1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 27, 2024, 5:35 pm

কুষ্টিয়ার প্রত্যন্ত এলাকায় জ্বরে অবহেলা, শ্বাসকষ্ট বাড়লে হাসপাতালে ছুটছেন মানুষ

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, July 13, 2021
  • 114 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক কুষ্টিয়ায় করোনা হাসপাতালে বেশির ভাগ রোগী অধিক শ্বাসকষ্ট নিয়ে ভর্তি হচ্ছেন। থেকে ১০ দিন আগে এসব মানুষ সর্দিজ্বরে আক্রান্ত হলেও শুরুতে গুরুত্ব দিচ্ছেন না। ফলে রোগীর মৃত্যুহার বেড়ে যাচ্ছে। কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন কার্যালয় কুষ্টিয়ার করোনা ডেডিকেটেড ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল থেকে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে এমন চিত্র পাওয়া গেছে। সিভিল সার্জন কার্যালয় করোনা হাসপাতাল থেকে পাওয়া তথ্য ঘেঁটে দেখা গেছে, ১২ জুলাই পর্যন্ত জেলায় করোনায় ৩৫০ জন মারা গেছেন। তাঁদের মধ্যে গত ২৮ জুন থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত ১৫ দিনে ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ১৪০ করোনা রোগী মারা যান। সময়ে জেলায় মারা যান ১৬১ জন। অর্থ্যা মোট মৃত্যুর ৮৭ শতাংশ মারা যান হাসপাতালে। করোনা হাসপাতাল বাদে বাকি ২১ জন জেলার বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স বাড়িতে মারা যান। করোনা হাসপাতালে ১৫ দিনে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ১৪০ রোগীর মধ্যে ৯০ জনের ভর্তির সময় অক্সিজেন স্যাচুরেশন (মাত্রা) ছিল ৮০এর নিচে। সর্বনিম্ন ৩৫ পাওয়া গেছে। এই রোগীদের কোনোভাবেই বাঁচানো সম্ভব হয়নি। রাতের বেলায় মারা গেছেন অন্তত ৪০ রোগী। হাসপাতালে প্রতিদিন মারা যাওয়া ব্যক্তিদের তথ্য খতিয়ে দেখতে ডেথ রিভিউ বোর্ড ডেথ অডিট কমিটি রয়েছে। সাত সদস্যের কমিটির সভাপতি হলেন হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের জুনিয়র কনসালট্যান্ট রেজাউল ইসলাম। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন চিকিৎসক কাজী নাজমুল হক, মো. আবদুল্লাহ, ইফতেখার হোসেন খান এবং নার্স রতনা খাতুন, জান্নাতুন নাহার দিপ্তী তালুকদার। ডেথ রিভিউ বোর্ড ডেথ অডিট কমিটির সদস্যরা বলছেন, কুষ্টিয়ায় গ্রামের ঘরে ঘরে করোনা পৌঁছে গেছে। কিন্তু গ্রামের বাসিন্দারা অসচেতন বেশি। যেসব মানুষ ভর্তি হতে আসছেন, তাঁদের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, প্রায় সব রোগীই হাসপাতালে আসার অন্তত থেকে দিন আগে জ্বর, ঠান্ডাকাশিতে আক্রান্ত হন। দুএক দিনে এসব সেরে গেলেও তাঁরা নমুনা দিয়ে করোনা পরীক্ষা করান না। স্বাভাবিক জ্বরঠান্ডা ভেবে চিকিৎসা নেন। কিন্তু সাত থেকে আট দিনের বেলায় তাঁদের শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে দ্রুত হাসপাতালে আসেন। ডেথ রিভিউ বোর্ড ডেথ অডিট কমিটির সভাপতি রেজাউল ইসলাম বলেন, ‘করোনার উপসর্গ দেখা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে যদি নমুনা নিয়ে চিকিৎসা করাতেন, তাহলে হয়তো সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকত।তিনি জানান, গত ১৫ দিনে যাঁরা মারা গেছেন, তাঁদের ৯৯ শতাংশ রোগীর করোনা টিকা নেওয়া ছিল না। ছাড়া অধিকাংশ রোগী কিডনি, হার্ট, ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত ছিলেন। করোনা হাসপাতালে দায়িত্বরত চিকিৎসক আক্রামুজ্জামান মিন্টু বলেন, কয়েক দিন ধরে কুষ্টিয়ায় রোগী শনাক্ত মৃত্যের হার স্থিতি পর্যায়ে আছে। বিধিনিষেধ শিথিল হওয়ার পর আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লে ধরে নিতে হবে বিধিনিষেধই ভালো ছিল। আর তা না হলে বিধিনিষেধ হার কমানোয় কোনো প্রভাব ফেলেনি। তবে এখনো বলার সময় আসেনি, কুষ্টিয়ায় করোনার দাপট কবে নাগাদ কমতে পারে। জুলাই দুপুরে হাসপাতালের ডেথ রিভিউ বোর্ড ডেথ অডিট কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় রোগী মৃত্যুর কারণ প্রতিরোধ বিষয়ে পর্যালোচনা করে মৃত্যুর হার হ্রাস করার জন্য তিনটি সুপারিশ করা হয়। সুপারিশে উল্লেখ করা হয়, সংকটাপন্ন রোগীদের জন্য আইসিইউ শয্যাসংখ্যা বৃদ্ধি, পৃথক এইচডিইউ ইউনিট স্থাপন, অক্সিজেন সরবরাহ বাড়ানো এবং চিকিৎসক, নার্সসহ তৃতীয় চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী বাড়ানোর কথা বলা হয়। হাসপাতাল সূত্র বলছে, অক্সিজেন সরবরাহ ঠিক রয়েছে। মঙ্গলবার থেকে বেশ কিছু অতিরিক্ত চিকিৎসক নার্স করোনা ওয়ার্ডে দায়িত্ব পালনের জন্য নিয়োজিত হয়েছেন। আইসিইউ বেড এইচডিইউ সাপোর্ট দিতে পূর্ণাঙ্গ সরঞ্জাম নেই। এখানে শুধু ১৫০ জায়গায় সেন্ট্রাল অক্সিজেন ৩০টি হাই ফ্লো নাজাল ক্যানুলা সাপোর্ট রয়েছে। এক মাস ধরে হাসপাতালে গড়ে প্রতিদিন ২৮০এর বেশি রোগী ভর্তি থাকেন। এত রোগীর বিপরীতে তিন শিফটে চিকিৎসক যথাক্রমে সকালে চারজন, বিকেলে রাতে তিনজন করে দায়িত্ব পালন করেন। একই সময়ে ওয়ার্ডে (এক ওয়ার্ডে অন্তত ৬০ জন রোগী) সকালে জন, বিকেলে রাতে জন করে নার্স দায়িত্ব পালন করেন। গতকাল থেকে সকালে দুজন, বিকেলে রাতে আরও একজন করে চিকিৎসক এবং একজন করে নার্স বাড়ানো হয়েছে। এতে চাপ কিছুটা কমবে। হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আবদুল মোমেন বলছেন, হাসপাতালে পর্যাপ্ত অক্সিজেন সিলিন্ডারসহ সবকিছু ভালো আছে। চিকিৎসক নার্স নতুন সংযুক্ত করা হয়েছে। তদারকি আরও বাড়ানো হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640