1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 24, 2024, 8:48 am

এক যুগে রকেট গতিতে ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়েছেন কুষ্টিয়া হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক খলিলুর রহমান’র!

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, March 9, 2021
  • 274 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ শহরের অভিজাত এলাকায় বহুতল ভবন। একটি মার্কেটেই একাধিক দোকান। স্কুলের জায়গায় স্ত্রী’র নামে ছাপাখানা। চলাফেরা করেন লেটেস্ট মডেলের টয়োটা গাড়িতে, স্কুল কোর্টারের ফ্লাটের রুমে রুমে এসি লাগিয়ে থাকেন পরিবার নিয়ে।

অবৈধ নিয়োগেই কোটিপতি বনে গেছেন কুষ্টিয়া হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক খলিলুর রহমান। বিতর্কিত নিয়োগে চাকুরী পেয়ে রকেট গতিতে ঘুরিয়েছেন ভাগ্যের চাকা। স্কুলের শতকোটি টাকার সম্পদ কপাল খুলে দিয়েছে খলিলুর রহমানের। মাত্র ৮ বছরে অঢেল সম্পদের মালিক হয়েছেন এই প্রধান শিক্ষক। সোমবার দুপুরে জ্ঞাত উৎস বহির্ভুত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে কুষ্টিয়া হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক খলিলুর রহমান ও তার স্ত্রী বিলকিস রহমানের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। স্বামী ও স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা দুটি করেন দুদকের কুষ্টিয়া সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক মো. জাকারিয়া।

কয়েকবছর আগেও খলিলুর রহমান ভাড়া বাসায় থেকে পায়ে হেটে চলাফেরা করেছেন। মাত্র দশ বছরের ব্যবধানে সেই খলিলুর রহমানের বিলাশবহুল জীবনযাপন। তিনি এখন লেটেস্ট মডেলের টয়োটা প্রিমিও গাড়িতে চড়ে বেড়ান। স্কুল অভ্যন্তরে প্রায় ৫ কাঠা জমি বাউন্ডারি প্রাচীল দিয়ে নিজে থাকার জন্য নির্মান করেছেন তিনতলা ভবন। ভবনটি স্কুলের শিক্ষকদের কোয়াটারের কথা বলা হলেও নিচতলার দুইটি ফ্লাটই তিনি দখল করে বসবাস করছেন। দোতলা ও তিনতলায় চলছে নির্মান কাজ। ওই কোয়াটারের রুমে রুমে লাগিয়েছেন এসি। তবে খলিলুর রহমান সব সম্পদের কথা স্বীকার করে বলেন, তার নিয়োগ অবৈধ না। আদালতের সব খারিজ হয়ে গেছে বলেও তিনি দাবী করেন।

 

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অভিযোগ খলিলুর রহমান আসার পর কুষ্টিয়া শহরের প্রধান সড়ক এনএস রোডে অবিস্থিত স্কুলটি পরিণত হয়েছে ব্যবসায়িক বস্তিতে। লেখাপড়ার মান কমলেও বেড়েছে আয়ের উৎস। স্কুলের চারপাশ ঘিরে নির্মান করা হয়েছে মার্কেট। কোন টেন্ডার ছাড়াই তার হাত দিয়ে স্কুলের প্রায় দুই শতাধিক নতুন দোকান নির্মান ও পজিশন বিক্রয় হয়েছে। খলিলুর রহমানের নিয়োগ নিয়েও রয়েছে নানা বিতর্ক। তার অবৈধ নিয়োগ আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে। অভিযোগ রয়েছে শুধুমাত্র তার নিয়োগের বৈধতা আনতে ঐতিহ্যবাহি এই বিদ্যাপিঠ থেকে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে কলেজ শাখা।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০১০ সালে নিয়ম বহির্ভুতভাবে কুষ্টিয়া হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পান। অভিযোগ রয়েছে বেশ  কয়েকজন নেতাকে ৩লাখ টাকা দিয়ে অবৈধভাবে চাকরীটি বাগিয়ে নেন তিনি। এর পরের গল্পটা কুষ্টিয়ার ছেলে থেকে বুড়ো সকলের মুখে মুখে। এক সময় যিনি ভাড়া বাড়িতে থেকে পায়ে হেটে চলাফেরা করেছেন। তিনি এখন জাপানী টয়োটা প্রিমিও গাড়িতে চড়ে বেড়ান। কয়েক মাস আগে ‘মেট্রো লাইন’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ঢাকা মেট্রো গ ৩২-৬৭৭৩ নাম্বার লেটেস্ট মডেলের গাড়িটি ২২ লাখ টাকা দিয়ে কিনেছেন তিনি। কুষ্টিয়া শহরের পেয়ারাতলার জাহের আলী মিয়া সড়কে জমি কিনে নিজ নামে ৪তলা বিশিষ্ট বাড়ি নির্মান করেছেন খলিলুর রহমান। ছলচতুর খলিলুর রহমান নিজ স্কুল মার্কেটে বেনামে ক্রয় করেছেন একাধিক দোকান। ওই মার্কেটের একাধিক ব্যবসায়ি জানান, ম্যানেজিং কমিটিকে ম্যানেজ করে খলিলুর রহমান বেনামে ১৭টি দোকান নিয়েছিলেন। কয়েকটি দোকান বাদে অধিকাংশ দোকান তিনি বিক্রি করে দিয়েছেন। নিজ স্কুলের জায়গায় স্ত্রী বিলকিস রহমানের নামে গড়ে তুলেছেন একটি ছাপাখানা। কিছুদিন আগে ছাপাখানার মালিকানা পরিবর্তনের জন্য জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আবেদন জমা দিয়েছেন বিলকিস রহমান। খলিলুর রহমানের চেহারা বদলের সাথে সাথে বদলে পৈত্রিক ভিটার চিত্র। এক সময়ে টিনের ঘর এখন আর নেই। বহুতল ভবনের ফাউন্ডেশন দিয়ে একতলা সম্পন্ন করা হয়েছে।

