1. nannunews7@gmail.com : admin :
July 15, 2024, 9:31 am
শিরোনাম :
কোটার সমাধান আদালতেই : প্রধানমন্ত্রী কুষ্টিয়ায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তজার্তিক দিবস উদযাপন সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় মাদক প্রতিরোধ করা সম্ভব : এডিসি শারমিন আখতার সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় জেলার আইনশৃংলা নিয়ণÍ্রণ করা সম্ভব কুষ্টিয়ায় জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আলমগীর হোসেন থানায় অভিযোগ দায়ের চরথানাপাড়ায় বসতবাড়ীতে হামলা গৃহবধুসহ আহত ২ কুষ্টযি়ায় জাতীয় র্পাটরি প্রসেডিন্টে ও সাবকে রাষ্ট্রপতি এরশাদরে ৫ম মৃত্যু র্বাষকিী পালতি দৌলতপুরে আবেদের ঘাটে দিনে-দুপুরে ২ রাউন্ড গুলি কুষ্টিয়ায় কোটা বৈষম্য নিরসনে দাবিতে শিক্ষার্থীদের পদযাত্রা এবং স্মারকলিপি প্রদান চুয়াডাঙ্গায় প্রণোদনার প্রভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে রোপা আউশ ধানের চাষ ভেড়ামারায় ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক পিএলসি এর ১০০২ তম শাখার শুভ-উদ্বোধন রেল কর্তৃপক্ষের নিদ্রাভিনয়ে কুমারখালীতে জলাশয় ভরাটের গতি বেড়েছে, তৈরী হচ্ছে টিনসেড ঘর

গবেষণাতে জনকল্যাণে গুরুত্ব দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

