1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 5:21 pm

(শতাধিক অক্সিজেন সিলিন্ডারে কুঠারাঘাত) কুষ্টিয়া গণপুর্ত’র ক্যাম্পাসে সড়ক বিভাগের বহুতল ভবন নির্মাণের উদ্যোগ !  ॥ বনবিভাগের অনুমতি, মামলার ফায়সালা নেই॥ 

  • প্রকাশিত সময় Saturday, June 19, 2021
  • 132 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ চলমান মামলার ফায়সালা নেই, বনবিভাগের অনুমতি নেই, পরিবেশ বিভাগেরও অনুমতি নেই। আবার দুই বিভাগের কোন সমন্বয় ছাড়াই আকষ্কিক ভাবে কুষ্টিয়া গণপুর্ত বিভাগের ক্যাম্পাসে সড়ক বিভাগ বহুতল ভবন নির্মাণের জন্য তড়িঘড়ি শুরু করেছে। এতে শতাধিক ওষুধি, বনজ বৃক্ষকে কুঠারাঘাতে নিধন করে ওই ভবন নির্মাণের জন্য দরপত্রও আহবানও করা হয়েছে। এমন তথ্যই পাওয়া গেছে কুষ্টিয়া সড়ক ও গণপুর্ত বিভাগের অভ্যান্তরে খোঁজ খবর নিয়ে।

জানা যায়, ৬০’র দশক পুর্বে সিএন্ড বি অধিনে কুষ্টিয়া জেলায় সরকারী রাস্তাঘাট, অফিস, আদালতসহ সমস্ত নির্মাণ কাজই সম্পন্ন হওয়ার সরকারী বিধি চালু হয়। এবং সে অনুযায়ী জায়গা, জমিও অধিগ্রহন করা হয়। পরবর্তিতে একটি বিভাগকে দুটি অথ্যাত সড়ক ও জনপথ এবং গণপুর্ত বিভাগ করা হয়। সে সময় সড়ক ও জনপথ বিভাগের নিজস্ব কোন ভবন বা কার্যালয় ছিল না, যা ছিল তা গণপুর্ত বিভাগের। অস্থায়ীভাবে কুষ্টিয়া সওজের নির্বাহী প্রকৌশলীসহ অন্যান্য অফিস কর্মকর্তাদের জন্য সড়ক ভবনের প্রবেশ গেটের পাশের ভবনটিতে সড়কের নির্বাহী প্রকৌশলী,তত্বাবধায়ক প্রকৌশলীকে ছেড়ে দেয়া হয় এবং ভবনের নিচে এখনও গণপুর্ত বিভাগের এসডির কার্যালয় রয়েছে। কিন্তু জমির মালিকানা স্বত্ব দাবী করে গত কয়েক বছর যাবত বর্তমান সড়ক ভবনের সামনে বিশাল বৃক্ষরাজি বেষ্টিত ফুল, ফল ও ওষুধি গাছের বাগান উজাড় করে সেখানে একটি বহুতল ভবন নির্মাণের পাঁয়তারা করে আসছিল। সওজের এমন কান্ড দেখে গণপুর্ত বিভাগ আদালতে সিভিল রিভিশনের আশ্রয় গ্রহন করে। এর মধ্যে কুষ্টিয়া সওজ বিভাগ চৌড়হাসে সওজের এসডিও’র কার্যালয় ক্যাম্পাসে ‘সওজের প্রস্তাবিত ভবন’ নির্মাণের জন্য জায়গা বরাদ্ধ করে সেখানে একটি সাইন বোর্ড লাগানো হয়। কিন্তু সে সব প্রস্তাবনাকে উপেক্ষা করে সওজ বিভাগ এখন নতুন করে চলমান মামলার কোন ফায়সালা না করেই আদালতকে উপেক্ষা করে ভবন নির্মাণের জন্য দরপত্র আহবান করেছে। এতে কুষ্টিয়ার পরিবেশ বিদসহ সকলে ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে।

