1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 5:58 pm

অনিয়মে ছাড় হয়নি অর্থ, তবু থেমে নেই দিশার অর্থ বাণিজ্য

  • প্রকাশিত সময় Monday, February 15, 2021
  • 193 বার পড়া হয়েছে

 

ঢাকা অফিস ॥ যশোরে ‘সেকেন্ড চান্স এডুকেশন কর্মসূচি’ নিয়ে অভিযোগ তদন্তের পরিপ্রেক্ষিতে টাকা ছাড় না হলেও থেমে নেই প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত এনজিওর অর্থ বাণিজ্য। সুপারভাইজার ও শিক্ষক নিয়োগের নামে গোপন অর্থ বাণিজ্য অব্যাহত রেখেছে ‘দিশা সমাজ কল্যাণ সংস্থা’। এমনকি ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের জরিপেও অনিয়মের তথ্য মিলেছে। এরই মধ্যে ওঠা অনিয়মের অভিযোগ তদন্তে সত্যতাও পেয়েছে তদন্ত কমিটি। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গোটা দেশের ঝরে পড়া শিশু-কিশোরদের শিক্ষার আওতায় আনতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা অধিদপ্তর উপ-আনুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর আওতায় সেকেন্ড চান্স এডুকেশন প্রোগ্রাম, পিইডিপি-৪ কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য প্রত্যেক জেলা থেকে একটি লিড এনজিও নির্বাচন করা হয়েছে। মন্ত্রণালয় নির্ধারিত এনজিও এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে। এনজিওগুলোর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে যশোরে কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য ২০১৯ সালে সাতটি এনজিওকে প্রাথমিকভাবে শর্ট লিস্ট তালিকায় রাখা হয়। সাতটির মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থান ছিল দিশা সমাজ কল্যাণ সংস্থার। যশোর জেলায় এ প্রকল্প ব্যয় অন্তত অর্ধশত কোটি টাকা। সূত্রমতে, যশোরে কর্মসূচি বাস্তবায়নে দিশা সমাজ কল্যাণ সংস্থাকে প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত করা হলেও সংস্থার প্রকল্প বাস্তবায়নে স্বক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। কারণ সক্ষমতা বিচারে সাতটি ক্রাইটেরিয়া নির্ধারণ করা হলেও এর অধিকাংশই দিশার নেই। পাশাপাশি অভিযোগ ওঠে, দিশা সমাজ কল্যাণ সংস্থা চূড়াšন্ত অনুমোদনের আগেই কর্মী নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করেছে। অনুমোদনের আগেই একাধিক বিজ্ঞপ্তি দিয়ে সুপারভাইজার ও শিক্ষক নিয়োগের নামে বিস্তর অর্থ বাণিজ্যেরও অভিযোগ পাওয়া যায়। ‘অযোগ্যতা ও অনিয়মের’ অভিযোগ তুলে ধরে একাধিক সংস্থা ও ব্যক্তি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে আবেদন করে। এ নিয়ে গত ৩০ নভেম্বর ২০২০ বিভিন্ন সংবাদপত্রে বিস্তারিত সংবাদ প্রকাশিত হয়। এ পরিপ্রেক্ষিতে গত ৫ ডিসেম্বর ২০২০ উপ-আনুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর সহকারী পরিচালক মো. শাহারুজ্জামান অভিযোগ তদন্তে যশোরে আসেন। অভিযোগ তদন্তের পর তিনি ঢাকায় ফিরে প্রতিবেদনও দাখিল করেছেন। মো. শাহারুজ্জামান বলেন, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে কথা বলেছেন। চাকরি দেয়ার কথা বলে টাকা নেয়ার প্রমাণও মিলেছে। এছাড়া সক্ষমতার ঘাটতি নিয়েও তদন্ত হয়েছে। পুরো প্রতিবেদন সংশ্লিষ্ট দপ্তরে জমা দেয়া হয়েছে। এরপর দিশা সমাজ কল্যাণ সংস্থাকে শোকজও করা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640