1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 3:18 am

কুষ্টিয়ায় জেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগের উদ্যোগে ৬ উপজেলায় প্রায় ১৫ লাখ টাকার প্রদর্শনী শুরুতেই শেষ

  • প্রকাশিত সময় Saturday, June 5, 2021
  • 176 বার পড়া হয়েছে

 

 

বিশেষ প্রতিবেদক ॥  কুষ্টিয়া জেলার ৬টি উপজেলায় গবাদি পশু, গৃপালিত পশু, মুরগী, পায়রাসহ নানা প্রাণী, পাখি প্রর্দশেনর জন্য গতকাল ছিল সরকারীভাবে নির্ধারিত দিন। মেলার আয়োজন, সময় ও সার্বিক ব্যবস্থাপনার বিষয়ে জেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগ ও উপজেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগের উদ্যোগে আগাম কোন সংবাদ সম্মেলন বা গণমাধ্যম কর্মিদের কোন প্রকার অবহিতকরণ না করে বরং দায়সারা গোছের মেলা করার অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগকারীরা বলছে, নিয়ম অনুযায়ী বিভিন্ন প্রাণী, পশু ও পাখি পালনকারীদের মেলা শুরুর এক সপ্তাহ আগে নির্ধারিত স্থানে পশু বাহন যোগে নিয়ে আসার জন্য বলতে হবে। এবং বাহন, পশুর মালিক ও পশুর খাবার বাবদ একটা নির্ধারিত টাকা প্রদান করতে হবে। কিন্ত এসব কোন কিছু না করেই প্রাণী সম্পদ বিভাগ দায়সারা গোছের মেলা সম্পন্ন করে টাকা ভাগবাটোয়ারা করে নিয়েছে বলে সুত্রটি দাবী করেছে।

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে উপজেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগের অব্যবস্থাপনার কারণে  ২ লাখ ৪৯ হাজার টাকা বরাদ্দের সরকারি মেলা এক ঘন্টায় শেষ করা হয়েছে। এবং বরাদ্দ কৃত টাকা লুটপাটের অভিযোগও পাওয়া গেছে।

