1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 27, 2024, 12:56 pm

সবার জন্য টিকার ব্যবস্থা করা হবে : প্রধানমন্ত্রী

  • প্রকাশিত সময় Sunday, February 14, 2021
  • 172 বার পড়া হয়েছে

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘সরকার সবার জন্য করোনার টিকা নিশ্চিত করবে। শুরুর দিকে অনেকের দ্বিধাদ্বন্দ্ব থাকলেও এখন সবাই উৎসবের আমেজে টিকা নিচ্ছেন। আমরা তিন কোটি ডোজ টিকা কিনে রেখেছি। তাছাড়া ভারত ২০ লাখ ডোজ দিয়েছে। এছাড়া অন্যান্য দেশও দিতে চাচ্ছে আমরা সবগুলো নেব, যাতে আমরা গ্রাম পর্যায় পর্যন্ত সবার জন্য এই টিকার ব্যবস্থা করতে পারি।’
রোববার সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কুমুদিনি ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস অ্যান্ড ক্যানসার রিসার্চের ভিত্তি স্থাপন অনুষ্ঠানে একথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেন, ‘করোনা মোকাবিলা করতে যা যা করা দরকার আমরা তা করে যাচ্ছি। ভ্যাকসিন দেওয়ার পরেও সবাইকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে চলতে হবে। মাস্ক পরে থাকতে হবে, হাত ধুতে হবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে। যারা ভ্যাকসিন নিচ্ছি পাশাপাশি যেন স্বাস্থ্য সুরক্ষাটা মেনে চলি। তাহলে আমরা আশা করি আমাদের দেশ থেকে এই প্রাদুর্ভাব পুরোপুরি চলে যাবে।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যখন রিসার্চ চলছিল তখন আমরা অগ্রিম টাকা দিয়ে রেখেছি এই কারণেই যেন শুরুতেই আমরা টিকাটা পেতে পারি। আমাদের দেশ অনেক ঘনবসতিপূর্ণ । যারা চিকিৎসা দিচ্ছে বা মানুষের পাশে থাকছে অথবা বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ তাদের সবার সুরক্ষার জন্য টিকা নিশ্চিত করার লক্ষ্য নিয়ে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’
তিনি বলেন, ‘আমরা অনেক ক্ষেত্রে পেছনে পড়ে গিয়েছিলাম। বাংলাদেশের চিকিৎসা ক্ষেত্রে নার্সদের শুধু ডিপ্লোমা নার্সিং ছিল, গ্রাজ্যুয়েশন ছিল না। ‘৭৫ সালের পর ২১ বছর যারা সরকার পরিচালনা করেছেÑ তারা তো অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছিলো। তারপর ক্ষমতাটা তাদের কাছে ছিলো একটা ভোগের বস্তু, নিজের ভাগ্য গড়ার বস্তু, দেশের মানুষের কল্যাণ করার কথা তারা কখনও চিন্তা করে নাই। এটাই হচ্ছে সব থেকে দুর্ভাগ্যের। আমরা সরকারে আসার পর থেকে এ ব্যাপারে যথেষ্ট প্রচেষ্টা চালাই।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘বেসরকারি উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করছি। তাদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দিচ্ছি। প্রতিটি জেলায় সরকারি অথবা বেসরকারি উদ্যোগে বিশ্ববিদ্যালয় করে দিচ্ছি, মেডিকেল কলেজ করে দেয়ার পদক্ষেপ নিয়েছি। উন্নত মানের হাসপাতাল করে দিচ্ছি। ডাক্তার নার্স নিয়োগ দিয়েছি। যেন আমাদের দেশের মানুষ অন্তত এই চিকিৎসাটা পায়, তার ব্যবস্থা করেছি।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, টিকা নেয়ার ব্যাপারে অনেকের একটু দ্বিধা দ্বন্দ্ব ছিল। তবে সাহসী ভূমিকা রেখেছে আমাদের কুমুদিনী হাসপাতালে নার্সরা। এখন আর আমাদের কোনও সমস্যা নাই, এখন সবাই খুব আগ্রহভরে চলে আসছে, উৎসাহে চলে আসছে টিকা নিতে। তিনি স্বাস্থ্য সেবায় কুমুদিনী হাসপাতালের প্রশংসা করেন।’
