1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 19, 2024, 4:42 am
শিরোনাম :
কুষ্টিয়া লালন বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি বাল্য বিয়ের নির্মম বলি কুষ্টিয়ার মিরপুরে নববধুর ঝুলন্ত লাশ হত্যা করে ঝুলিয়ে দেয়ার অভিযোগ পরিবারের মিরপুরের সাগরখালী আদর্শ ডিগ্রী কলেজ জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০২৪ কুষ্টিয়া জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত কুষ্টিয়ার দৌলতপুর র‌্যাবের অভিযানে ২০ বোতল ফেনসিডিলসহ একজন মাদক কারবারি আটক পবিত্র ঈদুল আজহা কাল পরিত্যক্ত হলো ‘গুরুত্বহীন’ ভারত-কানাডা ম্যাচ আমরা আক্রান্ত হলে ছেড়ে দেবো না সেন্টমার্টিন নিয়ে ওবায়দুল কাদের পদ্মা সেতুতে একদিনে ৫ কোটি টাকা টোল আদায় সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রী গাজার ত্রাণবহরে হামলা: ইসরায়েলি সংগঠনের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা

সোমবার থেকে কঠোর লকডাউন

  • প্রকাশিত সময় Friday, June 25, 2021
  • 103 বার পড়া হয়েছে

ঢাকা অফিস ॥ করোনাভাইরাসের সংক্রমণরোধে আগামী সোমবার থেকে সারাদেশে কঠোর লকডাউন পালন করা হবে। এ সময় সব ধরনের সরকারী-বেসরকারী অফিস বন্ধ থাকবে। জরুরী পণ্যবাহী ছাড়া সব ধরনের গাড়ি ও যান চলাচলও বন্ধ থাকবে। শুধু এ্যাম্বুলেন্স ও চিকিৎসা সংক্রান্ত কাজে যানবাহন চলাচল করতে পারবে। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কেউ যাতে ঘরের বাইরে বের না হতে পারেন সেজন্য কঠোর লকডাউন পালন করা হবে। নিত্যপণ্যের দাম স্থিতিশীল রাখতে জরুরী পণ্যবাহী ছাড়া সব ধরনের গাড়ি চলাচলও বন্ধ থাকবে। শুধু এ্যাম্বুলেন্স ও চিকিৎসা সংক্রান্ত কাজে যানবাহন চলাচল করতে পারবে।
এ সময় জরুরী পরিষেবা ছাড়া সব সরকারী-বেসরকারী অফিস বন্ধ থাকবে। শুক্রবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সরকারের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা সুরথ কুমার সরকার। এছাড়া করোনাভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে আনতে সরকার সোমবার থেকে সারাদেশে যে ‘কঠোর লকডাউন’ জারির ঘোষণা দিয়েছে, তার বাস্তবায়নে পুলিশ ও বিজিবির পাশাপাশি সেনাবাহিনীও মাঠে থাকবে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। তিনি বলেন, সোমবার থেকে ৭ দিন এ কঠোর লকডাউন চলবে। এরপর প্রয়োজন মনে করলে বিধিনিষেধের মেয়াদ আরও বৃদ্ধি করা হবে। এবারের লকডাউনের মধ্যে জরুরী কারণ ছাড়া কেউ বাড়ির বাইরে যেতে পারবে না জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, মানুষ যাতে বিধিনিষেধ মানে, সেজন্য কাজ করবে পুলিশ, বিজিবি ও সেনাবাহিনী। বিধিনিষেধের মধ্যে সকল সরকারী ও বেসরকারী অফিস বন্ধ থাকবে। তবে বাজেটের কাজে সহযোগিতার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যাংক শাখা, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডসহ কয়েকটি অফিস আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত খোলা থাকবে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী। তিনি জানান, এসময় জরুরী পরিষেবা ছাড়া সব সরকারী- বেসরকারী অফিস বন্ধ থাকবে।