জানা যায়, সারাদেশের মতো কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে গতকাল গৃহপালিত পশু-পাখির মেলা হয় উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর ও ভেটেরিনারি হাসপাতালের আয়োজনে। ২ লাখ ৪৯ হাজার টাকা বরাদ্দের দিনব্যাপী এই মেলা শেষ হয় শুরুর ঘণ্টা খানেকের মধ্যে। প্রদর্শনী করতে ডেকে আনা হয় স্থানীয় বিভিন্ন এলাকার পশু-পাখি খামারিদের,যাদের অনেকের সাথেই নূন্যতম কোন সম্পর্ক এযাবৎ গড়ে ওঠেনি উপজেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগের। বড়গাংদিয়ার ছাগলের খামারি হিরা,জয়ভোগার সুকচাঁদ মন্ডল, নারায়নপুরের সরোউদ্দিন, তুহিন রেজা, সৌখিন পাখি ব্যবসায়ী সরোয়ার সহ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অংশগ্রহণকারীদের অনেকেই জানান, শুক্রবার রাতে তাদের ফোন করে আসতে বলা হয় মেলার উদ্দেশ্যে। যার যার পশুপাখি নিয়ে মেলায় প্রদর্শনীর জন্য যথাসময়ে হাজির হয় তারা। কিন্তু, উপজেলা পরিষদ এলাকায় ছায়ানিবিড় জায়গা থাকা সত্বেও প্রচন্ড গরমে খোলা মাঠে,অব্যবস্থাপনার কারণে মেলায় টিকতে পারেনি খামারি-প্রাণী কেউই। দায়সারা এ মেলায় উদ্বোধনের পর কোন কর্মকর্তা দেখতে পাওয়া যায়নি। প্রদর্শনী উদ্বোধনীর ঘন্টাখানেক পেরুলেও পশু-পাখির জন্য কোন খাবার বা পানির সুব্যবস্থা না করতে পারায় দ্রত স্থান ত্যাগ করেন আগত খামারিরা। বেলা ১২ টার মধ্যেই খালি হয়ে যায় মেলা প্রাঙ্গণ। ফেরার পথে খামারিরা অভিযোগ করতে থাকেন– এখানে আসায় তাদের পশু-পাখির ব্যপক ক্ষতি হয়েছে। এমনকি বিভিন্ন রকম গাড়ি ভাড়া করে আনা-নেওয়া খরচও তাদের নিজেদের বহন করতে হয়েছে। কর্তৃপক্ষ কোন প্রকার সহযোগিতা করেনি। প্রদর্শনী চলাকালীন সময়ে দেখা যায় উপজেলা পরিষদ এলাকার গাছের ডাল-পাতা ছিড়ে খামারিরা খাওয়াচ্ছেন নিজের যতেœ রাখা পশুকে। আলোচনা অনুষ্ঠানে ৪০ থেকে ৫০ টি খাবারের প্যাকেট  দর্শক সারিতে থাকা ব্যক্তিদের মধ্যে বিতরণ করা হয়। খাবার না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন আমন্ত্রিত বা প্রদর্শনীর স্বার্থে ডেকে আনা ব্যক্তিরা। এর আগে প্রদর্শনীটির বিষয়ে উল্লেখ্যযোগ্য বা চোখে পড়ার মতো কোন প্রচার প্রচারণাও চালানো হয়নি বলে অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি গরুর খামারিদের প্রণোদনার টাকা নিয়েও দুর্নীতির নানা অভিযোগ রয়েছে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে। এ নিয়ে ব্যাপকভাবে খবরও প্রকাশিত হয়। শনিবার সকালে প্রদর্শনী উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য আঃকাঃমঃ সরওয়ার জাহান বাদশাহ্, বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট এজাজ আহমেদ মামুন। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আব্দুল মালেক বলেন, প্রদর্শনীতে ৫০টি স্টল রয়েছে। তিনি দাবি করেন, মাইকিংয়ের মাধ্যমে খামারিদের জানানো হয়, অংশগ্রহণে ইচ্ছুক আবেদনকারীদের যাচাই-বাছাই করে অংশ নিতে দেয়া হয়েছে। প্রদর্শনীর বিষয়ে কোন তথ্য সুস্পষ্ট বা লিখিত বিবরণীতে দিতে পারেনি আয়োজক কর্তৃপক্ষ। এবং ২ লাখ ৪৯ হাজার বরাদ্দ কৃত টাকা লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আব্দুল মালেক এর বিরুদ্ধে। তবে কিছুটা ভিন্ন চিত্রের খবর পাওয়া গেছে কুমারখালী প্রাণী সম্পদের আয়োজনে মেলার। গতকাল সকাল সাড়ে ১০টায়  কুমারখালী সরকারি কলেজ মাঠে  প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী মেলা অনুষ্ঠিত হয়। কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজীবুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান খান, কুমারখালী পৌরসভা মেয়র শামছুজ্জামান অরুণ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কুমারখালী উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. নুরে আলম সিদ্দিকী। