1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 16, 2024, 7:14 am

আদালতে মামলা থাকলেও নিয়োগ প্রক্রিয়া চালিয়ে যাচ্ছেন প্রধান শিক্ষক রহুল আমিন

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, May 24, 2022
  • 106 বার পড়া হয়েছে

 

কুষ্টিয়া স্বস্তিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রায় ২শ এস, এস, সি পরীক্ষার্থীর ৭০ হাজার টাকা ফেরত দেয়া হয়নি

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কোভিড মহামারিতে অনুষ্টিত ২০২১ সালে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার স্বস্তিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এস, এস,সি পরীক্ষায় বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক শাখার ১শ ৫৬ জন পরীক্ষার্থী সকল বিষয়ে পরীক্ষার জন্য নির্ধারিত টাকা জমা দেন। পরবর্তিতে সরকারী সিন্ধান্ত অনুযায়ী শুধু মাত্র তিনটি বিষয়ে এস, এস, সি পরীক্ষা অনুষ্টিত হয়। এ জন্য বোর্ড ছাত্র-ছাত্রীদের পরিশোধিত অর্থের যে সকল বিষয়ে পরীক্ষা নেয়া হয়নি ওই সকল বিষয়ের অর্থ ফেরত দিতে স্বস্তিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে তালিকাসহ নিদের্শনা প্রদান করেন বোর্ড কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়াও বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি স্বাক্ষর জাল অভিযোগে একটি নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করায় আদালতে মামলা চলমান থাকলেও প্রধান শিক্ষক নিয়োগ ও অন্যান্য দাপ্তরিক কাজ কর্ম স্বাভাবিক রেখেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা যায়,  স্বস্তিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ২০২১ সালে অনুষ্টিত এস, এস, সি পরীক্ষায় বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক শাখার প্রায় ১শ ৫৬ জন ছাত্র-ছাত্রী সকল বিষয়ে পরীক্ষার জন্য নির্ধারিত অর্থ জমা দেন। পরবর্তিতে বোর্ড কর্তৃপক্ষ কোভিড পরিস্থিতি বিবেচনায় সকল বিষয় না নিয়ে মুল কয়েকটি বিষয়ে পরীক্ষা গ্রহনের সিন্ধান্ত নেন। পরীক্ষা গ্রহন ও ফলাফল ঘোষণা শেষে যে সকল বিষয়ে পরীক্ষা নেয়া হয়নি। সে সকল বিষয় ও কেন্দ্র ফি বাবদ জনপ্রতি ৩শ ৯০ ও কেন্দ্র ফি ১শ ৩৫ টাকাসহ মোট ৫শ ২৫ টাকা, বিষয় বাবদ ৪০ টাকা কেন্দ্র ফি ১শসহ ১শ ৪০ টাকা অথ্যাত বিজ্ঞান শাখার ছাত্র-ছাত্রীদের জনপ্রতি ৫শ ৪০ টাকা, মানবিক শাখার ছাত্র-ছাত্রীদের ৪শ ৬৫ টাকা ও বাণিজ্য শাখার ছাত্র-ছাত্রীদের ৪শ ৮৫ টাকাসহ মোট প্রায় ৭০ হাজার টাকার কিছু বেশি ফেরত দিতে বেশ কয়েক মাস আগে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে ছাত্র-ছাত্রীদের নামের তালিকাসহ অর্থ ফেরত দিতে বোর্ড কর্তৃপক্ষ নির্দেশনা দেয়। কিন্তু বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দেব-দিচ্ছি বলে অসহায় দরিদ্র ছাত্র-ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকদের ঘোরাচ্ছেন। এ ব্যাপারে আলামপুর ইউনিয়নের স্বর্গপুরের বাসিন্দা আলতাফ হোসেনর পুত্র এস, এস, সি পরীক্ষার্থী নয়ন’র সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে সে জানায়, বিদ্যালয় থেকে তাকে কোন অর্থ ফেরত দেয়া হয়নি এবং তার মত তার এলাকার ছাত্র সুমাইয়াসহ অনেকের টাকাই ফেরত দেয়নি। এবং তারা জানেও না যে বিদ্যালয়ে টাকা ফেরত আসছে। এমনি ভাবে বটতৈলের বাসিন্দা জাহাঙ্গির প্রামাণিকের পুত্র সোলাইমান হোসেন, কাথুলিয়া এলাকার আব্দুল মতিনের পুত্র মিরাজুর রহমানসহ অনেকে টাকা না পাওয়ার অভিযোগ করেছেন।

