1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 16, 2024, 7:59 am

কুষ্টিয়া জিলা স্কুলের সাবেক প্রধান শিক্ষক হাবিবুর রহমান স্যার আর নেই

  • প্রকাশিত সময় Thursday, July 8, 2021
  • 112 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়া জিলা স্কুলের সফল প্রধান শিক্ষক, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ মোঃ হাবিবুর রহমান স্যার আর নেই। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোরে কুষ্টিয়া শহরের হাউজিং নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না—–রাজেউন) মৃত্ব্যকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। গতকাল বাদ আছর কুষ্টিয়া পৌর গোরস্থানে মরহুমের নামাজে জানাযা শেষে তার দাফন সম্পন্ন হয়। তিনি পুত্র, কন্যা, নাতি,নাতনিসহ অসংখ্য ছাত্র, ছাত্রী, শুভাকাংখী, গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তাঁর মৃত্ব্যতে কুষ্টিয়া জিলা স্কুলের ব্যাচ ৮৫, ৮৮, ৮৯সহ জিলা স্কুলে অধ্যায়নরত বিভিন্œ বন্ধু সংগঠনসহ সাংস্কৃতিক, সামাজিক সংগঠন পৃথক পৃথক ভাবে শোক জানিয়েছেন। প্রধান শিক্ষক হাবিবুর রহমান ছিলেন একজন সু-শিক্ষিত শিক্ষকের মডেল। অভিজ্ঞ, প্রাজ্ঞ, ছাত্র, ছাত্রী বান্ধব, দক্ষ প্রশাসক, পরিশ্রমী, সৎ, নির্ভিক শিক্ষক। যা এখনকার শিক্ষাঙ্গনে এমন শিক্ষককে আতসি কাঁচ দিয়ে খুঁজেও হয়তো পাওয়া যাবে না।

তার বর্ণাঢ্য জীবন সম্পর্কে জানা যায়, মোঃ হাবিবুর রহমান।  পিতা মরহুম মাওলানা মোহাম্মদ হোসেন। মাতাঃ মরহুমা আন্জুমেন নেছা।  জন্মঃ ১৭ ই এপ্রিল ১৯৩৮  প্রাথমিক শিক্ষাঃ দঁক জুনিয়ার মাদ্রাসা  পোস্টঃ বন্দিপুর, থানাঃ হরিনারায়ণপুর  জেলাঃ হুগলি পশ্চিমবঙ্গ। ১৯৪৮ সালে পশ্চিমবঙ্গ মাদ্রাসা বোড থেকে ৬ ষষ্ঠ শ্রেণীতে পাশ করেন।

মাধ্যমিক শিক্ষাঃ নোয়াখালী জিলা স্কুল, নোয়ান্নই হাই স্কুল, নোয়াখালী ও পাবনা জিলা স্কুল। ১৯৫৩ সালে ঢাকা মাধ্যমিক শিক্ষা বোড থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করেন।

উচ্চ শিক্ষাঃ পাবনা এডওয়ার্ড কলেজ থেকে আই-এ ও বি-এ যথাক্রমে ১৯৫৮ সনে পাশ করেন। বি-এড ডিগ্রি লাভ করেন ১৯৬৫ সালে রাজশাহী টি.টি. কলেজ থেকে। কর্মজীবনে বিভিন্ন বিষয়ে শর্টকোর্স ট্রেনিং গ্রহণ করেন। যথা – বাংলা, ইংলিশ টেস্টিং এন্ড ইভালুয়েশন, প্রশাসন ইত্যাদি।