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- কুমারখালী উপজেলা মহিলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান (মহিলা) মেরিনা আক্তার মিনা, কুমারখালী সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ বিনয় কুমার সরকার। উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর ও ভেটেরিনারি হাসপাতাল কুমারখালী কুষ্টিয়ার তত্বাবধায়নে প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্প (এলডিডিপি), প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর, মৎস ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় এই প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী মেলা অনুষ্ঠিত হয়। তবে এখানেও খামারীদের ও আগত পশুর আনা নেয়ার বিষয়ে  প্রাণী সম্পদ বিভাগ থেকে কোন খরচ দেয়া হয়েছে কিনা তা জানা যায়নি। দিনব্যাপী মেলা শেষে কুমারখালীতে আগত পশু প্রদর্শনীদের মাঝে পুরুস্কার বিতরণ করা হয়। মিরপুর উপজেলাতেও সীমিত পরিসরে মেলা অনুষ্টিত হয়েছে। সেখানেও আগত পশু পালনকারীদের বাহন বাবদ কোন খরচ দেয়া বা মেলা প্রাঙ্গনে পশুর জন্য পানি বা খাবারের ব্যবস্থা চোখে পড়েনি। সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিংকন বিশ্বাসের সভাপতিত্বে মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মিরপুর পৌরসভার মেয়র হাজী এনামুল হক। অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জোয়ার্দ্দার, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমেশ চন্দ্র ঘোষ, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা রাজিউল ইসলাম, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জুলফিকার হায়দার, উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা দোলন কান্তি চক্রবর্তী, উপজেলা ডেভেলপমেন্ট ফ্যাসিলিটেটর উত্তম কুমার বিশ^াস, প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি রাশেদুজ্জামান রিমন, সাধারণ সম্পাদক মজিদ জোয়ার্দ্দার প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন উপজেলা ভারপ্রাপ্ত প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ সোহাগ রানা। পরে মেলায় অংশগ্রহণকারী খামারীদের মধ্যে থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। মিরপুরের আশীষ ডেইরি ফার্মের গাভী গরু প্রাণীসম্পদ প্রদর্শনীয় মেলায় প্রথম স্থানঅধিকার করেছে। ভেড়ামারায় শেখ রাসেল মিনি ষ্টেডিয়াম মাঠে শনিবার প্রাণী প্রদর্শনী, প্রাণিসম্পদ উদযাপন উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও ষ্টল উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দরা ৫০টি স্টলের সকল ষ্টল গুলো পরিদর্শন করেন। সভাপতিত্ব করেন ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার দীনেশ সরকার। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আক্তারুজ্জামান মিঠু, ভেড়ামারা পৌরসভা সাবেক মেয়র আলহাজ্ব শামিমুল ইসলাম ছানা,  জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব আব্দুল আলীম স্বপন, বাহিরচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রওশানারা সিদ্দিকী, জাসদ ভেড়ামারা উপজেলা শাখার সাধারন সম্পাদক আনসার আলী, প্রাণি সম্পদ অফিসার একেএম ফজলুল হক, ভেড়ামারা প্রসক্লাবের সভাপতি জাহাঙ্গীর হোসেন জুয়েল ও সাধারন সম্পাদক আরিফুজ্জামান লিপটন প্রমুখ। তবে এখানেও  প্রদর্শনীতে আগত পশুদের জন্য খাবার, পানির ব্যবস্থা বা পশু খামারীদের আনা নেয়া বাবদ কোন খরচ দেয়ার খবর পাওয়া যায়নি। কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার কার্যালয় চত্বরে গোপনে প্রাণী সম্পদের প্রদর্শনীর খবর পাওয়া গেছে। সেখানেও ভাড়া করে নিয়ে আসা ছাগল, গরু, ভেড়া, কবুতুর নিয়ে আসেন অনেকে। তবে তারা জানিয়েছেন, শুক্রবার রাতে তাদের ডেকে আনা হয়েছে। তারা নিজেরা নিজ খরচে পশু বাহন করে নিয়ে এসেছেন তাদের কোন প্রকার যানবাহন বা আনা নেয়ার খরচ দেয়া হয়নি বলে তারা অভিযোগ করেছে। সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাধন কুমার বিশ^াসের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা। এ সব বিষয়ে কথা বলতে জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ সিদ্দিকুর রহমানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এটি মেলা নয়, এটা প্রদর্শনী। আর এই প্রদর্শনীতে কত টাকা এসেছে, কিভাবে খরচ করা হয়েছে, কাকে দেয়া হয়েছে এসব কিছুই তিনি জানেন না। এটা প্রকল্পের কাজ প্রকল্প কর্মকর্তাই সব নিয়ন্ত্রণ করেছেন। তিনি ভালো বলতে পারবেন। তিনি আরও জানান, তার পরও যদি সঠিক প্রমাণ দিয়ে কেউ বলতে পারেন তাকে পশু আনা নেয়ার জন্য কোন প্রকার খরচ, খাবার দেয়া হয়নি তা হলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে তিনি জানান। এখানেও প্রধান অতিথি চলে যাওয়ার পর প্রদর্শনী কেন্দ্রে তেমন কাউকে দেখা যায়নি। এখানেও সদর উপজেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগের পক্ষ থেকে আগাম কোন বার্তা গণমাধ্যমকে জানানো হয়নি বলে অভিযোগ রয়েছে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640