1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 27, 2024, 5:02 pm

যুবসমাজের সুরক্ষায় দৃষ্টি দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

  • প্রকাশিত সময় Thursday, February 11, 2021
  • 181 বার পড়া হয়েছে

সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকের সঙ্গে যেন দেশের যুবসমাজ সম্পৃক্ত হতে না পারে সেজন্য আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের বিশেষভাবে দৃষ্টি দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
বৃহস্পতিবার সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৪১তম জাতীয় সমাবেশ-২০২১ এর কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, ‘আমাদের ছেলে-মেয়েরা যেন বিপথে না যায়, সেদিকে বিশেষভাবে দৃষ্টি দেয়ার জন্য আমি অনুরোধ জানাচ্ছি।’
আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আজকে আমরা করোনাভাইরাস মোকাবেলা করছি। আমি অনুরোধ করবো আনসার-ভিডিপির প্রত্যেকটা সদস্যকে, যেন করোনার টিকা নেয়। কারণ টিকা দেয়া আমরা ইতিমধ্যে শুরু করে দিয়েছি। অনেকে ভয় পান, সুই ফোঁটাতেও ভয় পান এই রকমও কিছু কিছু মানুষ আছে। কিন্তু তারা যাতে রোগাক্রান্ত না হয়, স্বাস্থ্য সুরক্ষা যেন মেনে চলে পাশপাশি টিকাটা যেন তারা নেন সময় মতো, সেই ব্যবস্থা আমরা করেছি এবং সেই ব্যাপারে আপনাদের সহযোগিতাও চাই।’
সবাই যেন টিকা নেয়ার বিষয়ে যতœবান হয় সে ব্যাপারে বিশেষ ভূমিকা রাখতে নির্দেশনা দেয়ার পাশপাশি বাহিনীর সদস্যদেরও টিকা নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দেন সরকার প্রধান।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধ এবং কোভিড-১৯ মহামারী মোকাবেলায় আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের ভূমিকার কথাও স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
এই বাহিনীর সদস্যরা যেকোনো কাজে মানুষের পাশে দাঁড়ায় উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াতের অগ্নিসন্ত্রাসে জীবন্ত মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করা হচ্ছিল, রেলে আগুন দেয়া অথবা রেললাইন সরিয়ে ফেলে অ্যাক্সিডেন্ট ঘটিয়ে দিয়ে মানুষ হত্যা করার মতো অমানবিক কাজে এই বিএনপি-জামায়াত জোট সম্পৃক্ত ছিল। সেই সময় সারা বাংলাদেশে মানুষের জান-মাল রক্ষায় আনসার বাহিনীকে আমরা সম্পৃক্ত করেছিলাম এবং তারা অত্যন্ত দক্ষতার সাথে সেই সময় এই অগ্নিসন্ত্রাস মোকাবেলা করেছে। সেজন্য আমি সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।’
সরকার সব সময় আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর কল্যাণের বিষয় বিবেচনায় রাখে উল্লেখ করে এই বাহিনীর উন্নয়নে সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথাও জানান শেখ হাসিনা।
গাজীপুরের সফিপুরে বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপি একাডেমি প্রান্তে এ সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দীন, বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মিজানুর রহমান শামীমসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘২০২০ সাল থেকে ২০২১। ২০২০ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী, ২০২১ আমাদের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী। আমরা মুজিববর্ষ উদযাপন করছি। সঙ্গে সঙ্গে সুবর্ণজয়ন্তীতে পদার্পন করেছি। মুজিববর্ষের উদ্দীপন, আনসার-ভিডিপি আছে সারাক্ষণ। এই প্রতিপাদ্য নিয়ে আনসার ভিডিপি তারা বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। আনসার ভিডিপি সদস্যরা বাল্যবিবাহ রোধ করা, মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনে ভূমিকা রেখেছে। আমাদের দেশের যুবসমাজ যেন মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদের সঙ্গে সম্পৃক্ত না হয়, এ ব্যাপারে বিশেষ ভূমিকা আপনারা রেখে যাচ্ছেন এবং আরও রাখা প্রয়োজন। এর জন্য বিভিন্ন তথ্য প্রামাণ্যচিত্র থেকে শুরু করে বিভিন্ন কাজ আপনাদের করতে হবে। আমাদের ছেলেমেয়েরা বিপথে না যায় সেদিকে বিশেষভাবে দৃষ্টি দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।’
আনসার-ভিডিপির কল্যাণে সরকারের নেয়া পদক্ষেপ তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘আনসার-ভিডিপির সুযোগ-সুবিধা, কল্যাণের দিকটা সবসময় আমাদের নজরে আছে। আনসার-ভিডিপি যে মানুষের সেবায় কাজ করে তার জন্য পদক দেয়া বা সম্মান দেওয়া সেটা আমরাই প্রথম চালু করি। তারই স্বীকৃতি স্বরূপ সেবা ও সাহসিকতা পদক সেটা আমরা প্রবর্তন করি।’
আনসার-ভিডিপি’র নতুন পোশাকের ডিজাইন তিনি নিজেই পছন্দ করে দিয়েছেন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিটি বাহিনীর নিজস্ব পোশাক আছে। কাজেই আমরা সেই পাকিস্তান আমলের খাকি পোশাক বা আনসার বাহিনীর বিভিন্ন সময়ে যে পরিবর্তন এসেছে আমরা সেগুলো বাদ দিয়ে এখন নতুন ‘সেরেমনিয়াল’ বা উৎসব পোশাক এবং কমব্যাট পোশাক প্রদান করেছি। অন্যান্য বাহিনীরও কমব্যাট পোশাক আছে। কাজেই আনসার বাহিনী বাদ থাকবে কেন? আর আজকের এই পোশাকের রং এবং ডিজাইনটা আমি নিজেই পছন্দ করে দিয়েছি। আশাকরি আপনাদের সবার পছন্দ হয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা আমাদের স্বাধীনতা দিয়ে গেছেন। জাতির পিতার লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষ অন্ন-বস্ত্র-বাসস্থান-চিকিৎসা-শিক্ষা পাবে, উন্নত জীবন পাবে। বাংলাদেশের প্রতিটি ঘর আলোকিত হবে। বাংলাদেশের মানুষ উন্নত নাগরিক সুবিধা পাবে, উন্নত জীবন পাবে, সুন্দরভাবে বাঁচবে। আমরা সেই লক্ষ্যেই কাজ করছি। বাংলাদেশ হবে জাতির পিতার স্বপ্নের উন্নত-সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ, সেটাই আমরা করতে চাই।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640