1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 24, 2024, 11:32 pm
শিরোনাম :
১৩ প্রকার যন্ত্রপাতি কেনায় অনিয়মের অভিযোগে দুদকের তদন্ত চলমান চাপ বেড়েছে তিন গুণ কুষ্টিয়া হাসপাতালে, ফাঁকা পড়ে আছে মেডিকেল কলেজের বিশাল ভবন ২৪ রানে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সেমিতে ভারত ৯ শত ৯৮ কোটি ৫৫ লাখ ৩৭ হাজার টাকার মানব সম্পদের ক্ষতি ঈদযাত্রায় ১৩ দিনে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণহানি বেড়েছে ১৩.৩১ শতাংশ খোকসায় আগুনের লেলিহান শিখায় নিঃস্ব ব্যবসায়ীরা আলমডাঙ্গায় ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের গতিশীলতা আনয়ন শীর্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত প্রকৌশলী আতিকুজ্জামান থ্রি-ডি প্রিন্টারে যন্ত্রাংশ তৈরি করে সফল হওয়ায় পুরস্কার পেলেন ভেড়ামারায় বিষাক্ত সাপের কামড়ে গৃহবধু’র মৃত্যু ॥ এলাকায় আতংক বিরাজ করছে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা জামরুল চাষ প্রযুক্তি টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠালো অস্ট্রেলিয়া

ক্ষুদ্ধ মুক্তিযোদ্ধা,রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ॥ মহান স্বাধীনতা দিবসে  ॥ দুপুর গড়িয়ে গেলেও কুষ্টিয়া জেলা খাদ্য কর্মকর্তার কার্যালয়, নির্বাচন অফিসে জাতীয় পতাকা উত্তোলিত হয়নি

  • প্রকাশিত সময় Saturday, March 27, 2021
  • 158 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ মহান স্বাধীনতা ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে জাতি সারাদেশ গর্বের সাথে দিনটি যথাযথ মর্যাদায় পালন করলেও মহান স্বাধীনতার মুর্ত প্রতিক লাল সবুজের জাতীয় পতাকা উত্তোলিত হয়নি খোদ সরকারী প্রতিষ্ঠান কুষ্টিয়া জেলা খাদ্য কর্মকর্তার কার্যালয় ও জেলা নির্বাচন অফিস ও মিরপুর উপজেলার ছাতিয়ান মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে। গত ২৬ মার্চ সরজমিনে এ দুটি অফিস চত্বরে গেলে এ চিত্র পরিলক্ষিত হয়। লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে যে পতাকা অর্জন করা হয়েছে সে পতাকার অবমাননা কিছুতেই মেনে নেয়া যাবে না। দোষীদের বিচার দাবী করেছেন জেলার মুক্তিযোদ্ধা ও জনপ্রতিনিধিগন। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবেন বলে জানিয়েছেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মোঃ সাইদুল ইসলাম।

