1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 5:42 pm

নিখোঁজ এক গ্রন্থাগারের খোঁজ রাখেনি কেউ

  • প্রকাশিত সময় Saturday, March 13, 2021
  • 231 বার পড়া হয়েছে

যুবক আজিবরের বাড়ি উপজেলা সদর থেকে ২৫ মাইল দূরের গ্রামে। সামনেই চাকুরির পরীক্ষা তা-ই সদরের গণগ্রন্থাগার থেকে তুলতে এসেছেন পড়ার জন্য কিছু বই। বাড়তি বইয়ের দরকার হলে আজিবর এখানেই আসেন। আর, গ্রন্থাগারের পাশের পাড়ার তরুণী পড়তে পছন্দ করেন ইতিহাস, কবিতাও ভালো লাগে তার। প্রায় প্রতিদিনই ঘণ্টা দুয়েক সময় দেন গ্রন্থাগারে, যেমনটা দেন গাঢ় কাঁচের চশমাওয়ালা এগার বছরের তৌসিফ। কাশেম চাচাও ধর্মগ্রন্থ এখান থেকেই নেন। উন্নয়নশীল আধুনিক বাংলাদেশে একটি উপজেলার গল্প এমনই হতে পারতো, হতে পারতো জীবন্ত এই গল্পের সাক্ষী হয়ে ইউনিয়নে ইউনিয়নেও গড়ে উঠেছে সমৃদ্ধ লাইব্রেরি। অল্প কথায় বাস্তবতার দিকে ঢুকতে চাই। একটি নিখোঁজ গণগ্রন্থাগারের খোঁজ হীন থাকার গল্প জেনে হয়তো পাঠক অবাক হবেন নয়তো হবেন না। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম ভাগের অন্যতম বৃহত্তম  আয়তনের উপজেলা কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে স্মরণ কালেই ছিলো একটি সমৃদ্ধ লাইব্রেরি, নাম ‘দৌলতপুর পাবলিক লাইব্রেরি’ স্থাপিত ১৯৮৩ সালে। যেখানে এখনকার কাল্পনিক এসব গল্প চরিত্রের পরিবর্তনে হয়তো ছিলো হুবহু নয়তো একটু এদিকওদিক। কেন, কিভাবে, কখন এই গণগ্রন্থাগার নিখোঁজ হয়েছে সে খোঁজ পাওয়ার যাত্রাও সহজ ছিলো না। গ্রন্থাগারটির অস্তিত্বের ব্যপারে স্থানীয়রা নিশ্চিত তথ্য দিতে পারলেও এসংক্রান্ত কোন তথ্য নেই উপজেলা প্রশাসন এমনকি জেলা সরকারি গণগ্রন্থাগারে। খোদ উপজেলা পরিষদের মধ্যে  সরকারি (সম্ভবত) এই গ্রন্থাগারে মাসিক বেতনে কাজ করেছে এমন মানুষের খোঁজ মিলেছে, শুনেছি অভিজ্ঞতার কথা। জলজ্যান্ত ১৩টি বিধ্বস্ত আলমারিতে এখনও সাজানো অন্তত হাজার পাঁচেক বই। আছে দেশী-বিদেশী নামি-দামি বিভিন্ন প্রকাশনীর ধর্মগ্রন্থও। শিশু কিশোর থেকে শুরু করে জ্ঞানপিপাসু বৃদ্ধের তৃষ্ণার রসদ যেন পড়ে ধুঁকছে অযতেœ অবহেলায়। দুঃখজনক হলেও সত্যি উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বই আর নিশ্চিহ্ন হওয়া লাইব্রেরি প্রসঙ্গে কোন তথ্যই পাওয়া যায়নি, পাওয়া যায়নি দায়িত্বশীল কাউকে। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে এই নিবন্ধ রচনার সময় পর্যন্ত নষ্ট হতে বসেছে মূল্যবান বইগুলো। যা-দিয়ে সহজেই সেজে উঠতে পারে উপজেলার অন্তত  ৩ থেকে ৪ টি পাবলিক লাইব্রেরি। বর্তমান বাংলাদেশে লাল সবুজের বুকের ওপর যে সোনালী ছায়া সেখান থেকে নিভে যাওয়া একটি পাঠাগার ফের প্রাণ ফিরে পাবে বোধ করি এমন কিছু খুব কঠিন নয়। ধুলো জমা কাগজের পরতে পরতে ছাপাখানার বর্ণমালা জ্ঞান ছড়িয়ে যাক। মানুষ হয়ে উঠুক আরও বেশি সভ্য। সমৃদ্ধ হোক দেশের প্রতিটি গ্রাম,শহর,নগর।

১৮ মার্চ ২০২১ শুরু হচ্ছে এবারের বই মেলা। সারাদেশে শুরু হবে বই পাঠ রব। খোদ উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে সরকারি ভবনে পরিত্যক্ত অবস্থায় হাজার পাঁচেক বইয়ের অস্তিত্ব সম্পর্কে কেন অবগত নন উপজেলা প্রশাসন! সেই প্রশ্ন মনে এসে যায়। স্থানীয় নাগরিকদের সোজা দৃষ্টি জনপ্রতিনিধিদের দিকে, যে পাঠাগার গড়তে উদ্যোগ! সেই পাঠাগার বিলুপ্তিতে হাত পড়েনি কারোর। গ্রন্থাগারের ইতিহাসের শুরু ২৬০০ খ্রীষ্ট্রপূর্বাব্দে, প্রাগৈতিহাসিক থেকে ঐতিহাসিক যুগের সন্ধিক্ষনে  তক্ষশীলা ও নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ে অতীব সমৃদ্ধ গ্রন্থাগারের অস্তিত্ব মিলেছে। গ্রন্থাগারের মূল লক্ষ্য থাকে তথ্যসংশ্লিষ্ট উপাদান সংগ্রহ, সংরক্ষণ, সংগঠন, সমন্বয় এবং পাঠকের জন্য তা উন্মুক্ত করা। সদস্য হওয়া শর্তে বই সংগ্রহ করে নিজের মতোও পড়া যায়।

ঃ লেখক ও সাংবাদিক

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640