1. nannunews7@gmail.com : admin :
July 12, 2024, 2:35 pm
শিরোনাম :
ঢাকায় ছয় ঘণ্টায় ১৩০ মিলিমিটার বৃষ্টি সড়ক ডুবে বিকল যানবাহন, চরম ভোগান্তিতে নগরবাসী চালের দাম আরও বাড়লো সবজি আলু পেঁয়াজের বাজার অস্থির ন্যাটোর অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে যা বলল ইরান অরুণাচলে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের তোড়জোড় ভারতের, চীনের কড়া প্রতিক্রিয়া ফ্রান্সের বিখ্যাত ক্যাথেড্রালে আগুন ২০০০ বর্গফুটের বাড়ি কিনেছেন কৃডু ‘আলিবাগে বিনিয়োগের সেরা সময়’ গায়ে হলুদে বাঙালির হাতে ট্রেন্ডি সাজে রাধিকা কোপা আমেরিকার ফাইনালের মঞ্চ মাতাবেন শাকিরা খোকসায় উপজেলা ছাত্র কল্যাণ পরিষদ মেধাবী শিক্ষার্থী মারিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান পৌরসভার নির্যাতনের প্রতিবাদে  কুমারখালীর যদুবয়রা ইউনিয়নের  ৩’শ ভ্যান চালককে ফ্রি লাইসেন্স প্রদান

 অধিগ্রহন না করে ৫শ ৭৪ কোটি টাকা ব্যায়ে কুষ্টিয়া ফোরলেন’র কাজ হওয়ায় জমির মালিকদের মানববন্ধন ॥ সওজ’র কাজ স্থগিত

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, January 11, 2022
  • 149 বার পড়া হয়েছে

দুই পক্ষের থানায় অভিযোগ

প্রচার-ষ্টেশনারী, প্রশিক্ষণ খাতেই শত কোটি টাকা বরাদ্ধ, নেই জমি অধিগ্রহনের জন্য টাকা

কাগজ প্রতিবেদক ॥ সরকারী বিধি অনুযায়ী জেলা প্রশাসন থেকে জমি অধিগ্রহন না করে কুষ্টিয়ায় ফোর লেন সড়ক প্রসস্তকরণ কাজ করার প্রতিবাদে জমির প্রকৃত মালিকরা মানববন্ধন করেছে। সিএস, এস, এ আর এস দাগে জমির মালিকানা ও নি¤œ আদালত, উচ্চ আদালতের রায় ডিক্রি থাকা সত্বেও সড়ক ও জনপথ বিভাগ জমির মালিক দাবী করে সড়ক উন্নীতকরণের প্রকল্পের উদ্যোগ নেয়। এতে জমির মালিকগণ আদালতের স্বরণাপন্ন হন। কয়েক দফায় আদালত জমির মালিক ও বিবাদী পক্ষের আপত্তি শুনানী করে স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বলে জানা গেছে। এ অবস্থায় সরকারের এমন একটি উন্নয়ন প্রকল্পে প্রচার, আপ্যায়নসহ নানা বিধ খাতে বৃহত বরাদ্ধ থাকলেও প্রকল্পের মুল ভিত্তি জমি অধিগ্রহনে কোন বরাদ্ধ না থাকায় এখন এ নতুন জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। কুষ্টিয়া সদর উপজেলার জগতি মৌজার বিসিক শিল্পনগরী এম, আর এস ইন্ডাষ্ট্রির সামনে এ ঘটনা ঘটেছে।

