1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 16, 2024, 8:47 am

তারাবিহ নামাজ পড়ার নামে পাড়ায় পাড়ায় সরব কিশোর গ্যাং

  • প্রকাশিত সময় Sunday, April 24, 2022
  • 72 বার পড়া হয়েছে

প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ

গণপিটুনির শিকার এক জন গুরুতর আহত

কাগজ প্রতিবেদক ॥ বিএসবি, কুষ্টিয়া রাইডার গ্রুপসহ নানা নামে তের থেকে উনিশ বছর বয়সী কিশোররা সু-সংঠিত হয়ে উঠেছে। পবিত্র রমজান মাসকে সামনে রেখে প্রতিদিন মাগরিব নামাজের পর থেকে এশার নামাজ শেষে তারাবিহ নামাজের সময় পর্যন্ত শহরের অধিকাংশ এলাকাসহ পাড়া মহল্লার মসজিদগুলোতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে দেদারছে তারা। গতকাল এশার নামাজের সময় পশ্চিম মজমপুর বায়তুল জান্নাত জামে মসজিদে একটি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে তারাবিহ নামাজ চলাকালে এক কিশোরকে ১২/১৩ জন ধরে গণপিটুনি দিয়েছে বলে জানা গেছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, সম্প্রতি এ মসজিদের পুর্ব পাশে রেললাইন জুড়ে পুর্বে বেশ কিছু সন্ত্রাসীর আনাগোনা ছিল। আইনশৃংলাবাহিনীর তৎপরতায় এলাকার অনেক বাঘা বাঘা সন্ত্রাসী নিহত হয় আবার অনেকে এলাকা থেকে পালিয়ে যায়। সম্প্রতি ঘোর লাইন ও বেলতলা নামক স্থানে আবারও মাদক কেনাবেচাসহ নানা রকম সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বৃদ্ধি পাওয়ায় এলাকার আইনশৃংলা পরিস্থিতি অনেকটা অবনতির দিকে ধাবিত হচ্ছে।

একটি দায়িত্বশীল সুত্র বলছে, বিএসবি, কুষ্টিয়া রাইডারসহ নানা নামে ভয়েস গ্রুপ করে কিশোর গ্যাং আবারও সরব হয়ে উঠেছে।  গতকাল সরজমিনে পশ্চিম মজমপুর বায়তুল জান্নাত জামে মসজিদ, পৌর জামে মসজিদ, জিকে কলোনী মসজিদ,আলফার মোড় জামে মসজিদ, সবজি ফার্ম মাদ্রাসা কাম জামে মসজিদ, কোর্টপাড়া জামে মসজিদসহ শহরের অধিকাংশ এলাকায় মাত্র তের থেকে উনিশ বছর বয়সী এসব কিশোর গ্যাংকে সরব দেখা গেল।  বাড়ী থেকে তারাবিহ নামাজ পড়ার নাম করে বের হয়ে রাতে মসজিদে এসে কোন ভাবে এশার নামাজে শরিক হয়ে আবার কেউ নামাজ পড়ার পোশাক পরে বাড়ী থেকে বেরিয়ে মসজিদ, বাসষ্ট্যান্ড, রেলষ্টেশন এলাকায় অবস্থান করে চা-সিগারেট ফুঁকছে। এর মধ্যে চলছে মোবাইলে নানা কর্মকান্ড কেউ ফ্রি ফায়ার গেম কেউ অশ্লিল কিছু দেখছে মনোযোগ দিয়ে। কেউ কেউ আবার এ ফাঁকে নানা রকম টিচ করছে পথচারীদের। বেশ কয়েক বছর আগে চৌড়হাস এলাকায় একটি মসজিদে তারাবিহ নামাজ শেষে বাড়ী ফেরার পথে এক যুবক তৎকালীন সময়ের ওই এলাকার কিশোর গ্যং’র হাতে প্রাণ হারায়। ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বেশ কিছুদিন এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করে। ঘটনার সুত্র ধরে ৯০’র দশকে পর পর চৌড়হাস ও উপজেলা সড়কে কয়েকটি খুণের ঘটনা ঘটে।

সুত্রটি বলছে, কোর্টপাড়া বনাম টালিপাড়া, থানাপাড়া বনাম আড়–য়াপাড়া, মিলপাড়া বনাম চাপড়া ও আড়–য়াপাড়া, কমলাপুর বনাম থানাপাড়ার একাংশ, মজমপুর বনাম বাড়াদী, জগতি বনাম চেঁচুয়া, হরিপুরে শালদহ বনাম বোয়ালদহে বছরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ সংঘাত লেগেই থাকতো। এক জরিপে দেখা গেছে, ১৯৮৮ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত এ সব এলাকায় এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ, চর দখল, ঘাট দখলসহ নানা দখল আর আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রায় কয়েক শত যুবক, কিশোর, বৃদ্ধ নিহত হয়েছে। সে সব ঘটনায় থানায় মামলা হলেও অনেক মামলার সঠিক স্বাক্ষী ও প্রয়োজনীয় তথ্যাদির অভাবে  খারিজ হয়ে গেছে। রাতে দিনে প্রকাশ্যে রাজপথে চলতো অস্ত্রের মহড়া, গুলি, হামলা, ভাংচুর। কুষ্টিয়াজেলায় স্বাধীনতার পরবর্তি ২০০৪ সাল পর্যন্ত চরমপন্থী সন্ত্রাসী, গ্যাং পার্টির হাতে অন্তত ৪ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। অসংখ্য বাড়ী ঘর লুট, ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে।

এ সব কারণে কুষ্টিয়ার নাম লেখার আগে চরমপন্থী অধ্যুাষিত এলাকা  উল্লেখ করতে হতো। পরবর্তি পর্যায়ে আইনশৃংলা বাহিনী ও সন্ত্রাসী বাহিনীর মধ্যে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনার সুত্রপাত হলে অনেক  বাঘা বাঘা চরমপন্থী সন্ত্রাসী নিহত হয়। অনেকে দেশ ছেড়ে এখনও বিদেশের মাটিতে অবস্থান করছেন। এলাকায় শান্তি ফিরে আসে। মানুষ আবার রাতে দরজা খুলে ঘুমাতে শুরু করে। সুত্রটি বলছে, সে অবস্থা যেন দিনে দিনে হারিয়ে যাচ্ছে। এই কিশোর গ্যাং থেকে এক সময়ে কুষ্টিয়ায় আবার খুণ, লুটসহ নানা অপকর্ম শুরু হবে। সুত্রটি বলছে, কুষ্টিয়া শহরে এই মুহুর্তে অন্তত ২০টিরও অধিক কিশোরদের গঠিত ভয়েজ গ্রুপ রয়েছে যারা নানা খেলার ছলে ইয়াবা সেবন,ক্রীকেট জুয়া, মোবাইলে ফ্রি ফায়ার গেমে জুয়াসহ নানা অপকর্মে জড়িয়ে পড়েছে।  মাঝে মধ্যে এদের হাতে পড়ে অনেক নিরিহ কিশোর, যুবক প্রহারের শিকার হয় এবং হচ্ছে। এখুনি যদি এই শহরে কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণ করা না যায় তা হলে যে কোন সময় বড় ধরণের প্রাণহানির ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640