এছাড়া এ সংক্রান্ত সরকারের এক তথ্য বিবরণীতে আরও বলা হয়, ২৮ জুন সোমবার থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত সারাদেশে কঠোর লকডাউন পালন করা হবে। এ প্রসঙ্গে তথ্য অধিদফতরের দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা বলেন, সোমবার থেকে প্রথম পর্যায়ে সাত দিনের জন্য এই লকডাউন দেয়া হচ্ছে। তবে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হলে লকডাউনের মেয়াদ আরও বাড়ানো হতে পারে। গণমাধ্যম এই বিধিনিষেধের আওতামুক্ত থাকবে বলে তথ্য বিবরণীতে জানানো হয়েছে। তথ্য বিবরণীতে আরও বলা হয়, কঠোর লকডাউনের বিষয়ে আরও বিস্তারিত তুলে ধরে আজ শনিবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।
শুক্রবার দেশে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১০৮ জনের মৃত্যুর ঘটনায় এই লকডাউনের দাবি আরও জোরালো হয়ে উঠেছে। ঈদ-উল-আজহাকে সামনে রেখে আবারও মানুষের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। যে যার মতো নিজস্ব উপায়ে ছুটছে বাড়ির দিকে। এর আগে গত বৃহস্পতিবার কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়া এবং লোকজনের জীবনের ক্ষতি প্রতিরোধে সারাদেশকে ১৪ দিনের লকডাউনের পরামর্শ দেয়। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন সাংবাদিকদের বলেছেন, পরামর্শক কমিটির প্রস্তাব যুক্তিযুক্ত। সরকার এই পরামর্শ মেনে করোনা রুখতে যে কোন সময় লকডাউনের কর্মসূচী ঘোষণা করতে পারে। এই ধরনের প্রস্তুতি সরকারের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে।
বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের তিনটি ধরনের প্রভাবে চরম আকার ধারণ করতে যাচ্ছে পরিস্থিতি। ধরন তিনটি হলো- আলফা, বিটা ও ডেল্টা। বর্তমানে ডেল্টার প্রকোপ বেশি হওয়ায় সংক্রমণের হারও বেড়েছে। শুক্রবার সারাদেশে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১০৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। দিনটিতে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ৫ হাজার ৮৬৯। নমুনা সংগ্রহের বিপরীতে করোনা শনাক্তের হার ২১ দশমিক ৯৩ শতাংশ। তাই উদ্ভূত পরিস্থিতিতে লকডাউনের বিকল্প ছাড়া আর কোন উপায় নেই। এবারের লকডাউনে জরুরী সেবা ছাড়া যানবাহন, অফিস-আদালত, সব কিছু বন্ধ রাখার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। স্বাস্থ্য বিষয়ক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ সহিদুল্লার পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সারাদেশে বিধিনিষেধ চলছে, যা ১৫ জুলাই পর্যন্ত চলার কথা রয়েছে। এছাড়া করোনার বিস্তাররোধে ঢাকার আশপাশের সাতটি জেলায় কঠোর বিধিনিষেধ দিয়ে রাজধানী ঢাকাকে বিচ্ছিন্ন করার চেষ্টা চলছে। এতে বলা হয়েছে, ভারতের মতো দেশে টানা লকডাউনের মতো কর্মসূচী করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে কাজে এসেছে। এছাড়া স্থানীয়ভাবে লকডাউন পালন করা জেলাগুলোতে সংক্রমণের হার কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে বাংলাদেশে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের প্রভাবে যেভাবে সংক্রমণ বাড়ছে, তাতে টানা ১৪ দিন লকডাউন কর্মসূচী দিতে হবে। সংক্রমণের নিয়ন্ত্রণ ও জনগণের জীবনের ক্ষতি প্রতিরোধে লকডাউনের বিকল্প নেই। কমিটি মনে করছে, দেশের ৫০টির মতো জেলা সংক্রমণের অতি উচ্চঝুঁকিতে রয়েছে। এই হারে সংক্রমণ বাড়তে থাকলে আগামীতে বিদ্যমান স্বাস্থ্য ব্যবস্থার ওপর চাপ পড়বে। কেমন হবে এবারের লকডাউনঃ করোনাভাইরাসের উর্ধমুখী সংক্রমণ ও মৃত্যু