জানা যায়, স্বাধীনতা উত্তোর কুষ্টিয়া সদর উপজেলার জগতি মৌজার বিসিক শিল্পনগরী এম, আর, এস ইন্ডাষ্ট্রির সামনে নফির উদ্দিন নিকারী সিএস ৭০৪’ ৭০৫ দাগে ৯৯ শতাংশ জমির মালিকানা ছিলেন। পরবর্তিতে তার মৃত্ব্যকালে তিন পুত্র আজগর আলী চৌধুরী, আনোয়ার চৌধুরী ও সোহরাব চৌধুরী ওয়ারেশ রেখে যান। সোহরাব আলী চৌধুরী নিঃসন্তান অবস্থায় মৃত্যবরণ করলে আজগর আলী চৌধুরী ও আনোয়ার চৌধুরীর কাছ থেকে ১৯৮০ সালের ২৩ জুলাই একই মৌজার আজিজুল হক, সিরাজুল হক, তোফাজ্জেল হক, মোফাজ্জেল হক ও ইন্তাজুল হক গংরা ক্রয় সুত্রে উক্ত জমির মালিক হন। জমির মালিকানা পাওয়ায় আর এস দাগে তাদের নামে খারিজও হয়। এর পর থেকে উক্ত জমিতে আজিজুল হক গংরা ধান, পাটসহ নানা ফসলাদি চাষ করে ভোগ দখল করে আসছিল। আজিজুল হক’র মৃত্ব্যও পর তার ওয়ারিশ রেজাউল হক গংরা বর্তমানে ভোগ দখলে আছে। এমতা অবস্থায় হটাৎ করেই কোন প্রকার নোটিশ না দিয়ে কুষ্টিয়া সড়ক ও জনপথ বিভাগ ১৯৯৯ সালে জমির মালিক দাবী করে একটি দেওয়ানী ৩৭৫/২০০০ সিভিল রিভিশন করে। মামলায় উপযুক্ত কারণ না দর্শানোয় ১৩-১০-২০০৩ সালে মামলাটি তৎকালীন কুষ্টিয়ার সিনিয়র সহকারী জজ শেখ আবু তাহের বিবাদীগণের পক্ষে রায় প্রদান করেন। রায়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে সওজ জেলা ও দায়রা জজ আদালতে দেং ২২৬/২০০৩ আপিল করেন। অত্র মামলাটি তৎকালীন জেলা জজ ফজলুল হক ১ জুন ২০০৫ সালে নি¤œ আদালতের রায় বহাল রাখেন এবং বিবাদী রেজাউল হক গংদের পক্ষে রায় প্রদান করেন। পরবর্তিতে সওজ হাইকোর্টে সিভিল রিভিশন ৮৫/২০১৭ আপিল দায়ের করে। ২০১৮ সালের ৩ অক্টোবর হাইকোর্টের বিজ্ঞ বিচারক মোঃ রেজাউল হাসান মামলাটি চুড়ান্ত শুনানী করে এই মর্মে রায় ডিক্রি প্রদান করেন যে, (দেয়ার ইজ নো মেরিট ইন দা রুলস ইন দা রেজাল্ট. দি রুলস ইজ ডিজচাজর্ড, সেনড ডাউন দা লোয়ার কোর্ট রেকোর্ডস ইমেডিয়েটলী দেয়ার ইজ নো অর্ডারস এজ টু কস্ট,) অর্থ্যাত মামলাটির কোন মেরিট না থাকায় তা ডিসচার্জড করেন এবং নি¤œ আদালতে নথি প্রেরণের নিদের্শ দিয়ে মামলাটি নিষ্পত্তি করেন। এর পর থেকে সব কিছু চুপচাপ ছিল। ২০১৯ সালের মাঝামাঝি সময়ে হটাৎ করেই কুষ্টিয়াসহ সারাদেশের উন্নয়নের অংশ হিসেবে কুষ্টিয়া বটতৈল থেকে ত্রীমোহী পর্যন্ত ফোরলেনের জন্য সরকার উদ্যোগ গ্রহন করে। এবং বিধি অনুযায়ী প্রকল্প পোফর্মা প্রস্তুত করেন। এতে করে বটতৈল বিটিসি পর্যন্ত কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ সড়কের এক পাশে না যেয়ে অন্যপাশে অর্থ্যাত রেজাউল হক গংদের কোন প্রকার নোটিশ, অধিগ্রহন না করে ৯৯ শতাংশ পুরো জমিতেই সড়ক প্রস্তুতকরণ ও ড্রেন নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহন করা হয়। এ ঘটনা দেখে প্রয়াত আজিুল হক গংর ওয়ারেশ রেজাউল হক গংরা গত ১২-৫-২১ খ্রীঃ তারিখে নি¤œ আদালত ও উচ্চ আদালতের সকল রায়ের কপি সংযুক্ত করে আপত্তি জানিয়ে বাস্তব অবস্থা সড়ক ও জনপথ বিভাগ ও জেলা প্রশাসককে অবহিত করেন। তারপরও রেজাউল হক গংদের কোন কথা কর্নপাত না করে একটি স্বার্থান্বেষী মহলের যোগসাজশে সওজ ইচ্ছে মাফিক কাজ করে চলেছে। কাজ বন্ধ না হওয়ায় রেজাউল হক গং গত ২-৬-২১ খ্রীঃ তারিখে কুষ্টিয়া সদর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে দেং ২৩৯/২১ খ্রীঃ তারিখে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আবেদন করেন। আদালত সওজ ও জেলা প্রশাসককে শোকজ করে ২ সপ্তাহের জন্য কাজ স্থগিতের নির্দেশ প্রদান করেন। এর পরও