জানা যায়, সরকারী বিধি অনুযায়ী ছুটির দিন ব্যাতিত কার্যদিবসে এবং বিশেষ দিবসে সরকারী, বে-সরকরী অফিসে প্রতিদিন জাতীয় পতাকা উত্তোলন করতে হবে। মহান স্বাধীনতা দিবস ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের বিষয়ে সরকারী, আধা সরকারীসহ সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরে জাতীয় পতাকা উত্তোলনসহ বঙ্গবন্ধুর মুর‌্যাল ও শহীদদের স্মৃতি সৌধে পুস্পমাল্য অর্পণ, শ্রদ্ধাসহ কিছু কর্মসুচী বাধ্যতামুলক করার এক প্রজ্ঞাপন জারী করা হয়েছে। এতদ্বাসত্বেও কুষ্টিয়া জেলা নির্বাচন অফিস ও জেলা খাদ্য কর্মকর্তার কার্যালয়ে দুপুর গড়িয়ে গেলেও জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়নি। এতে ক্ষুদ্ধ মুক্তিযোদ্ধা ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দরা। কুষ্টিয়ায় ৮০টি খোদ সরকারী দপ্তর রয়েছে। সরকারী প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, শুক্রবার ২৬ মার্চ ভোর ৬টা বাজার সাথে সাথে প্রতিটি সরকারী, বে-সরকারী, শ্বায়ত্বশাসিত, ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং সুর্যাস্তের সাথে সাথে তা নামিয়ে ফেলতে হবে।  ২৬ মার্চ সকালে টেলিভিশনের ক্যামেরা দেখলে তড়িঘড়ি করে জেলা খাদ্য অফিস যত্রতত্র ভাবে পতাকা উত্তোলন করতে দেখা যায়। আর দুপুর গড়িয়ে গেলেও জেলা নির্বাচন অফিসে পতাকা উত্তোলন করতে দেখা যায়নি। এ বিষয়ে জেলা খাদ্য কর্মকর্তা মোঃ তাহসিনুল হক’র মুঠোফোনে বেশ কয়েকবার যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি। একটি সুত্র জানায়, ডিসি ফুড মোঃ তাহসিনুল হক সকালে প্রথমে সাদা রংয়ের তার অফিসিয়াল গাড়ী যোগে বাসা থেকে অফিসে আসেন। পরে ডিসি কোর্ট চত্বরের দিকে যান। এর পর আর ফিরে আসেননি। সুত্রটি বলছে, তিনি যখন অফিসে এসে পৌছান তখনও অফিসের পতাকা স্ট্যান্ডে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়নি। তিনি সেদিকে কোন ভ্রক্ষেপ না করে সোজা হেটে ডিসি কোর্ট চত্বরের দিকে চলে যান। এ ব্যাপারে কথা উপজেলা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল খালেকের সাথে তিনি জানান, ভুল হয়ে গেছে, তিনি স্যারকে  জানাবেন এবং বিষয়টি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ করেন এ প্রতিবেদককে। সেখান থেকে ডিসি কোর্ট চত্বরের ভেতরে অবস্থিত জেলা নির্বাচন অফিসে গেলে দেখা যায় একই চিত্র। পতাকা স্ট্যান্ডটিতে কোন পতাকা নেই। দীর্ঘক্ষণ সেখানে অপেক্ষা করে কাউকে দেখা পাওয়া যায়নি। পরে জেলা সিনিয়র নির্বাচন অফিসার মোঃ আনিছুজ্জামানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিষয়টি আমিও শুনেছি এবং তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বলেছি। তিনি আরও জানান, ঘটনা যা ঘটার তাতো ঘটেই গেছে এখন কি আর করার। নৈশ প্রহরী শরিফুল ইসলামের উপর দায়িত্ব ছিল। সেই এ দায়িত্বটি পালন করে থাকে। কিন্তু কেন কি কারণে করেনি তা দেখা হবে। দুপুর ১২টা বাজার পরও সেখানে কোন পতাকা উত্তোলিত হতে দেখা যায়নি এ বিষয়ে তিনি জানান, উন্নয়ন মেলা নিয়ে অফিসে একটা ব্যস্ততা আছে। তার পরও কেন সে দায়িত্ব পালন করেনি সে বিষয়টি দেখা হবে বলে তিনি জানান।

একটি পতাকার জন্য ৩০ লাখ মানুষ বুকের রক্ত ঢেলে দিয়েছিল। সরকারের মধ্যে রাজাকার, মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী শক্তি ঘাপটে মেরে আছে এটিই তার প্রমাণ। এমন ক্ষোভের কথা জানালেন জেলার রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও জনপ্রতিনিধি।

এ ব্যাপারে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা আজগর আলী জানান, বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর এই দিনে জাতি কত গর্বের সাথে দিনটি পালন করছে। জননেত্রী শেখ হাসিনা স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে ভারত বিশে^র বহুদেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। তারা আসছেন, ১০দিন ব্যাপী অনুষ্ঠান উপভোগ করছেন, আতিথিয়তা গ্রহন করছেন। কত রক্তের বিনিময়ে আমরা এই জাতীয় পতাকা পেয়েছি। কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য যে সরকারের মধ্যে স্বাধীনতা বিরোধীরা এখনও ঘাপটি মেরে আছে এটি তার প্রমাণ। তিনি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে তদন্তপুর্বক দোষীদের দৃষ্টান্তুমুলক শাস্তির দাবী জানান। কথা হয় সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ার‌্যমান ও পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতার সাথে। তিনি ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, যে পতাকার জন্য এত রক্ত, এত যুদ্ধ, আজ স্বাধীনতার সুর্বণ জয়ন্তী। মহান স্বাধীনদা দিবসে সরকারী অফিসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন হয় না। এ ঘৃণা, ক্ষোভ রাখার জায়গা কোথায়। কোন সাহসে, কার ইন্ধনে সরকারী অফিসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়না তা খতিয়ে দেখে অবিলম্বে দোষীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবী করেছেন।