মেডিকেল গবেষণা বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের দেশে রিসার্সের সুযোগটা খুবই কম। বিশেষ করে মেডিকেল সায়েন্সের রিসার্স খুব বেশি একটা হচ্ছে না। যেটা হওয়া একান্তভাবে প্রয়োজন। আসলে যাদের রিসার্স করার কথা সকলেই ডাক্তার হয়ে রোগী দেখতে এত ব্যস্ত, বসে রিসার্স- খুবই হাতে গোনা কয়জনকে আমি দেখি, তারা পাবলিকেশন এবং রিসার্স করে।’
তিনি বলেন, ক্যান্সার এমন একটা রোগ, আজকে এমন তার প্রার্দুভাব হচ্ছে, কিন্তু দুর্ভাগ্য তার যে প্রকৃত ডায়াগনোসিস করা বা সেভাবে আমাদের পরিবেশ, আবহাওয়া, জলবায়ুর সঙ্গে এই ক্যান্সার কিভাবে বিস্তার লাভ করে তার ওপর রিসার্স করা বা এটার চিকিৎসা করবার জন্য যে রিসার্স দরকার সেটা খুব কম আমাদের দেশে হয়।
১৯৯৬ সালে সরকার গঠনের পর অনেকগুলো ইন্সটিটিউট তৈরি করে দেওয়ার পর দ্বিতীয়বার সরকারে এসে আরও নতুন নতুন ইন্সটিটিউট গড়ে তোলার কথা মনে করিয়ে দিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, ‘আমি মনে করি রিসার্চটা আমাদের জন্য একান্তভাবে অপরিহার্য।’
আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পরই যে দেশে প্রথম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল, সে কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, এখন দেশে মোট চারটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে, প্রতি বিভাগে একটি করে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠারও লক্ষ্য রয়েছে। কারণ বিশ্ববিদ্যালয় হলে সেখানে রিসার্চের সুযোগ হবে। তবে আমি মনে করি, সেবসরকারি খাতকে সুযোগ দেয়া প্রয়োজন। আমি ১৯৯৬ সাল থেকেই বেসরকারি খাতকে উৎসাহিত করেছি। শুধু তাই না, বেসরকারিভাবে মেডিকেল কলেজ বা হাসপাতাল করতে গেলে যেসব যন্ত্রপাতির প্রয়োজন হয়, আমরা শিল্প প্রতিষ্ঠায় যেভাবে ট্যাক্স ফ্রি করে দিই, বা ট্যাক্স কমাই, ঠিক একই কায়দায় মেডিকেল সেক্টরেও আমি ট্যক্স প্রত্যাহার করি বা হ্রাস করে দিই এবং শিশুদের জন্য যা দরকার, যেমন ইনকিউবেটরসহ অন্যান্য যা যা প্রয়োজন সেগুলো সম্পূর্ণ ট্যাক্স ফ্রি করে দিয়েছিলাম।
তিনি বলেন, ‘যে কারণে আমাদের দেশে মানসম্মত অনেকগুলো বেসরকারি মেডিকেল হাসপাতাল এবং কলেজ প্রতিষ্ঠা হয়েছে। তবে আমি মনে এখানে কুমুদিনী ট্রাস্ট সব সময় অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছে।’
নারায়ণগঞ্জের কুমুদিনী কমপ্লেক্স প্রান্তে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপেরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান, নারায়ণগঞ্জ -৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান, কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাজীব প্রসাদ সাহা, পরিচালক শ্রীমতি সাহা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640