জনৈক স্থানীয় বাসিন্দা জানান কুষ্টিয়ার ঐতিহ্যবাহি স্কুলটি ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। লেখাপড়ার কোন মান নেই। দিন দিন কমছে শিক্ষার্থীর সংখ্যা। সবাই ব্যস্ত সম্পদ হরিলুট করতে। ঐতিহ্য নষ্ট করে স্কুলটিকে ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা হয়েছে। এদিকে খলিলুর রহমানের নিয়োগের বিরুদ্ধে সেসময় আদালতে একটি মামলা করেন তৎকালীন স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলাম। উক্ত মামলায় নিয়োগের ওপর আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও আদালতের আদেশ অমান্য করে রায়ের দিনই খলিলুর রহমানকে নিয়োগ দেয় তৎকালীন ম্যানেজিং কমিটি। আদালতের আদেশ অমান্য করে নিয়োগ পক্রিয়া সম্পন্ন করায় আমিনুল ইসলাম ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা করেন। অভিযোগ রয়েছে খলিলুর রহমানের নিয়োগের বৈধতা আনতে ঐতিহ্যবাহি এই বিদ্যাপিঠ থেকে কলেজ শাখা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। করণ কলেজ শাখা চালু থাকলে নীতিমালা অনুযায়ী প্রধান শিক্ষকের পরিবর্তে অধ্যক্ষ নিয়োগ দিতে হবে। সেক্ষেত্রে শিক্ষাকতা যোগ্যতায় তিনি নিয়োগ পেতেন না। তাই তড়িঘরি করে বন্ধ করে দেয়া হয় কলেজ শাখাটি।

তৎকালীন ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচিত সদস্য ও মামলার বাদী আমিনুল ইসলাম বলেন, জেলার ঐতিহ্যবাহি বিদ্যাপিঠটি নানা অনিয়ম ও দুর্ণীতিতে জর্জরিত। আমি নানাভাবে অনিয়ম প্রতিহতের চেষ্টা করেছি। কিন্তু জেলার ঐতিহ্যবাহি স্কুলটি রক্ষা করতে পারিনি। বাধ্য হয়ে আমি পদত্যাগপত্র জমা দিয়ে চলে এসেছি। সব সম্পদের কথা স্বীকার করে খলিলুর রহমান বলেন, বইয়ের ব্যবসা করে আমি এইসব সম্পদের মালিক হয়েছি। আমার স্ত্রী সব ব্যবসা দেখাশুনা করেন। ২০০০ সাল থেকে আমি বইয়ের ব্যবসা করছি। স্কুলের সম্পদ হরিলুটের কথা অস্বীকার করে তিনি বলেন, ম্যানেজিং কমিটির মাধ্যমে সব কিছু হয়ে থাকে। এখানে কাউর একার পক্ষে কিছু করা সম্ভব না। এদিকে দুদক মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে খলিলুর রহমানের নামে জ্ঞাত আয়ের বাইরে ৫২ লাখ ৫৫ হাজার ১৬৯ টাকার সম্পাদের সন্ধান পেয়েছে দুদক। এছাড়া তার স্ত্রী বিলকিস রহমানের নামে ৫৫ লাখ ৩৩ হাজার ৫৩৪ টাকার অবৈধ সম্পাদের সন্ধান পেয়েছে দুদক।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640