এ ব্যাপারে কথা হয়, কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলামের সাথে। তিনি জানান, একজনই তাৎক্ষণিক ভাবে জানিয়েছিলেন তাকে। আর কেউ নয়। সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সাথে কথা বলে ব্যবস্থাগ্রহনের কথা জানান তিনি।

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতেও স্বাধীনতা দিবসে সরকারী অফিসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়না এ কথা যেন ভাবাই যায় না। প্রতি বছর জেলা প্রশাসক সভা কক্ষে বিজয় দিবস ও স্বাধীনতা দিবসকে সামনে রেখে সভায় জাতীয় পতাকা সঠিক ভাবে উত্তোলন করা হয়েছে কিনা সে বিষয়ে একটি তদারকি টিমও গঠন করা হয়েছে। কিন্তু কুষ্টিয়ায় এবার তাদের দেখা পাওয়া যায়নি। অপরদিকে বাংলাদেশে একযোগে পালিত হচ্ছে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতা দিবস ২০২১। কিন্তু কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার ছাতিয়ান মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে টাঙ্গানো হয়নি জাতীয় পতাকা খোলা হয়নি বিদ্যালয়ের তালা। সীমিত আকারে সকাল ৯ টায় বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল। যার প্রেক্ষিতে সীমিত আকারে কিছু ছাত্র ছাত্রী বিদ্যালয়ে আসে এবং তালাবদ্ধ দেখতে পেয়ে তারা ঘুরে যায়। তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শিক্ষকরা তাদের স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বিদ্যালয়ে উপস্থিত থাকতে বলে কিন্তু বিদ্যালয় কেন বন্ধ তারা সঠিকভাবে বলতে পারছেনা। এ ব্যাপারে ছাতিয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও বিগত কমিটির সভাপতি জসিম উদ্দীন বিশ্বাস বলেন, আমার কমিটির মেয়াদ গত ৩ তারিখে শেষ হয়ে গেছে এর পরবর্তীতে কোন কমিটি হয়েছে কিনা জানা নেই। তবে এলাকাবাসী বলছে প্রধান শিক্ষক স্বেচ্ছাচারিতা করে ২ লক্ষ টাকা ঘুষ বাণিজ্যের মাধ্যমে এলাকার কোন মানুষকে কমিটির বিষয়ে না জানিয়ে শুধুমাত্র একজনকে জানিয়ে তাকে সভাপতি হওয়ার নিয়ম কানুন জানিয়ে এমপির ডিও লেটার এর মাধ্যমে সভাপতি বানিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে। তবে বিদ্যালয় কেন পতাকা উত্তোলন করা হলো না এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক আহাদ আলীর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, একই দিনে এলাকাবাসী ও বিদ্যালয়ের অনুষ্ঠান থাকার কারণে আমরা অনুষ্ঠান করছি না। যারা অনুষ্ঠান করছে তারাই পতাকা তুলবে। এ ব্যাপারে এলাকাবাসী বলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পতাকা না তোলা পাকিস্তান পন্থী লোকের দ্বারা সম্ভব। স্বাধীনতার এই ৫০ তম বছরে ছাতিয়ানের এর সবচেয়ে বড় বিদ্যাপীঠে পতাকা না উঠানো মানে ছাতিয়ানগ্রাম এর জন্য সবচেয়ে বড় অপমান। এর পরবর্তীতে সোশ্যাল মিডিয়ায় পতাকা টাঙ্গানো হয়নি এমন নিউজ প্রকাশিত হলে  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তার নিজ দায়িত্বে বিদ্যালয় পতাকা উত্তোলন করেন।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640