1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 4:26 pm

‘হাসপাতালের রান্না ঘর থেকে চলে যায় দুধ, ডিম, ব্যাগ ভর্তি কাঁচা মাংস’

  • প্রকাশিত সময় Saturday, August 7, 2021
  • 83 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের রান্না ঘর থেকে দুধ ও মাংস চুরি হওয়ার সংবাদ গতকাল পত্রিকায় প্রকাশিত হলে  কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায় ডাঃ আব্দুল মোমেন এই ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তির জন্য আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার আশরাফুল আলমকে প্রধান করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। জানা যায়, হাসপাতালের ওয়ার্ড মাষ্টার শরীফ উদ্দিনের নির্দেশে গত শুক্রবার হাসপাতালের সিকিউরিটি গার্ড স্বাধীন উদ্দিন রিক্সা নিয়ে এসে দেড় বস্তা চাল হাসপাতালের রান্না ঘর থেকে নিয়ে যায় এই তথ্য দেন হাসপাতালের রান্না ঘরের কর্মচরী আলতাফ। আলতাফ আরও বলেন, ওয়ার্ড মাষ্টার শরীফ উদ্দিনের নির্দেশে দীর্ঘদিন এই হাসপাতালের রান্না ঘর থেকে দুধ, ডিম, মাংসসহ নানা খাবার বাহিরে চলে যায়। কোথায় যায়, আমি জানিনা।

একটি সূত্র জানায়, হাসপাতালের তত্ত্বাবধায় ডাঃ আব্দুল মোমেনের সামনে সিকিউরিটি গার্ড স্বাধীন ও রান্না ঘরের কর্মচারী আলতাফ স্বীকার করেন ওয়ার্ড মাষ্টার শরীফ উদ্দিনের নির্দেশে এই দেড় বস্তা চাউলসহ অন্যান্য মালামাল নিয়ে যাওয়া হয়। এ ব্যাপারে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ আব্দুল মোমেনের সাথে কথা বললে, তিনি বলেন, এই চুরির ঘটনার সাথে জড়িতদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। এ ব্যাপারে ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। এদিকে একটি সূত্র জানায়, ওয়ার্ড মাষ্টার শরীফ উদ্দিন দীর্ঘ ১৫ বছর এই কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চাকুরী করছেন। এই কারণেই তার সবকিছু ম্যানেজ করতে কষ্ট হয় না। উল্লেখ্য, গত শুক্রবার আনুমানিক দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের অস্থায়ী নিযোগপ্রাপ্ত আয়া শাহানারা হাসপাতালের রান্না ঘর থেকে জ্বালানো ৫ লিটার দুধ ও প্রায় সাড়ে ৫কেজি মুরগির মাংস চুরি করে পালানোর সময় হাসপাতালের সাইকেল স্ট্যান্ড থেকে লোকজন তাকে জেরা করলে লাল বালতিতে থাকা জ্বালানো ৫ লিটার দুধ ফেলে দিয়ে মাংসের ব্যাগ নিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় চুরিকৃত দুধ হাসপাতালে খাবার সরবরাহকারী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বরত মিজানুর রহমানের নিকট ফেরৎ দেয় স্থানীয় জনতা। এ ব্যাপারে মিজানুর রহমানের সাথে মুঠো ফোনে কথা বললে তিনি জানান, আমি নামাজে ছিলাম। নামাজ শেষে ফিরে আসলে যারা এই লাল বালতি ভর্তি জ্বালানো ৫ লিটার দুধ উদ্ধার করে তারা আমাকে ফেরৎ দেয় এবং জানায়, আয়া শাহানারা ব্যাগে মাংস ও হাতে বালতি ভর্তি দুধ নিয়ে পালানোর সময় হাতেনাতে আটক করলে শাহানারা পালিয়ে যায়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640