সওজ ওই স্বার্থান্বেষী মহলের ইশারায় অন্যপাশের জমি না নিয়ে রেজাউল হক গংদের পুরো জমির উপর দিয়েই ফোরলেনের সড়ক ও ড্রেনের কাজ করে চলেছে। এতে ১০ জানুয়ারী রেজাউল হক গংসহ জমির মালিক, এলাকাবাসী এই চরম অন্যায়ের প্রতিবাদ জানিয়ে বিসিক শিল্পনগরী সংলগ্ন এম, আর, এস ইন্ডাষ্ট্রির সামনে তাৎক্ষণিক এক মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করে। এ সময় কর্মরত জহুরুল এন্টার প্রাইজ ঠিকাদারের প্রতিনিধি ও সওজের ওয়ার্ক এ্যাসিষ্টেন্টকে সাংবাদিকরা জমির প্রকৃত বিষয় জানতে চাইলে তারা ক্যামেরায় কথা বলতে রাজী না হয়ে বলেন, তারা হুকুমের চাকর, তাদেরকে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ নির্দেশ দিয়েছেন তাই তারা সেটা পালন করছেন। এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপথ বিভাগের কুষ্টিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী শাকিরুল ইসলামের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আসলে জমির মালিক তারা কি ভাবে হলেন আমার জানা নেই। আর আদালত থেকে আমাকে কোন প্রকার অবহিত করা হয়নি। বর্তমানে কাজ বন্ধ আছে। আমরা থানায় অভিযোগ দিয়েছি। তবে এর বেশি তিনি কিছু বলতে রাজি হননি তিনি। জমির মালিক রেজাউল হক জানান, জগতি মৌজার ওই ৯৯ শতাংশ জমি তাদের পৈত্রিক সম্পদ। ওই জমি কুষ্টিয়া কৃষি ব্যাংকে মডগেজ রেখে ঋণ নিয়ে ব্যবসা করতেন পিতা। জমির মালিকানা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, একটি জমির মালিকানা সত্ব প্রমাণ করতে হলে তিনটি জিনিসের প্রয়োজন হয়। আমার পিতা সি এস মালিকের কাছ থেকে ওয়ারেশ সুত্রে প্রাপ্ত এস, এ মালিকের কাছ থেকে ক্রয় সুত্রে আর এস’র মালিক হন। এর পরও সদর সিনিয়র সহকারী জজ, জেলা ও দায়রা জজ এবং হাইকোর্ট থেকে আমাদের পক্ষে রায় ডিক্রি রয়েছে। আমার কষ্ট হচ্ছে। এত কিছু থাকার পরও কেন জোরপুর্বক আমার জমিটি কোন প্রকার অধিগ্রহন না করে দখল করার চেষ্টা করা হচ্ছে। তিনি কিছুটা ক্ষোভ নিয়ে বলেন, আমরাও থানায় আমাদের নিরাপত্তা চেয়ে অভিযোগ দিয়েছি, আদালতে বিচার চেয়েছি। কিন্তু সুচাতুর সওজ কর্তৃপক্ষ নিজেদের চাকরী বাঁচাতে আদালতে সময় ক্ষেপনের আবেদন দিয়ে বাস্তবে রাস্তার কাজ করে এলাকার শান্তিশৃংলা বিনষ্ট করছে। এ জন্য তারা আমার ছোট ভাই, চাচাতো ভাইসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে। একজন স্বাধীন দেশের নাগরিক হয়ে আমাদের পৈত্রিক সম্পত্তি রক্ষা ও তা ভোগ করার অধিকার হারিয়ে যেতে পারে না। এটা রাষ্ট্রের সকল নাগরিকের মত আমারও আছে। এ ব্যাপারে তিনি অভিজ্ঞ মহলের কাছে সু বিচার চেয়েছেন। এদিকে প্রকল্পের ব্যয় বন্টনে সড়ক জনপথ ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব তাওমীম আহমেদ সজল স্বাক্ষরিত প্রশাসনিক আদেশে দেখা যায়, কুষ্টিয়া-ঈশ^রদী মহাসড়কে ৫শ ৭৪ কোটি টাকা ব্যায়ে প্রকল্পে প্রচার ও বিজ্ঞাপন খাতে ৩ কোটি টাকা, ল্যাবট্রোরী পরীক্ষায় ৫ কোটি, ষ্টেশনারী ৪ কোটি ২০ লাখ, সম্মানী ৪ কোটি ২০ লাখ টাকা, উদ্ধোধনী খাতে ১৫ কোটি ও বৈদেশিক প্রশিক্ষণ খাতে ৫০ কোটি টাকা ব্যয় বরাদ্ধ ধরা হয়েছে। কিন্তু এ খানে কোথাও প্রকল্পের মুল ভিত্তি জমি অধিগ্রহনের জন্য টাকা বরাদ্ধ রাখা হয়নি। এ ব্যাপারে সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কাছে সঠিক তদন্ত পুর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন অভিজ্ঞমহল।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640