1. nannunews7@gmail.com : admin :
July 12, 2024, 2:16 pm
শিরোনাম :
ঢাকায় ছয় ঘণ্টায় ১৩০ মিলিমিটার বৃষ্টি সড়ক ডুবে বিকল যানবাহন, চরম ভোগান্তিতে নগরবাসী চালের দাম আরও বাড়লো সবজি আলু পেঁয়াজের বাজার অস্থির ন্যাটোর অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে যা বলল ইরান অরুণাচলে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের তোড়জোড় ভারতের, চীনের কড়া প্রতিক্রিয়া ফ্রান্সের বিখ্যাত ক্যাথেড্রালে আগুন ২০০০ বর্গফুটের বাড়ি কিনেছেন কৃডু ‘আলিবাগে বিনিয়োগের সেরা সময়’ গায়ে হলুদে বাঙালির হাতে ট্রেন্ডি সাজে রাধিকা কোপা আমেরিকার ফাইনালের মঞ্চ মাতাবেন শাকিরা খোকসায় উপজেলা ছাত্র কল্যাণ পরিষদ মেধাবী শিক্ষার্থী মারিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান পৌরসভার নির্যাতনের প্রতিবাদে  কুমারখালীর যদুবয়রা ইউনিয়নের  ৩’শ ভ্যান চালককে ফ্রি লাইসেন্স প্রদান

কুমারখালী শিলাইদহে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত ৬

  • প্রকাশিত সময় Thursday, December 23, 2021
  • 111 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে নৌকা ও স্বতন্ত্র  প্রার্থীর সমথর্কদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া, সংঘর্ষ, স্বতন্ত্র প্রার্থীর অফিস ও নৌকা প্রার্থীর সমর্থকদের বেশ কিছু মোটরসাইকেল ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বুধবার রাত ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ছয়জন আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রাইসুল ইসলাম, তাঁর বাবা আব্দুল করিম ও মা হাসিনা খাতুন এবং নৌকা প্রার্থীর ভাটার ম্যানেজার ওবাইদুর রহমান, মাসুদ ও শান্ত। আহতরা কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।  বৃহস্পতিবার সকালে শিলাইদহ ইউনিয়নের মির্জাপুর, বেলঘরিয়া, আড়াপাড়া ও নাউতি পূর্বপাড়া এলাকা ঘুরে জানা গেছে, গতকাল রাত ৯টার দিকে মির্জাপুর বাজারে স্বতন্ত্র প্রার্থী গাজী হাসান তারেক বিপ্লবের সমর্থকেরা একটি মিছিল বের করেন। এ সময় নৌকার প্রার্থী সালাউদ্দিন খান তারেকের সমর্থকেরা ১৫ থেকে ২০টি মোটরসাইকেল নিয়ে মিছিল করেন। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে বাক বিতন্ডা হয়। এরপর রাত সাড়ে ১২টার দিকে নৌকার ৬০ থেকে ৭০ জন সমর্থক উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রাইসুল ইসলামের বাড়িতে ও মির্জাপুর বাজারের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর অফিসে হামলা চালায়। এ সময় রাইসুল ও তাঁর পরিবারের লোকজন চিৎকার-চেঁচামেচি শুনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকেরা ছুটে এলে দুই গ্রুপে সংঘর্ষ হয়। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ছয়জন আহত হন। অন্যদিকে, মির্জাপুর বাজার এলাকায় দুই গ্রুপের সংঘর্ষের খবর ছড়িয়ে পড়লে উভয় পক্ষ নিজ নিজ এলাকার মির্জাপুর, বেলঘুড়িয়া, আড়াপাড়া ও নাউতি পূর্বপাড়া জামে মসজিদে ঘোষণা দেয়, তাদের প্রার্থী মির্জাপুর এলাকায় আটকা পড়েছেন। যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে বেরিয়ে পড়েন। এই প্রচার শুনে গ্রামবাসী রাস্তায় বেরিয়ে পড়ে এবং উভয় পক্ষ মুখোমুখি হয়। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে আড়পাড়া পূর্বপাড়া জামে মসজিদ এলাকার লোকজন বলেন, ‘রাত ১টার দিকে হঠাৎ মসজিদের মাইকে শোনা যায়, একটি কুচক্রী মহল আমাদের চেয়ারম্যান গাজী হাসান তারেক বিপ্লবের বাড়িতে হামলা করতে আসছে। আপনারা সবাই যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে চেয়ারম্যানের বাড়িতে অবস্থান করেন।’  বেলঘরিয়া দক্ষিণপাড়া জামে মসজিদ এলাকার বাসিন্দারা জানান, রাত ১টার দিকে মসজিদের মাইকে শোনা যায় আমাদের চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন খান তারেকের বাড়িতে একটি কুচক্রী মহল হামলা করতে আসছে। যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে বেরিয়ে পড়েন। উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রাইসুল ইসলাম বলেন, ‘নৌকার প্রার্থী ও তাঁর প্রায় ৬০ থেকে ৭০ জন এবং পুলিশ আমার বাড়িতে হামলা চালায়। মূলত আমাকে তুলে নেওয়ার জন্য এসেছিল। পরে আমার লোকজন চলে এলে সংঘর্ষ হয়। এতে আমি, আমার বাবা ও মা এবং ওবাই নামের একজন আহত হই।’ এ বিষয়ে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী গাজী হাসান তারেক বিপ্লব বলেন, ‘নৌকার প্রার্থী উপস্থিত থেকে পুলিশের সহযোগিতায় আমার অফিস ও কর্মী রাইসুলের ওপর হামলা করেছে। প্রশাসন পক্ষপাতিত্ব করছে। আমি নিরপেক্ষ নির্বাচন নিয়ে শঙ্কিত। এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করা হবে।’ নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী ও ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন খান তারেক বলেন, ‘রাতে আমার কর্মীরা ভোট চাইতে গিয়েছিল। স্বতন্ত্র প্রার্থী ও সাবেক ছাত্রলীগের সভাপতি আমার লোকদের ওপর হামলা চালায়। এতে মাসুদ ও ওবাই নামের দুজন আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন। এ ছাড়া বেশ কিছু মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়।’ চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘ঘটনা ঘটার আগে বা পরে সেখানে আমি যাইনি। খবর পেয়ে প্রশাসনকে অবিহিত করি। পরে প্রশাসন ছাত্রলীগ সভাপতির বাড়ি থেকে আহতদের উদ্ধার করে।’  কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ‘পুলিশের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যা। পুলিশ অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন উপহার দিতে নিরপেক্ষ ভূমিকায় আছে। রাতে খবর পেয়ে পুলিশ পরিবেশ শান্ত করেছে। এ ঘটনায় কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ উপজেলা রিটার্নিং ও নির্বাচন কর্মকর্তা শিরিনা আক্তার বানু বলেন, পুলিশের বিরুদ্ধে তথ্য-প্রমাণসহ কোনো অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640