অপরদিকে একটি দায়িত্বশীল সুত্র জানিয়েছে, ২০১৯ সালে তৎকালীন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি খোরশেদ আলম দায়িত্বে থাকাকালীন স্বস্ত্রিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অফিস সহকারী কাম মুদ্রাক্ষরিক পদে মোঃ আলমগীর হোসেনকে নিয়োগ দেয়া হয়। সে সময় নিয়োগ প্রক্রিয়ায় বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে এবং স্বাক্ষর জাল’র অভিযোগ এনে সাবেক সভাপতি খোরশেধ আলম কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতে একটি বিশেষ মামলা দায়ের করেন মামলা নং ০২/১৯। আদালতের তৎকালীন বিজ্ঞ বিচারক অরুপ কুমার গোস্বামী আদালতে দাখিলকৃত কাগজ পত্র যাচাই-বাছাই পুর্বক জেলা দুর্নীাতি দমন কমিশনকে তদন্তপুর্বক  আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য নিদের্শনা প্রদান করেন। দুদক কুষ্টিয়া কার্যালয়ের সাবেক সহকারী পরিচালক রফিক উদ্দিন, সাবেক উপ-সহকারী পরিচালক মোঃ নছরুল্লাহ হোসাইন, সহকারী পরিচালক নীল কমল পাল গত ৯ জুন ২০১৯ খ্রীঃ তারিখে আদালতে প্রস্তুতপুর্বক গত ২৯ জুন ২০১৯ খ্রীঃ দুদক কুষ্টিয়া সহকারী পরিচালক নীল কমল পাল স্বাক্ষরিত  অভিযোগ পত্রের ৭ নং কলামের অবশিষ্টাংশে বলা হয়েছে, সুতরাং আসামী ১, রুহল আমীন প্রধান শিক্ষক স্বস্তিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২. আলমগীর হোসেন অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর কুষ্টিয়াদ্বয়  কর্তৃক অসৎ উদ্দেশ্যে একে অপরকে লাভবান করার অভিপ্রায়ে প্রতারণামুলক ও জালজালিয়াতির আশ্রয়ে স্বাক্ষর  সৃজন ও ব্যবহার করার অপরাধ প্রাথমিক ভাবে প্রমাণিত হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে দঃ বিঃ ৪২০/৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/১০৯ ধারার তদন্ত প্রতিবেদন বিজ্ঞ আদালতের দাখিলের সুপারিশ করে অনুমোদনের জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষককে প্রেরণ করা হয় এবং উক্ত ধারার অপরাধে বিচারার্থে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। আদালতে বর্তমানে মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে তারপরও প্রধান শিক্ষক রুহুল আমীন গত ২২ মার্চ ২০২২ খ্রীঃ তারিখে স্থানীয় তিনটি পত্রিকায় সহকারী প্রধান শিক্ষক, নিরাপত্তা কর্মি, পরিচ্ছন্ন কর্মি, নৈশ প্রহরীও অফিস সহায়কসহ ৫টি পদে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞাপন প্রদান করেন। যা সম্পুর্র্ণ বিধি বর্হিভুত। এ সব বিষয়ে গত ১৯ মে সরজমিনে গেলে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের শিক্ষক মিলনায়তনে দুপুর বেলার খাবার খাচ্ছেন। প্রধান শিক্ষকের খোঁজ নিতেই জানা গেল তিনি প্রশিক্ষণে ঢাকায় আছেন। এ সব বিষয়ে কথা বলতে উপস্থিত কোন শিক্ষকই রাজী হননি। পরে সহকারী শিক্ষক মহসিনসহ উপস্থিত শিক্ষকরা বলেন, এ সব বিষয়ে প্রধান শিক্ষকের সাথে কথা বললে ভালো হয়। তারা কিছু জানেন না, বলতেও পারবেন না। এ ব্যাপারে গতকাল মুঠোফোনে প্রধান শিক্ষক রুহুল আমীনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ২০২১ সালে এস, এস, সি পরীক্ষার্থীদের পাওনা দেয়া শুরু হয়েছে। কবে থেকে দেয়া শুরু হয়েছে জানতে চাইলে তিনি জানান, ২৩ মে থেকে টাকা দেয়া শুরু হয়েছে। এত দেরিতে কেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ম্যানেজিং কমিটির সিন্ধান্ত অনুযায়ী শিক্ষকদের ঈদ বোনাসহ কিছু পাওনাদি পরিশোধের জন্য এ টাকা পরিশোধ করা হয়নি। এখন থেকে পরিশোধ করা হচ্ছে। মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, সাবেক সভাপতির সম্মতিতেই আলমগীর হোসেনকে বিদ্যালয়ে অফিস সহকারী পদে নিয়োগ দেয়া হয় এবং পরীক্ষা ও অন্যান্য বিধি মেনে চুড়ান্ত নিয়োগের সময় তিনি রেজুলেশনে স্বাক্ষর না করে চলে যান। তিনি জানান, আগে একটি নিয়োগে অর্থ আত্মসাথের অভিযোগ উঠে সে সময় তিনি ৭৪ হাজার টাকা পরিশোধ করেন। বাকি টাকা এখনও পরিশোধ করেননি। তিনি যে মামলা এটা তার খামখেয়ালী পনা। আদালত যে সিন্ধান্ত দেবে তা আমরা মেনে নেব।