ঠেকাতে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী দুই সপ্তাহের লকডাউন শুরু হলে দেশের সবকিছু বন্ধ থাকবে নাকি অন্য কোন উপায়ে নিয়ন্ত্রিত হবে, সবার মনে এখন সেই প্রশ্ন। ১৪ দিনের প্রস্তাবিত লকডাউন নিয়ে পরামর্শক কমিটির এক সদস্য বলেন, লকডাউনের মধ্যেও গণপরিবহন চলছে, মার্কেট শপিংমলসহ বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রয়েছে। সারাদেশে আগামী ১৪ দিনের জন্য যানবাহন ও মানুষের চলাচল কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ না করলে পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে। এমনকি চিকিৎসাসেবা বন্ধের উপক্রমও হতে পারে হাসপাতালে। এ বিষয়ে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, আগে আমাদের সংক্রমণ ৭ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছিল। এখনও অনেক জায়গা আছে যেখানে সংক্রমণ ১০ শতাংশের নিচে। আমরা ইতোমধ্যে ঢাকার আশপাশের এলাকাগুলোতে কঠোর বিধিনিষেধ দিয়েছি। তারপরও ঢাকায় লোকজন এসে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে বাস, ট্রেন, যাত্রীবাহী নৌযান বন্ধ করা হয়েছে। পর্যবেক্ষণ করেই কিন্তু আমরা এ সিদ্ধান্তগুলো নিয়েছি। তিনি আরও বলেন, সংক্রমণ কমাতে পদক্ষেপ নিতে আমাদের বিশেষজ্ঞ টিম কাজ করছে। সেই অনুযায়ী যে সিদ্ধান্ত নেয়া উপযুক্ত এবং সঠিক হবে, সেটাই আমরা নেব। করোনা প্রতিরোধে ৫ এপ্রিল থেকে সরকারের লকডাউন কর্মসূচী চলছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে অফিস-আদালত ও তৈরি পোশাক শিল্প চালু রয়েছে। তবে লকডাউন ঘোষিত হলে একেবারেই লকডাউন দিতে হবে বলে মনে করেন পরামর্শক কমিটির সভাপতি প্রফেসর মোহাম্মদ সহিদুল্লা। তিনি মনে করেন, লকডাউন মানে একেবারেই লকডাউন। জরুরী সেবা ছাড়া দোকানপাট, যানবাহন, হাটবাজার, অফিস, আদালত কোন কিছুই চলবে না। তিনি বলেন, পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত পুরোটা লকডাউন দেয়ার মাধ্যমে করোনা নিয়ন্ত্রণে সফলতা পেয়েছে। তাই আমাদের দেশেও অন্তত ১২ দিনের কঠোর লকডাউন দিতে হবে।
মন্ত্রিপরিষদের সিদ্ধান্ত মেনে, গত মঙ্গলবার থেকে সব ধরনের গণপরিবহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। রেল, নৌ ও দূরপাল্লার বাস যোগাযোগ সবই বন্ধ রয়েছে। রাজধানী ঢাকার প্রবেশপথে সাত জেলার সঙ্গে যোগাযোগ ও যান চলাচল বন্ধ করার অংশ হিসেবে এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তারপরও রাজধানী থেকে লোকজনের বের হওয়া এবং প্রবেশ আটকানো যাচ্ছে না। ভেঙ্গে ভেঙ্গে কেটে কেটে লোকজন রাজধানী ছাড়ছেন। তবে গুরুত্বপূর্ণ কাজে রাজধানীতে আসছেন এমন লোকজনের সংখ্যাও কম নয়। সরেজমিনে দেখা গেছে, গণপরিবহন না থাকলেও মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাসে করে দূরপাল্লার গন্তব্যে যাচ্ছেন যাত্রীরা। মানুষকে ঢাকার ভেতরে আসা ও বাইরে যাওয়া ঠেকানো কঠিন হয়ে পড়ছে। আগামীতে কঠোর কর্মসূচী আসতে যাচ্ছে এমন আশঙ্কায় শ্রমজীবী মানুষের অনেকেই ঢাকা ছাড়ছেন। সেক্ষেত্রে পার্শ্ববর্তী জেলার অনেকে হেঁটেই ঢাকা ছাড়ছেন। আশপাশের জেলা থেকে রাজধানীতে মানুষের প্রবেশ অব্যাহত রয়েছে। একইভাবে ঢাকা ছেড়ে যাচ্ছেন অনেকে। খোলা আছে বিভিন্ন পরিবহনের টিকেট কাউন্টার। মাইক্রোবাসের টিকেট বিক্রি হচ্ছে প্রকাশ্যে। যাত্রীদেরও ডাকতে দেখা গেছে। অনেকেই মোটরসাইকেল, সিএনজিচালিত অটোরিক্সাসহ বিভিন্ন ছোট ছোট পরিবহনে যাতায়াত করছেন। সবার দাবি, জরুরী প্রয়োজনেই যাতায়াত করতে হচ্ছে তাদের।