অথচ গাছ ও পরিবেশের মধ্যে একটা নিবিড় সম্পর্ক অন্তর্নিহিত। বলা আছে, গাছ আমাদের পরম বন্ধু; কিন্তু কতটুকু যতœশীল বন্ধুর প্রতি? কোনো কারণ ছাড়াই অথবা সামান্য কারণ দেখিয়ে বন উজাড় করে ফেলি। একটা দেশের পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বৃক্ষ গুরুত্বপুর্ণ একটি উপাদান। গাছপালা শুধু কার্বন ড্রাই-অক্সাইড গ্রহণ করে এবং অক্সিজেন ত্যাগ করে উপকারের পরিসমাপ্তি ঘটায়, তা না। বড় বৃক্ষ বজ্রপাত প্রতিরোধে কার্যকর ভূমিকা রাখে। বড় বড় গাছপালা আজ যেন খুঁজে পাওয়া দুস্কর। পরিবেশ বিপর্যয়ের জন্য আজ প্রতিদিন বজ্রপাতে লোক মারা যাচ্ছে। গাছ মানুষকে সুশীতল ছায়া দেয়। ফল দেয়, ফুল দেয়, মরণ ব্যাধি ওষুধের জোগান দেয়, পাহাড়ধস থেকে রক্ষা করে। আরও বিভিন্নভাবে উপকারে আসে। পাখিকুলের বেঁচে থাকার নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হচ্ছে গাছপালা।           সেই অতিমূল্যবান আমাদের পরমবন্ধু গাছ কেটে ভবন নির্মানের উদ্যোগ গ্রহন করেছে কুষ্টিয়া সড়ক  বিভাগ। সড়ক ভবনের সম্মুখে প্রায় দুই বিঘা জমির উপর বিভিন্ন প্রজাতির কয়েকশ গাছ রয়েছে। ওষধি গাছের মধ্যে নিম, হরিতকি, বহেরা, অর্জুন, ফলজ গাছের মধ্যে আম, কাঁঠাল,  নারিকেল, চালতা, আমলকী, কামরাঙা,  সুপারি, বনজ গাছের মধ্যে মেহগনি, হিজল, শোভাবর্ধনকারী হিসাবে কৃষ্ণচূড়া, বকুল, জামরুল, জবাসহ নাম না জানা অনেক গাছ রয়েছে। কুষ্টিয়া শহরের মধ্যে একমাত্র এখানেই বিভিন্ন প্রজাতির গাছ একত্রে বেড়ে উঠেছে। এই স্থানে গাছের প্রাচুর্যতা থাকায় শহরের অন্যান্য স্থানের তুলনায় এই জায়গার তাপমাত্রা তুলনামূলক কম। পরিবেশবিদদের মতে নিম গাছের থেকে প্রবাহিত বাতাস অনেক স্বাস্থ্যকর। কিন্তু এই সকল গাছগুলোকে এখন আর বাঁচিয়ে রাখা যাবে না প্রকারন্তরে গাছগুলোকে আর বাঁচতে দেয়া হবে না। কারণ এই স্থানে এসকল মূল্যবান গাছ কেটে কুষ্টিয়া সড়ক বিভাগ কর্তৃক সুরম্য ভবন নির্মাণের সকল আয়োজন সম্পন্ন করা হয়েছে। সড়ক বিভাগ ইতিমধ্যে ৪ কোটি ১০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে চারতলা বিশিষ্ট ভবনের দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। আগামী ৭ জুলাই এই দরপত্রটি উন্মুক্ত করা হবে। প্রকৃতির এই নির্মল পরিবেশ নষ্ট করে এখানে এই ভবনটি নির্মিত হলে কুষ্টিয়া শহরবাসীর অপরিমেয় ক্ষতি হয়ে যাবে। এই স্থানে বিদ্যমান বিভিন্ন গাছসমূহের গড়পরতা বয়স প্রায় ৩০ বছরের বেশি। ফলে এই গাছগুলো কেটে ফেলা হলে এ অঞ্চলের পরিবেশ মারাতœক ভাবে হুমকির মুখে পড়বে।  এখানে বিভিন্ন প্রজাতির পাখি, সরিসৃপ, কাঠবিড়ালী, বেজীসহ প্রাণীদের আবাসস্থল হওয়াতে কুষ্টিয়ার পরিবেশবিদদের মতে সড়ক ভবন সম্মুখস্থ স্থানের গাছপালা কেটে ফেললে প্রাণীকূলের খাদ্য শৃংখলে বিঘœ ঘটাসহ জীববৈচিত্র মারাতœক ভাবে হুমকির মুখে পড়বে জেলার জীববৈচিত্র, প্রতিবেশ ও পরিবেশন সংরক্ষণে সরকারি জমিতে বা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গাছ সংরক্ষণ করতেই ‘বৃক্ষ সংরক্ষণ আইন, ২০১২’আইনটি প্রণয়ন করা হয়েছে। সে বিবেচনায় কুষ্টিয়া পরিবেশ অধিদপ্তরের এর নাকের ডগায় কিভাবে এতোগুলো গাছ কাটার পাঁয়তারা চলছে সে ব্যাপারে কুষ্টিয়ার পরিবেশবাদীরা তাদের চরম উৎকণ্ঠা ও উদ্বিগ্নতা প্রকাশ করেছেন। এ ব্যাপারে কুষ্টিয়া সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ শাকিরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ প্রতিবেদককে জানান যে, বর্তমানে সওজের সেন্ট্রাল ক্যাম্পাসের জায়গাটি সওজের, এর খাজনাসহ সকল সরকারী পাওনাদি সওজ পরিশোধ করছে। সওজের জায়গায় সওজের ভবন হবে এটা স্বাভাবিক বিষয়। আর বৃক্ষ নিধন পরিবেশ দুষণ প্রশ্নে তিনি বলেন, আমার জানা মতে এখানে মাত্র ৪০টি গাছ রয়েছে। আর আমাদের ভবন নির্মাণের জন্য যে জায়গা প্রয়োজন হবে তার পরে আমরা আরও কিছু গাছ লাগিয়ে পরিবেশ দুষণ পুষিয়ে নেব। মামলার সংক্রান্ত বিষয়ে তিনি জানান, মামলা দুই বার সওজের পক্ষে এসেছে। মামলায় কোন বাধা নেই বলে তিনি জানান।   যেকোনো উন্নয়নমূলক নির্মাণের জন্য প্রকৃতি ও পরিবেশকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে হবে। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, কতটা? এখানে একটা সীমার কথা বলেছেন লেনিন এবং তাঁর আগে মার্ক্স, অ্যাঞ্জেলস। ‘প্রকৃতির দ্বন্দবাদ’ শীর্ষক গ্রন্থে ফ্রেডরিক অ্যাঞ্জেলস বলছেন, ‘প্রকৃতির ওপর আমাদের বিজয় নিয়ে নিজেদের গর্বিত ভাবার দরকার নেই। কারণ, প্রতিটি বিজয়ের পর প্রকৃতি প্রকৃতি প্রতিশোধ নেয়। প্রতিশোধ নেয়। যে দেশের সংবিধানের ১৮ক অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘রাষ্ট্র বর্তমান ও ভবিষ্যৎ নাগরিকদের জন্য পরিবেশ সংরক্ষণ ও উন্নয়ন করিবেন এবং প্রাকৃতিক সম্পদ, জীববৈচিত্র, জলাভূমি, বন ও বন্য প্রাণীর সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা বিধান করিবেন।’ কিন্তু  সড়ক বিভাগ একটি সরকারি প্রতিষ্ঠান হয়েও এই বাধ্যবাধকতা প্রতিপালন তো করছেই না, বরং করছে উল্টোটা। উন্নয়নের নামে  সাবাড় করা হচ্ছে গাছ। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা-এসডিজি পূরণে বনভূমির পরিমাণ দেশের মোট ভূখন্ডের ১৫ দশমিক ৪৩ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ২০ শতাংশ করতে হবে। কিন্তু উল্টোপথে হাঁটছি আমরা। এনভায়রনমেন্টাল পারফরমেন্স ইনডেক্স ২০২০ অনুযায়ী ১৮০ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৬৮। এই গাছগুলি কাটার আগে ভাবতে হবে ওই গাছগুলি এত বছর ধরে যে পরিমাণ অক্সিজেন উৎপাদন করল, তার মূল্য কত। যখন একটি বয়স্ক গাছ কাটা হয়, ভাবুন গাছটি এত বছর ধরে পরিবেশে কতটা অক্সিজেনের জোগান দিয়েছে। তুলনা করুণ, ওই পরিমাণ অক্সিজেন কিনতে হলে কত খরচ হত। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে শহরের চৌড়হাস এ সড়ক বিভাগের নিজস্ব ফাঁকা জমিতে নতুন সড়ক ভবন নির্মানের প্রস্তাবনা রয়েছে। তথাপি ওই স্থান বাদ দিয়ে কেন গাছ কেটে নতুন ভবন নির্মাণ করতে হবে সে বিষয়ে সড়ক বিভাগ কোন সদুত্তর দিতে পারেনি।

