1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 5:20 pm

 নিত্যপণ্যের দাম সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে

  • প্রকাশিত সময় Friday, March 12, 2021
  • 184 বার পড়া হয়েছে

রমজান মাস শুরুর আগেই নিত্যপণ্যের দাম সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে চলে গেছে। সরকার নিত্যপণ্যের পর্যাপ্ত মজুদ থাকার কথা বললেও ব্যবসায়ীরা বলছেন উল্টো কথা। তাদের মতে সরবরাহ কম থাকায় পেঁয়াজ, চাল মুরগির দাম বেড়েছে।

নতুন করে পেঁয়াজের দাম কেজিতে বেড়েছে ১০ টাকা। টানা কয়েক সপ্তাহ ধরে বাড়তে থাকা চালের দাম আবারও বেড়েছে। ভোজ্য তেল   মুরগির দাম কমার কোনও লক্ষণ নেই। অধিকাংশ পণ্যের দাম রয়েছে আগের মতোই চড়া। কারণে ক্রেতা বিশেষ করে সীমিত আয়ের মানুষরা পড়েছেন বিপাকে।

মিরপুর এলাকার বাসিন্দা আয়ুব আলী বলেন, নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম যেভাবে বেড়েছে, তাতে অচিরেই রাজধানী ছেড়ে যেতে হবে। এত দাম দিয়ে পণ্য কিনে ব্যয় নির্বাহ করে পরিবারসহ ঢাকাতে থাকা তার জন্য কঠিন।

তিনি বলেন, ‘বাঁচার জন্য দরকারি পণ্য বিশেষ করে চাল, তেল, চিনি, মুরগি গরুর মাংসের দাম নাগালের বাইরে। এখন পেঁয়াজের দাম ৫৫৬০ টাকা কেজি। বাজার খরচ শুধু বাড়ছেই। অথচ আয় বাড়ছে না।

রাজধানীর বেশ কয়েকটি বাজারের তথ্য বলছে, পেঁয়াজের দাম কেজিতে ১০১৫ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। খুচরা দোকান থেকে প্রতি কেজি পেঁয়াজ কিনতে ৪০৫০ টাকায়। বাছাই করা পেঁয়াজ ৫৫৬০ টাকা কেজিতেও বিক্রি হচ্ছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, শীতের শুরুর দিকে বাজারে আসা মুড়িকাটা পেঁয়াজের সরবরাহ শেষের দিকে। কারণেই দাম বেড়েছে। আরও কিছুদিন এই পেঁয়াজের দাম বাড়তে পারে।

কাওরান বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা দোকানে দেশি মুড়িকাটা পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৪৫৫০ টাকা আর আমদানি করা পেঁয়াজ ৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। সরকারি বিপণন সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্য বলছে, গত এক সপ্তাহে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ২৬ শতাংশ। নতুন করে চালের দাম বেড়েছে কেজিতে টাকা। খুচরা দোকানে নাজিরশাইল চাল প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬৫৭০ টাকা, মিনিকেট ৬০৬৫ টাকা এবং মাঝারি বিআর২৮ চাল ৪৫৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। টিসিবি তথ্য মতে, গত এক সপ্তাহে স্বর্ণা, চায়না অর্থা মোটা চালের দাম বেড়েছে . শতাংশ। এই এক সপ্তাহে পাইজাম লতা অর্থা মাঝারি চালের দাম বেড়েছে .৮৫ শতাংশ এবং নাজিরশাইল মিনিকেট তথা চিকন চালের দাম বেড়েছে . ৮০ শতাংশ। 

এছাড়া কয়েক সপ্তাহ ধরে বাড়তে থাকা মুরগির দাম কমছে না।

শুক্রবার খুচরা বাজারে সোনালি জাতের মুরগি প্রতি কেজি ৩১০৩২০ টাকা, ব্রয়লার মুরগি ১৫০১৫৫ টাকা এবং দেশি মুরগি ৪২০৪৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে।

মুরগি ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে মুরগির চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কম। শীত চলে যাওয়ার সময়ে বিভিন্ন রোগের কারণে খামারে অনেক মুরগি মারা গেছে। এমন পরিস্থিতিতে শ্রমজীবী মানুষেরা মুরগি খাওয়া ছেড়ে দিতে শুরু করেছে। গরুর মাংসের কেজি ৫৫০৫৭০ টাকা।

বাজারে মৌসুমের নতুন সবজি হিসেবে উঠতে শুরু করেছে সজনে ডাটা। তবে সবজিটির দাম সাধারণ ক্রেতাদের নাগালের বাইরে। এক কেজি সজনে ডাটা বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকা। অবশ্য পটল ঢেঁড়সের দাম সপ্তাহের ব্যবধানে কিছুটা কমেছে। এছাড়া আলু, টমেটো, ফুলকপি, বাঁধাকপি, করলা, গাজর, বেগুনসহ বেশিরভাগ সবজির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। গত সপ্তাহে ৮০১০০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া পটল ঢেঁড়সের দাম কিছুটা কমে এখন ৬০৭০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। আগের মতো পাকা টমেটোর কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০৩০ টাকা। শশার কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০৩০ টাকার মধ্যে। শিমের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০৪০ টাকায়। মূলা ১৫২৫ টাকা, বেগুন ২০৩০ টাকা, পেঁপে ৩০৩৫ টাকা এবং গাজর ২০৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহের মতো প্রতিটি ফুলকপি বাঁধাকপি বিক্রি হচ্ছে ২০৩০ টাকায়। লাউ বিক্রি হচ্ছে প্রতিটি ৪০৬০ টাকা। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য বলছে চাল, ব্রয়লার মুরগি, ভোজ্য তেল, চিনি ইত্যাদির বাড়তি দাম থাকায় জানুয়ারি তুলনায় ফেব্রুয়ারিতে মূল্যস্ফীতি বেড়েছে। ফেব্রুয়ারিতে জাতীয় পর্যায়ে মূল্যস্ফীতির হয়েছে .৩২ ভাগ। যা জানুয়ারিতে ছিল শতকরা .০২ ভাগ। জানুয়ারির তুলনায় ফেব্রুয়ারিতে মূল্যস্ফীতি বেড়েছে .৩০ ভাগ।

বিবিএসের পর্যালোচনায় দেখা গেছে, চাল, ব্রয়লার মুরগি, ভোজ্যতেল, চিনি ইত্যাদির মূল্য চলতি বছরের জানুয়ারির তুলনায় ফেব্রুয়ারিতে বেড়েছে। আলু, পেঁয়াজ, শাকসবজি (বেগুন, মিষ্টি কুমড়া, ফুলকপি, বাঁধাকপি, শিম, মুলা, টমেটো, গাজর ইত্যাদি), ফল (আঙুর, বরই ইত্যাদি) এবং মশলা (জিরা, দারুচিনি) ইত্যাদির মূল্য জানুয়ারির তুলনায় ফেব্রুয়ারিতে কমেছে।

গত এক বছরের (২০২০ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত) চলন্ত গড় মূল্যস্ফীতির হার হয়েছে শতকরা .৬৩ ভাগ। পূর্ববর্তী একই সময়ে (২০১৯ সালের মার্চ থেকে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত) চলন্ত গড় মূল্যস্ফীতির হার হয়েছে শতকরা .৬০ শতাংশ। তথ্যমতে, ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে মূল্যস্ফীতির শতকরা হার ছিল .৪৬ ভাগ। এই হিসাবে গত বছরের তুলনায় কমেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640