি গাজী আনিসুর রহমানের আত্মহত্যার চেষ্টার ঘটনায় তথা কথিত বন্ধু নুরুল আমিন, তার স্ত্রী ফাতেমা আমিন ও হ্যানোলাক্স কোম্পানির বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন ছাত্রলীগ আওয়ামীলীগসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640