এ সব অভিযোগের বিষয়ে সাবেক সভাপতি খোরশেদ আলম জানান, প্রধান শিক্ষক প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে আমার স্বাক্ষর জাল করে আলমগীরকে নিয়োগ দিয়েছে। টপশিটে আমার কোন স্বাক্ষর নেই। ওই নিয়োগ পরীক্ষা হয় জিলা স্কুলে পরীক্ষার সময় তিনিই গার্ড দিচ্ছেন পরীক্ষার্থীকে এবং পরীক্ষার প্রশ্ন ফটোকপি। আমি তাকে জিজ্ঞেস করতে তিনি জানান, আমি এমনতিইে এসেছি। এমন চক্র করে প্রধান শিক্ষক রহুল আমীন আমার স্বাক্ষর জাল করে নিয়োগ দিয়েছেন। আমি আদালতে স্বরণাপন্ন হয়েছি দুদক আদালতে অভিযোগ প্রমাণ পেয়ে তা জমাও দিয়েছেন তার পরও তিনি আবারও নিয়োগের জন্য সার্কুলার দিলেন কিভাবে আমার জানা নেই। এ ব্যপারে তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। কথা হয় বিদ্যালয় ম্যানের্জিং কমিটির সভাপতি আব্দুল্লা আল মামুনের সাথে তিনি জানান, আমি দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে বিদ্যালয়টিতে একটি সুশৃংল পরিবেশ ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছি। সত্য উদঘাটন হউক আমার কাম্য। কোন মিথ্যা যেন উঠে না আসে। এমন কথা জানান তিনি।

স্বস্তিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এ সব বিষয়ে জেলা শিক্ষা অফিসার জায়েদুর রহমানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি এসব কিছুই জানিনা। লিখিত ভাবে কেউ জানালে আমি ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

একটি ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয়ে এমন অব্যবস্থাপনা রোধ করে সুষ্ঠু শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে এলাকাবাসী।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640