1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 4:49 pm

দৌলতপুরে সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে দলিল লেখক সমিতির অতিরিক্ত চাঁদা টাকা আদায়

  • প্রকাশিত সময় Saturday, February 13, 2021
  • 153 বার পড়া হয়েছে

 

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে আবারও অতিরিক্ত টাকা আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। দলিল প্রতি প্রায় সাড়ে ৯শ থেকে সাড়ে ১৩শ টাকা পর্যন্ত আদায় করা হচ্ছে। কোন কারণ ছাড়াই জমি রেজিষ্ট্রি করতে যাওয়া ব্যাক্তিদের নিকট থেকে অফিস খরচ বাবদ এসব টাকা আদায় করা হচ্ছে। সাধারন মানুষকে জিম্মি করে কথিত দলিল লেখক সমিতির নেতা ও সাব রেজিষ্টার অফিসের দুর্নীতিবাজ কর্মচারীর সমন্নয়ে গঠিত একটি চক্র দলিল প্রতি অতিরিক্ত টাকা বা চাঁদা আদায়ের কারবার শুরু করেছে। এরআগে স্থানীয় সাংসদের হস্তক্ষেপে গত দুই বছর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে অতিরিক্ত টাকা নেয়া বন্ধ ছিল। এখন আবারও ওই চক্রটি নানা অজুহাতে ফের অতিরিক্ত টাকা আদায় শুরু করেছে বলে ভূক্তভোগীরা অভিযোগ করেছে। ভূক্তভোগীদের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, দৌলতপুর সাব রেজিষ্টার অফিসে মঙ্গল ও বুধবার সপ্তাহে দু’দিন জমি রেজিষ্ট্রি করা হয়। প্রতি সপ্তাহে গড়ে প্রায় ৪’শ  থেকে ৫’শ দলিল রেজিষ্ট্রি হয়ে থাকে। রেজিষ্ট্রি বাবদ নাম মাত্র সরকারী ফিস থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। প্রতিটি হেবা দলিলে ১২’শ ও টিপসই বাবদ ১৩০ টাকা এবং খোশ কবলা দলিল প্রতি ৮’শ ও টিপসই বাবদ আরো ১৩০ টাকা করে অতিরিক্ত টাকা আদায় করা হচ্ছে। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর ফের অতিরিক্ত টাকা আদায়ে জমি ক্রেতা-বিক্রেতার মধ্যে অসন্তোষ ও ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। সাম্প্রতি সাব রেজিষ্ট্রার অফিসের দলিল লেখকদের একাংশের  দৌলতপুর দলিল লেখক সমিতি নামে একটি নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে। মুলত এই কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের কতিপয় দুর্নীতিবাজ কর্মচারীদের জোগসাজসে আদায় করা এসব চাঁদার টাকা নিজেদের মধ্যে ভাগবাটোয়ারা করে নেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। ফলে সাধারণ মানুষ কথিত ওই দলিল লেখক সমিতির কাছে জিম্মি ও নিরুপায় হয়ে জমি-জমা ক্রয় বিক্রয় করতে গিয়ে অতিরিক্ত টাকা দিতে বাধ্য হচ্ছেন। জমি রেজিষ্ট্রি করতে যাওয়া মহিষকুন্ডি গ্রামের জাফর আহমেদ বলেন, কয়েকদিন আগে তিনি একটি হেবা দলিল করেছেন। সরকারী ফিস ও মোহরারদের খরচ ছাড়াও দলিল প্রতি তাকে ১২শ টাকা ও টিপসই বাবদ ১৩০ টাকা প্রদান করতে হয়েছে। যার কোন রশিদ দেয়া হয়নি। দলিল লেখক নেতাদের জোগসাজসে সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের কর্মচারীরা ওই টাকা আদায় করছেন। দৌলতপুর সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে জমি-ক্রয় করতে আসা কয়েকজনের সাথে কথা হলে তারা জানান, কিছুদিন ধরে জমি রেজিষ্ট্রি বাবদ ফিস বাড়তি নেয়া হচ্ছে। ফলে নিরুপায় হয়ে দলিল প্রতি বাড়তি ফিস দিতে বাধ্য হচ্ছেন তারা। এতে করে সাধারন মানুষের মাঝে চরম অসন্তোষ ও ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। দলিল লেখক কমিটির সভাপতি আব্দুল জলিল বলেন, সম্প্রতি আমরা দলিল লেখকদের একটি কমিটি গঠন করেছি। সরকারী ফিসের বাইরে আগে যেভাবে অতিরিক্ত টাকা নেয়া হতো সেভাবে নেয়া হচ্ছেনা। তবে করোনার কারনে অফিস খরচ বাবদ দলিল প্রতি অতিরিক্ত পঞ্চাশ টাকা বেশি নেয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার বলেন, অতিরিক্ত টাকা আদায়ের বিষয়টি আমিও শুনেছি। এ বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। দৌলতপুর আসনের সংসদ অ্যাড. আ কা. ম. সারওয়ার জাহান বাদশাহ বলেন, ‘আমি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর সর্বপ্রথম সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের অতিরিক্ত টাকা আদায় বন্ধ করেছি। সম্প্রতি চিকিৎসার জন্য আমি ভারতে থাকার সুযোগে ফের একটি চক্র অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে বলে শুনছি। যদি কেউ এ ধরনের কাজের সাথে যুক্ত থাকে তাদের কঠোর হাতে দমন করা হবে এবং কাউকে অবৈধ অর্থ আদায় করতে দেয়া হবে না।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640