শুক্রবার সকালে আব্দুল্লাহপুর বাস টার্মিনাল ঘুরে এ চিত্র দেখা যায়। খিলক্ষেত থেকে একজন এসেছেন, যাবেন টাঙ্গাইল। তিনি বলেন, জরুরী কাজে বাড়ি যেতে হবে। কিন্তু টার্মিনালে এসে যে পরিস্থিতি দেখছি তাতে মনে হচ্ছে অনেক দুর্ভোগ পোহাতে হবে। উপায় নেই যেতেই হবে। বাস চলাচল বন্ধ থাকায় মাইক্রোবাসের চালকরা কয়েকগুণ বেশি ভাড়া দাবি করছেন।
মাইক্রোবাসচালক জিলানী রংপুরের যাত্রী ডাকছেন। তিনি বলেন, জনপ্রতি ১২০০ টাকা ভাড়ায় রংপুরের যাত্রী উঠানো হচ্ছে। অনেকেই বিপদে পড়ে যাচ্ছেন। তাদের কথা চিন্তা করেই এ ব্যবস্থা করা হয়েছে।
সরেজমিনে আব্দুল্লাহপুর বাস টার্মিনালে দেখা যায় রংপুর, বগুড়া, টাঙ্গাইল, জামালপুরসহ বিভিন্ন এলাকার যাত্রীদের মাইক্রোবাসের হেল্পার, চালকরা ডাকছেন। ভাড়ায় দেন-দরবার হওয়ার পর তারা গাড়িতে উঠছেন। অনেক যাত্রী বাধ্য হয়ে যাচ্ছেন বলে জানান এ প্রতিবেদককে। এছাড়া অনেকেই গণপরিবহনে বেড়িবাঁধ পর্যন্ত গিয়ে সেখানে মাইক্রোবাসে উঠে তাদের গন্তব্যে যাচ্ছেন। টিকেট কাউন্টারে যাত্রীদের বসিয়ে রেখে যাত্রী ডাকাসহ প্রায় সব ধরনের কার্যক্রম চলছে প্রকাশ্যেই। মঙ্গলবারের পর থেকেই লোকজন এভাবে যাতায়াত করছেন।
রিক্সাচালক হাবিবুর রহমান জানান, তিনি জামালপুর যাবেন। শাশুড়ি অসুস্থ থাকায় তাকে নিয়ে বাড়ি যেতে হবে। কিন্তু মাইক্রোবাসচালক অনেক বেশি ভাড়া চাচ্ছে। তাই অসহায় হয়ে পাম্পের নিচে বসে আছেন তিনি। এছাড়া রফিকুল ইসলাম নামের আরও একজন শ্রমজীবী জানান, তার বাড়ি মাওয়াতে। লকডাউন ঘোষণা করা হলে শুকনো খাবার বেঁধে নিয়ে মাওয়ার পথে রওনা দেবেন। ফেরিঘাটে ভিড় বাড়ছে ঃ লকডাউন ঘোষণার আশঙ্কায় যাত্রীদের ভিড় বেড়ে গেছে ঘাটে। শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটের ফেরিতে যাত্রী পারাপার হচ্ছে। সড়কে চেকপোস্ট বসিয়েও আটকানো যাচ্ছে না তাদের।
শুক্রবার সকাল থেকে নৌরুটের ফেরিগুলোতে ঢাকা ও দক্ষিণবঙ্গগামী উভয়মুখী প্রচুর যাত্রীকে পার হতে দেখা যায়। একসঙ্গে পারাপার হচ্ছে পণ্যবাহী ও জরুরী যানবাহন। বিআইডব্লিউটিসি শিমুলিয়াঘাটে সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্যিক) ফয়সাল আহমেদ জানান, শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে বর্তমানে ১৪টি ফেরি সচল রয়েছে। লকডাউনের নিয়ম অনুযায়ী, শুধু পণ্যবাহী ও জরুরী যান পারাপারের কথা থাকলেও যাত্রীরা ঘাটে আসছেন।
বিআইডব্লিউটিসি সুপারভাইজার শাহাবুদ্দিন বলেন, যাত্রীদের জন্য ফেরিতে চাপ বেড়েছে। শিমুলিয়াঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় শতাধিক বড় গাড়ি রয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত চার শতাধিক গাড়ি পার করা হয়েছে। মাওয়া ট্রাফিক পুলিশের ইনচার্জ জাকির হোসেন বলেন, শিমুলিয়া ঘাটের প্রবেশমুখে শুক্রবার রয়েছে চেকপোস্ট। আমাদের পক্ষ থেকে যাত্রীদের ঘাটে আসা রোধ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। লকডাউনের নির্দেশনা মানার জন্য সবাইকে আহ্বান জানানো হচ্ছে। কিন্তু যাত্রীরা বিভিন্নভাবে ঘাটে এসে উপস্থিত হচ্ছেন। মূলত লকডাউন ঘোষণার আশঙ্কায় মানুষের ভিড় বেড়েছে ঘাট এলাকায়। এছাড়া বাংলাবাজারঘাট থেকেও ফেরিতে করে শিমুলিয়াঘাটে আসছেন অনেক যাত্রী।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640