1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 24, 2024, 10:22 am

কুষ্টিয়ায় এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন

  • প্রকাশিত সময় Sunday, June 20, 2021
  • 119 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥  কুষ্টিয়ায় এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। আজ রাত ১২টা থেকে পরবর্তী সাতদিন কুষ্টিয়ার ছয় উপজেলায় কঠোর লকডাউন পালন করা হবে। রোববার (২০ জুন) বিকালে কুষ্টিয়া জেলা করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কুষ্টিয়া জেলা করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলামের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন করোনার সময়কালীন দায়িত্বে থাকা কুষ্টিয়া জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব সুলতানা আফরোজ। ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার (এসপি) খাইরুল আলম, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলাম, সিভিল সার্জন ডা. আনোয়ারুল ইসলাম, এনএসআই এর যুগ্ম পরিচালক ইদ্রিস আলী, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ সদর উদ্দিন খান, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা, কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. তাপস কুমার সরকার, কুষ্টিয়া পৌরসভার প্যানেল মেয়র শাহীন উদ্দিনসহ সকল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউএনওগণ। সভায় জানাননো হয়, রোববার রাত ১২টা থেকে কুষ্টিয়ার ৬ উপজেলা এ লকডাউনের আওতায় আসবে। পাশাপাশি জেলার সকল শিল্প-?কলকারখানা বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়। এছাড়া জেলায় গণপরিবহন এক সপ্তাহের জন্য বন্ধ থাকবে। তবে কাঁচাবাজার সকাল ৭টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং মসজিদে সীমিত সংখ্যক মুসল্লি জামাতে নামাজ আদায় করতে পারবে বলেও সভায় জানানো হয়। এদিকে কুষ্টিয়া গত ২৪ ঘণ্টায় ১৬৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ সময়ে সাত জনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার রাতে কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন ও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. তাপস কুমার সরকার এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

ডা. তাপস কুমার সরকার বলেন, শনিবার রাত থেকে রবিবার সকাল পর্যন্ত আরও ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত ৩ দিনেই এখানে ৪৩২ জনের করোনা শনাক্ত আর ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৩০ দশমিক ৫৪ শতাংশ। নতুন করে শনাক্ত হওয়া ১৬৪ জনের মধ্যে কুষ্টিয়া সদরের ১০০ জন, দৌলতপুরের ১৬ জন, কুমারখালীর ২৪ জন, ভেড়ামারার ১৩ জন, মিরপুরের সাত জন ও খোকসার চার জন রয়েছেন। মৃত সাত জনের চারজন সদরের ও অপর তিনজন দৌলতপুর, কুমারখালী ও মিরপুর উপজেলার বাসিন্দা। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে করোনা রোগীর চাপ সামলাতে হিমশিমে পড়েছেন কর্তৃপক্ষ। আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. তাপস কুমার সরকার বলেন, ২৪ ঘন্টার হিসেবের বাইরে রাত ১১টার পর থেকে সকাল অবধি আরো তিন জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। অক্সিজেনের সংকট দেখা দিয়েছে। যশোর থেকে অক্সিজেন আনা হচ্ছে। শহরে রোগী বৃদ্ধির কারণ হিসেবে জেনারেল হাসপাতালকে অলিখিত হটস্পট ঘোষনা করে সেখানে গতকাল থেকে সাধারণের প্রবেশ বন্ধ করা হয়েছে। সাধারণ রোগীদের অন্য হাসপাতালে সরিয়ে ফেলা হয়েছে। কুষ্টিয়া ও মিরপুর পৌর এলাকায় কাঁচাবাজার, ওষুধের দোকান ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা রাখা যাবে। এছাড়া সব ধরনের দোকান বন্ধ থাকবে। শহরে কোনো প্রকার যানবাহন চলাচল করতে পারবে না। অপরদিকে কুষ্টিয়ায় পুলিশ সুপার খাইরুল আলমের নের্তৃত্বে করোনা প্রতিরোধে কুষ্টিয়ায় বিধি নিষেধ বাস্তবায়নে জেলা পুলিশ কঠোর অবস্থানে কাজ করছে। আবারো কুষ্টিয়া পৌর এলাকা ৭দিনের লকডাউন দিয়ে গনবিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের গনবিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ্য করা হয়েছে আগামী ২৫ জুন পর্যন্ত বিধিনিষেধ মানতে হবে।  রবিবার বিকেলে সরেজমিনে দেখা গেছে পুলিশ সুপার মোঃ খাইরুল আলমসহ উর্দ্ধতন অফিসার সহ মাঠে রয়েছে। “মাস্ক পরার অভ্যেস, করোনা মুক্ত বাংলাদেশ” এই প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে কোভিড-১৯ দ্বিতীয় ধাপ মোকাবেলায় এবং জন সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে জেলা পুলিশ কঠোর অবস্থানে রয়েছেন। এ সময় জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে হেলার মাইক ব্যবহার করে মাস্ক পরার ব্যাপারে প্রচার প্রচারণা, হাত ধুই-মাস্ক পরি, স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলি, করোনা থেকে দুরে থাকি। এবং জরুরী প্রয়োজনে মাস্ক পরেই ঘর থেকে বের হওয়ার জন্য বার বার মাইকে বলা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) সহ পুলিশের অন্যান্য অফিসার ফোর্স।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640