1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 16, 2024, 8:12 am

বাবা-মায়ের কোলে চড়ে স্কুলে যেতে হয় শিশু শিক্ষার্থীদের

  • প্রকাশিত সময় Thursday, May 19, 2022
  • 79 বার পড়া হয়েছে

দুর্গন্ধের মাঝে বসবাস!

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বটতৈল ইউনিয়নের কবুরহাট স্কুল পাড়ায় দুর্গন্ধের মাঝেই বসবাস করছে কয়েকশ মানুষ। সেখানে অটো রাইস মিলের বর্জ্যে ভরা দূষিত পানিতে দীর্ঘদিন ডুবে আছে চলাচলের একমাত্র রাস্তা। শুধু বৃষ্টি বাদলের সময় নয়, বছরের বারো মাস আশপাশের অটো রাইচ মিলের নোংরা পানির নিচে থাকে রাস্তাটি। এতে  বাবা-মায়ের কোলে চড়েই প্রতিনিয়ত স্কুলে যেতে হয় কোমলমতি শিক্ষার্থীদের! কখনো কখনো সেখনে চলতে গিয়ে নোংরা পানিতে পড়ে ওইদিন স্কুলে আর যাওয়া হয় ছাত্র-ছাত্রীদের।

স্থানীয় কয়েকজন জানান, শুধু বর্ষা মৌসুমে নয়, বছরের বারো মাসই তাদের দুর্গন্ধের মাঝে বসবাস করতে হচ্ছে। তাদের চলাচলের একমাত্র রাস্তাও নোংরা পানিতে তলিয়ে থাকে বারো মাস । তবে এই রাস্তাটা মাটি-বালি ফেলে কিছুটা উঁচু করা হলে তাদের চলাচলের উপযোগী হয়ে উঠতে পারে। এজন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সু-দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

সেখানে বসবাসকারী কয়েকজন জানান, এর আগে দুর্গন্ধ যুক্ত দুষিত পানির বিষয়ে আশপাশের অটো রাইচমিলের মালিকের জানানো হয়। পরে মালিক পক্ষের লোকজন উল্টো হুমকী ধামকী দিয়ে বলেন, এভাবে বসবাস করতে পারলে করুন না হলে আমাদের কাছে জায়গা বিক্রি করে অন্য স্থানে চলে যাও। এর পর থেকে কোথাও কোন অভিযোগ না করে দুর্গন্ধ এর মাঝে এক প্রকার বাধ্য হয়েই বসবাস করছেন তারা।

স্থানীয়রা জানান, রাইচ মিলের নোংরা পানিতে বাড়ি ঘর রাস্তা শুধু নয়, স্থানীয় কৃষি জমিতেও কোন ফসল হচ্ছে না। আশপাশের পুকুরের মাছ মারা যাচ্ছে। স্থানীয় স্কুলে দুর্গন্ধ এর মধ্যেই পাঠদান করানো হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। এ ছাড়াও এলাকার ইউনিয়ন স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের প্রবেশ পথ ও এর আশপাশ নোংরা পানিতে তলিয়ে গেছে। অটো রাইস মিল বা চালকলের বর্জ্যরে পানিতে উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে জলাবদ্ধতা তৈরি হওয়ায় প্রায় সাত মাস ধরে বন্ধ রয়েছে স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি। এতে চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এ এলাকার প্রায় ৩০ হাজার মানুষ। স্থানীয় দেশ এগ্রো ও ইফাদ এগ্রো নামের দুটি চালকলের বিষাক্ত বর্জ্য ও দূষিত পানিতে উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রটির চারপাশে জলাবদ্ধতা তৈরি হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তারা।

পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে জানা যায়, চাউলের মোকাম বটতৈল থেকে খাজানগর পর্যন্ত মাত্র ৩০টি কারখানার পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র রয়েছে। বাকিগুলো ছাড়পত্র ছাড়াই চলছে। পরিবেশ দূষণের কথা স্বীকার করে কুষ্টিয়া পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আব্দুল গাফফার বলেন, চালকল মালিকদের একাধিকবার তাগাদা দেওয়ার পরও তারা এ বিষয়ে কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না। এ ব্যাপারে বঅবস্থা নেয়া হবে।

কুষ্টিয়া জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কার্যালয়ের (খামারবাড়ি) অতিরিক্ত উপ-পরিচালক (ফসল) বিষ্ণু পদ সাহা জানান, কলকারখানার এসব বর্জ্যরে মধ্যে আয়রন, লেডসহ ক্ষতিকর নানা উপাদান থাকতে পারে। যা মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর হয়ে উঠতে পারে। আবার দূষিত পানির কারণে ফসলের উৎপাদনও কম হবে। কলকারখানার বর্জ্যের মাধ্যমে পরিবেশ দূষণের হাত থেকে এখানকার জীব-বৈচিত্র্য রক্ষা করতে হলে অবিলম্বে বর্জ্য শোধনাগার নির্মাণ প্রয়োজন।

বটতৈল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিন্টু ফকির বলেন, নোংরা পানিতে নিমর্জিত ইউনিয়ন স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র ও কবুরহাট হাই স্কুল পাড়ার রাস্তাঘাট তিনি পরিদর্শন করেছেন । প্রতিকারে খুব শিগগিরই ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ব্যাপারে অটো রাইস মিলের বর্জ্য স্ব-স্ব স্থানে রাখার ব্যাপারে মিল মালিকদের আন্তরিকভাবে এগিয়ে আসতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640