1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 28, 2024, 9:16 am

কুষ্টিয়া জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক’র বিরুদ্ধে অসহায় মহিলাদের ৪২টি মেশিন ও ৬০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ !

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, August 4, 2021
  • 209 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়া জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌসের বিরুদ্ধে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছার জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া কুষ্টিয়া জেলায় ৪২ জন অসহায়, অস্বচ্ছল মহিলার জন্য সেলাই মেশিন এবং ৩০ জনকে জনপ্রতি ২ হাজার করে নগদ ৬০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।

সুত্রে জানা যায়, ৮ আগষ্ট বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছার জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে সারাদেশের অসহায়, দুস্থ্য, পিছিয়ে পড়া নারীদের জন্য মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক সেলাই মেশিন ও নগদ টাকা বিতরণের জন্য গত ২৮ জুন ৫৬৪ নম্বর স্বারকে কুষ্টিয়া জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের কাছে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সংসদ সদস্য, উপজেলা চেয়ারম্যানসহ জনপ্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা স্বাপেক্ষে তালিকা প্রস্তুত করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে প্রেরণের জন্য একটি পত্র প্রেরণ করা হয়। পত্র প্রাপ্তির পর বিধি অনুযায়ী প্রশাসন, সকল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সংসদ সদস্য, জনপ্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা করে উপজেলা ভিত্তিক বিভাজন করে একটি সঠিক তালিকা প্রস্তুত করবে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর। কিন্তু জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌস উক্ত চিঠিটি গোপনে রেখে কাউকে কিছু না জানিয়ে, নিজের ইচ্ছেমত একটি কাগজে উপজেলা বিভাজন করে গোপনে তালিকা প্রস্তুুত করে নিজের কাছেই বিভাজন পত্রটি রেখে দিয়েছেন। এ ব্যাপারে উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিপ্তরের প্রোগ্রাম অফিসার মর্জিনা খাতুন জানান, এ ব্যাপারে উপ-পরিচালক আমাদের সাথে কোন আলাপ-আলোচনা না করেই সব কিছু গোপনে রেখেছেন। যখন বিভাজন পত্রটি ফাঁস হয়ে যায় তখন তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা চেয়ারম্যান সাহেবের কাছে নাম চেয়েছেন। এর পর বিষয়টি দৃষ্টিতে আসে। এর আগে তিনি কবে, কোথায়, কিভাবে তালিকা প্রস্তুত করেছেন সে বিষয়ে অফিসের কারোর সাথে আলাপ-আলোচনা করেননি বলে তিনি জানান। মঙ্গলবার বিষয়টি ব্যাপক আলোচনায় আসলে উপজেলা ভিত্তিক প্রস্তুতকৃত তালিকাটি গতকাল মুঠোফোনে উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌসের কাছে চাওয়া হলে, কখনও বলছেন তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে প্রেরণ করেছেন, তার কাছে পাওয়া যাবে বলে বলছেন, আবার কখনও তার অফিসে এসে নিতে বলছেন, এ রকম নানা টালবাহানার কথা বলছেন, এর পরে বেশ কয়েকবার তার মুঠোফোনে কল দেয়া হলে তিনি রিসিভ করেননি। এ ব্যাপারে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাধন কুমার বিশ^াস জানান, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছার জন্মবার্ষিকী উদযাপন আমাদের জন্য একটা খুশীর খবর। প্রধানমন্ত্রী এ জন্য দুস্থ্য, অসহায়, অস্বচ্ছল মহিলাদের জন্য সেলাই মেশিন, নগদ টাকা বরাদ্ধ দিয়েছেন। এটা সঠিক ভাবে বিতরণে এক ধরণের আলাদা অনুভুতি, গর্ব কাজ করে। এটা নিয়ে কোন ধরণের অবহেলা, অনিয়ম করার প্রয়াসইতো কারো ভেতরে কাজ করার কথা নয়। উপ-পরিচালকের তালিকা প্রেরণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তিনি আমার কাছে কোন তালিকা দেন নাই, আমি এসব বিষয়ে কোন কিছুই জানি না,।

সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা জানান, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছার জন্মদিন আমাদের জন্য গর্বের, আনন্দের। বঙ্গমাতার এই জন্মদিনে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া অসহায়, পিছিয়ে পড়া, অস্বচ্ছল মহিলাদের মাঝে সেলাই মেশিন, নগদ টাকা বিতরণ কর্মসুচীতে অংশ নেয়া ভাগ্যের ব্যাপার। আগামী ৮ আগষ্ট অনেক প্রস্তুতি রেখেছিলাম। কিন্তু যখন জানলাম বরাদ্ধকৃত ৪২টি সেলাই মেশিন, নগদ টাকা উপ-পরিচালক নিজেই ভাগ করেছেন, এ বিষয়ে আমার বা সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি সাহেবের সাথে কোন প্রকার আলোচনাও করেননি। তখন আমি অত্যান্ত মর্মাহত হয়েছি। তিনি কিছুটা ক্ষোভের সাথে বলেন, প্রকৃত অর্থে তিনি কোথায়, কাকে সেলাই মেশিন, নগদ টাকা বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছেন, আমাদের জানা নেই। আদৌও সেগুলো আছে কিনা আমার সন্দেহ আছে। বিষয়টা খুব গুরুত্ব দিয়ে খতিয়ে দেখা হবে বলে তিনি জানান।

একটি দায়িত্বশীল সুত্রে জানা গেছে, প্রকৃতপক্ষে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছার জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বরাদ্ধকৃত ৪২টি সেলাই মেশিন, নগদ টাকা বিতরণের কোন তালিকা পাওয়া যাচ্ছে না। সুত্রটি বলছে, প্রকৃতপক্ষে উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌস কোন তালিকা প্রস্তুত না করেই তা সব আত্মসাত করেছেন।  এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করা যাচ্ছে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640