1. nannunews7@gmail.com : admin :
May 27, 2024, 10:39 am
শিরোনাম :
বিয়ে করেছেন রাজ-বুবলী! উপকূলে ঘূর্ণিঝড়রিমালেরআঘাত আলমডাঙ্গায় ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ঝোড়ো হওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি, খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম আলমডাঙ্গার বাঁশবাড়িয়া গ্রামে ঈদগাহ পূণনির্মাণ নিয়ে দুগ্রুপে চরম বিরোধ বাড়ি ঘর ভাঙচুর আলমডাঙ্গায় মিথ্যা অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করার প্রতিবাদে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন কুষ্টিয়ার মিরপুরের ভেদামারীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষে-আহত-১০ কাঙ্খিত সেবা নেই, তবুও ইবির পরিবহন খাতে বছরে বিপুল ব্যয় ! মিরপুরে হাতের রগ কাটা কৃষি ব্যাংক কর্মচারীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার কুমারখালীতে নির্বাচনী সহিংসতায় আহত জয়নাবাদের তারিকের অবশেষে মৃত্ব্য হত্যাকান্ডঘটিয়েছে চেয়ারম্যান এনামুল হক মঞ্জুঃ আব্দুল মান্নান খান কুষ্টিয়ায় স্বাক্ষর জালিয়াতি কান্ডে সেই প্রতারক মীর সামিউল’র জামিন না মঞ্জুর, একদিনের রিমান্ড

বিশ্ব অর্থনীতি টালমাটাল হলেও বাংলাদেশের অবস্থা এখনও ভালো: আইনমন্ত্রী

  • প্রকাশিত সময় Saturday, June 18, 2022
  • 70 বার পড়া হয়েছে

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ ও করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ব অর্থনীতি যেখানে টালমাটাল সেখানে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অবস্থা এখনও ভালো আছে।
শনিবার (১৮ জুন) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাংলাদেশ রেজিস্ট্রেশন সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন (বিআরএসএ) আয়োজিত বার্ষিক সাধারণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।
আইনমন্ত্রী বলেন, একটা দেশ আর্থিকভাবে সচ্ছল থাকতে ৩ মাসের আমদানি বিল পরিশোধ করার মতো রিজার্ভ থাকতে হয়। ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ ও করোনাভাইরাসের অতিমারির কারণে বিশ্ব অর্থনীতি এখন অনেক ক্ষেত্রে টালমাটাল। পাকিস্তানের যেখানে ২ মাস এবং শ্রীলঙ্কার মাত্র ১ দিনের আমদানি বিল পরিশোধের সামর্থ্য রয়েছে সেখানে আমাদের বাংলাদেশের সাত থেকে সাড়ে-সাত মাসের আমদানি বিল পরিশোধ করার মতো রিজার্ভ রয়েছে। কিন্তু এর পরেও আমরা সতর্ক। আমরা চাই মিতব্যয়ী হতে।
জনগণকে মানসম্মত সেবা প্রদানের নির্দেশনা দিয়ে সাব-রেজিস্ট্রারদের উদ্দেশ্যে আইনমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কল্যাণে এখন বাংলাদেশ বদলে গেছে, এই বদলে যাওয়া বাংলাদেশের সঙ্গে সাব-রেজিস্ট্রারদের খাপ খাইয়ে চলতে হবে।
তিনি বলেন, আমরা চাই মামলাজট কমুক। কিন্তু অনেক মামলার শুরু হয় জমি-জমা বিরোধ নিয়ে। এ বিরোধ কমানোর জন্য রেজিস্ট্রেশন ডিপার্টমেন্ট ডিজিটাইজড করা হচ্ছে। সারাদেশের সব সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে ই-রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া চালু করা সম্ভব হলে জনগণকে দ্রুত রেজিস্ট্রেশন সেবা দেওয়া সম্ভব হবে। সাথে জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধও কমবে।
আনিসুল হক বলেন, দক্ষতার সাথে ই-রেজিস্ট্রেশন সেবা দেওয়ার জন্য সাব-রেজিস্ট্রারদের সর্বাধুনিক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে। এই বিভাগে এখন পিএসসি থেকে নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। প্রতিটি উপজেলায় আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত সাব-রেজিস্ট্রি অফিস ভবন বানিয়ে দেওয়া হচ্ছে। বিআরএসএ’র দীর্ঘদিনের দাবি অনুযায়ী নিবন্ধন পরিদফতরকে উন্নীত করা হয়েছে। সব কর্মকর্তাদের দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় দেশের বিভিন্ন জেলায় জেলা রেজিস্ট্রার ও সাব-রেজিস্ট্রার অফিস ভবন নির্মাণ করা হয়েছে।
বিআরএসএ’র সভাপতি মো. জিয়াউল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেনÑ লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সচিব মো. মইনুল কবির, আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারওয়ার, নিবন্ধন অধিদফতরের মহাপরিদর্শক শহীদুল আলম ঝিনুক, বিআরএসএ’র মহাসচিব মো. জাহিদ হোসেন প্রমুখ।
কিশোরগঞ্জের ২৫ ইউনিয়ন প্লাবিত
এনএনবি : কিশোরগঞ্জের হাওরের ছয়টি উপজেলার পঁচিশটি ইউনিয়নে শতাধিক গ্রাম বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। ইটনার ধনু নদীর পানি উপচে প্লাবিত হতে শুরু করেছে গ্রাম, হাট বাজার এবং আশ্রয় কেন্দ্রগুলো। প্রশাসনের পক্ষ থেকে দুর্গতদের ইতোমধ্েয আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।
শনিবার দুপুরে স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে, ইটনা উপজেলার পাঁচটি, মিঠামইনের সাতটির সবকটি, অষ্টগ্রামের একটি, নিকলীর তিনটি, করিমগঞ্জের পাঁচটি এবং তাড়াইল উপজেলার চারটি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম ও হাটবাজারে পানি ঢুকতে শুরু করেছে। দুর্গত এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বন্যা প্লাবিত গ্রামগুলোতে ইতোমধ্েয ১৪৪ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ করে ত্রাণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।
এ ছাড়া গত কয়েক দিনের ভারী বর্ষণে জেলার সব অঞ্চলের জনজীবনে বিপর্যয় ঘটেছে। গবাদিপশুগুলো খাদ্য ও আশ্রয় সংকটে রয়েছে।
কিশোরগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মতিউর রহমান জানিয়েছেন, হাওরের ওপর প্রবাহিত বিভিন্ন নদ-নদীর পানি গত ২৪ ঘণ্টায় তিন ফুট বৃদ্ধি পেয়েছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে আগামীকাল থেকে অবস্থার আরও অবনতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম বলেন, ‘উজান থেকে নেমে আসা ঢলে কিশোরগঞ্জের হাওরের সব জায়গায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। এই পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ শুরু হয়েছে। আমি এই মুহূর্তে দুর্গত এলাকাগুলোতে রয়েছি। পরিস্থিতি মোকাবিলায় সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640