  • প্রকাশিত সময় Thursday, March 4, 2021
  • 145 বার পড়া হয়েছে

জনগণের কল্যাণের কথা চিন্তা করে গবেষণা চালিয়ে যেতে শিক্ষক, বিজ্ঞানী ও গবেষকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
বৃহস্পতিবার সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ফেলোশিপ, এনএসটি ফেলোশিপ এবং বিশেষ গবেষণা অনুদান বিতরণ অনুষ্ঠানে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী।
অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘আমি সব সময় চাই যে মানবকল্যাণে কাজ করতে হবে এবং আপনারা এইটুকু মনে রাখবেন যে, আমরা যে ফেলোশিপ দিচ্ছি বা অর্থ বরাদ্দ করেছি এটা কিন্তু জনগণেরই অর্থ। কাজেই তা যেন জনগণের কল্যাণে লাগে, সেই দিকটায় বিশেষ করে দৃষ্টি দিয়ে গবেষণাকাজ চালিয়ে যাবেন, সেটা আমরা চাই।’
জাতির পিতা দেশের মানুষকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘যেখানে জাতির পিতা যুদ্ধবিদ্ধস্ত দেশকে স্বল্পোন্নত দেশ গড়ে রেখে গিয়েছিলেন। আমরা এখন উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে আজকে আমাদের অবস্থানটা করতে পেরেছি। আমরা ভবিষ্যতে উন্নত দেশ হিসেবে নিজেদেরকে প্রতিষ্ঠিত করব।
তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে। এখন আর বাংলাদেশকে কেউ অবহেলার চোখে দেখতে পারবে না।’
আওয়ামী লীগ সরকার শিক্ষাকে গুরুত্ব দেয় জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১৯৯৬ সালে যখন সরকার গঠন করি তখন অবাক হয়ে দেখলাম বিজ্ঞানের জন্য কোনো বরাদ্দ নেই, গবেষণার জন্য কোনো বরাদ্দ ছিল না। এমনকি শিক্ষার্থীরা বিজ্ঞান পড়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছিলো। কিন্তু বিশ্বব্যাপী আমরা যদি দেখি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অগ্রগতি সাধন করবার একটা উপায়। গবেষণা ছাড়া বা বিজ্ঞান প্রযুক্তি শিক্ষা ছাড়া কিভাবে একটা জাতি সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারে? কারণ বিজ্ঞানের যুগে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন উদ্ভাবন হচ্ছে। তার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে আমাদের চলতে হবে।’
আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পর গবেষণার জন্য বাজেটে আলাদা বরাদ্দ রাখার পাশপাশি বিজ্ঞান শিক্ষার প্রসারে নানা উদ্যোগ নিয়েছে উল্লেখ করে শিক্ষা ও গবেষণায় সর্বোচ্চ বরাদ্দ দেয়ার কথাও জানান সরকার প্রধান।
তিনি বলেন, ‘২০০৮ সাল থেকে এই পর্যন্ত সব ক’টি নির্বাচনে জয়ী হওয়ার ফলে দীর্ঘদিন সরকারে থাকার সুযোগ পেয়েছি এবং সরকারের ধারাবাহিকতা আছে, যার কারণে মানুষের মৌলিক চাহিদা পূরণ করতে সক্ষম হয়েছি।
সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছে বলে করোনাভাইরাস মোকাবেলায়ও যথেষ্ট সহযোগিতা ও সুযোগ পাওয়া গেছে বলে জানান শেখ হাসিনা।
তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি বাংলাদেশ যে এগিয়ে যাচ্ছে, এই অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবে না। আর করোনাভাইরাস যখন পারে নাই, তখন আর কেউ পারবে না। এটাই আমার বিশ্বাস। সবাইকে আমি ধন্যবাদ জানাই। সবার সহযোগিতায় এই অর্জন সম্ভব হয়েছে।’ ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান ‘বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ফেলোশিপ’, এনএসটি ফেলোশিপ এবং বিশেষ গবেষণা অনুদানের চেক হস্তান্তর করেন। ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তন প্রান্তে এই সময় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আ ফ ম রুহুল হক, মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব মো. আনোয়ার হোসেনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। দেশের রপ্তানি আয় বাড়ানোর জন্য নতুন নতুন পণ্য তৈরি এবং এ বিষয়ে গবেষণার ওপর জোর দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেন, ‘গবেষণার মধ্য দিয়েই আমরা ব্যয় কমাতে পারি, উৎপাদনের উৎকর্ষতা বাড়াতে পারি, পরিমাণ বৃদ্ধি করতে পারি। আমাদের রপ্তানি খাতে আমরা শুধু একটা বা দুইটার (পণ্য) উপর নির্ভরশীল না। আমরা বহুমুখী পণ্য উৎপাদন করে রপ্তানি করতে পারি।’ নতুন নতুন পণ্য তৈরি ও রপ্তানির উপর গুরুত্ব আরোপ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের দেশের অনেক সুযোগ রয়েছে। রপ্তানি পণ্য বাড়াতে হলে সেখানেও কিন্তু গবেষণার প্রয়োজন আছে। কাজেই আমি আশা করি, সবাই নতুন নতুন পণ্য সৃষ্টি এবং আমাদের রপ্তানি যেন অব্যহত থাকে সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দেবেন।’ কৃষি উৎপাদন ব্যবস্থার আধুনিকায়ন ও যান্ত্রিকীকরণের ওপর গুরুত্ব দিয়ে সরকার প্রধান বলেন, ‘আমাদের জনসংখ্যা বেশি। কৃষি উৎপাদনের জায়গা কম। কিন্তু সেটাও আমরা ব্যবহার করে আমাদের দেশে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছি। কাজেই সেটা মাথায় রেখেই আমাদের গবেষণায় আরো জোর দিতে হবে।
দক্ষ মানবসম্পদ সৃষ্টি করে দেশ ও বিদেশে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা সেদিকে লক্ষ্য রাখছি। আর প্রতিটি শিল্প কারখানায় গবেষণা ও উন্নয়ন শাখাকে কার্যকর ও শক্তিশালী করতে হবে। আমরা ১০০টা বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছি। শিল্প প্রতিষ্ঠিত হবে, কিন্তু সেখানেও গবেষণার একান্ত প্রয়োজন আছে।’ মুজিববর্ষে ভূমিহীন ও গৃহনহীনদের ঘর করে দেয়ার কথা তুলে ধরার পাশাপাশি অনুষ্ঠানে বিজ্ঞানকে ব্যবহার করে এগিয়ে যাওয়ার কথা বলেন শেখ হাসিনা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640