১৯৫৮ ও ১৯৫৯ সালে প্রধান শিক্ষক পদে চুয়াডাঙ্গা জেলার নাজুদহ হাইস্কুল, মেহেরপুর জেলার যাদুখালী হাইস্কুল, কলাবাড়ী রামনগর হাই স্কুলে, সিনিয়র সহকারী শিক্ষক পদে মেমনগর বিডি হাইস্কুল, দর্শনায় ( চুয়াডাঙ্গা) কর্মরত ছিলেন। ১৯৬০-১৯৭৩ সালে পর্যন্ত চুয়াডাঙ্গা ভিজে হাই স্কুলের সহকারী শিক্ষক ও ভারপ্রাপ্ত সহকারী প্রধান শিক্ষক পদে কর্মরত ছিলেন। ১৯৭৪ সালে পদোন্নতি পেয়ে মেহেরপুর (বালক) সরকারী স্কুলে যোগাযোগ করেন। এই বিদ্যালয়ে ২ বৎসর ছয় মাস ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক পদেও দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮০ সালে প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নতি পেয়ে বাগেরহাট সরকারর ( বালক) স্কুলে যোগদান করেন। ১৯৮১ সালে ৯ মে কুষ্টিয়া জিলা স্কুলে ১৩ নম্বর প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন এবং ১৫ জুলাই ১৯৯০ সাল পর্যন্ত কর্মরত ছিলেন। এই সময়কালে বৃহত্তর কুষ্টিয়ার জেলা শিক্ষা অফিসার ও কুষ্টিয়া বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদে, দীর্ঘদিন অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করেছেন। জেলা স্কুলে কর্মজীবনে কুষ্টিয়া জিলা স্কুল জাতীয় পর্যায়ে বৃহত্তর কুষ্টিয়ার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে গোল্ডকাপ পুরস্কার প্রাপ্ত হয়। এছাড়াও ১৯৮১-১৯৯০ সাল পর্যন্ত আর-ও দুইবার কুষ্টিয়া জিলা স্কুল কুষ্টিয়ার মধ্যে শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হয়ে পায়। শিক্ষক স্বল্পতা থাকা সত্বেও শিক্ষক শিক্ষিকাদের ঐকান্তিক দলীয় প্রচেষ্টার ফলে এই অর্জন সম্ভব হয়।

সাংস্কৃতিক ক্রীড়া বিএনসিসি স্কাউটিংয়েও এ যথেষ্ঠ সুনাম ছিল। জাতীয় পর্যায়ে নাটকে দুইবার ও বিতর্ক প্রতিযোগিতায় ১ম স্থান অর্জন করেন। এক্ষেত্রে শিক্ষক মরহুম বান্দা হাদী, মরহুম নুরুল হক, মরহুম সেলিনা, মোঃ আশরাফ আলী, মৃত মলিন কুমার সাহা স্যারের অবদান প্রশংসনীয়।

কুষ্টিয়া জিলা স্কুলে প্রধান শিক্ষক পদে কর্মরত থাকাকালীন যশোর শিক্ষা বোর্ডের মাধ্যমিক পরীক্ষার ইংরেজি বিষয়ের প্রধান শিক্ষক এবং যশোর শিক্ষা বোর্ড ব্যতিত বাংলাদেশের অন্যান্য শিক্ষা বোর্ডের ইংরেজি বিষয়ের পেপার সেটার ও মর্ডারেটরের দায়িত্ব পালন করেন।

জেলা শিক্ষা অফিসার কুষ্টিয়ার ১৬-৭-১৯৯০ ও ১৩-০৭-১৯৯৪ পর্যন্ত কর্মরত ছিলেন। পদোন্নতি পেয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা খুলনা অঞ্চল খুলনার বিদ্যালয় পরিদর্শক পদে ১৭-০৪-১৯৯৪ তারিখে যোগদান করেন। চাকুরি থেকে অবসর গ্রহনের পূর্বে ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষার দায়িত্ব পালন করেন। জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ খুলনা বিভাগ সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন করেন এবং ১৫-০৪-১৯৯৬ তারিখে কর্মজীবন থেকে অবসর গ্রহন করেন। তাঁর বিদায় অনুষ্ঠানে কুষ্টিয়া জিলা স্কুল ও কুষ্টিয়া সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকা ও অন্যান্য কর্মচারীদের পক্ষ থেকে কুষ্টিয়া জিলা স্কুলের শিক্ষক মরহুম শওকত আলী স্যার প্রতিনিধিত্ব করেন।

পরিশেষে ছাত্র-ছাত্রী অভিভাবক অভিভাবিকা সুধীজন এমনকি বৃহত্তর কুষ্টিয়াবাসীর অধিকাংশ জনসাধারণ হেড স্যার, হাবিব স্যার, হেডমাস্টার জেলা স্কুল নামেই চিনেন, বিভাগীয় কর্মকর্তা হিসেবে চিনেন না। এটাই ছিল স্যারের বড় প্রাপ্তি, এটাই ছিল স্যারের গর্ব।

তিনি দীর্ঘদিন যাবত তাঁর শহরের হ্উাজিং এলাকায় নিজ বাড়ীতে বাধ্যর্কজনিত কারণে নানা সমস্যায় ভুগছিলেন। অবশেষে গতকাল ভোরে বার্ধক্যজনিত কারণে নিজ বাসভবনে সকলকে ছেড়ে এই প্রিয় পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেন। গতকাল বাদ আসর কুষ্টিয়া পৌর গোরস্থানে মরহুমের জানাযা শেষে তাকে দাফন করা হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640