এ ব্যাপারে গণপুর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলাম জানান, ভবনটি আমাদের কিন্তু জায়গাটা সওজের, ট্য্যাক্স, খাজনা তারা দেয়। জমির দাবী করে গণপুর্ত বিভাগ থেকে একটি সিভিল মামলা করা হয়েছে। পুর্বের মামলাটি খারিজ হওয়ায় পরবর্তিতে ৪৪৬/১৪ মামলাটির বিষয়ে কোন ফায়সালা হয়নি। ওই স্থানে ভবন নির্মাণের জন্য আমাদেরকে কোন প্রকার চিঠি পত্র দেয়া হয়নি বলে তিনি অভিযোগ করেন।

এ অবস্থায় সচেতন নাগরিক মহল মনে করেন বিদ্যমান বিভিন্ন প্রজাতির মূল্যবান এই গাছসমূহ না কেটে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচীর মাধ্যমে এই স্থানে আরো অধিক পরিমাণে গাছ লাগানো প্রয়োজন। তাতে এখানকার পাখিদের আবাসস্থল নিরাপদ হওয়ার পাশাপাশি উন্নত পরিবেশ বজায় থাকবে। উক্ত স্থানে গাছ, পরিবশে ধ্বংস করে বহুতল ভবন নির্মাণ বন্ধে ক্ষুদ্ধ জেলার পরিবেশবিদসহ সচেতন মহল। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট বিভাগের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640