1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 21, 2024, 2:00 am
শিরোনাম :
কুষ্টিয়ায় একুশের প্রথম প্রহরে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে জেলা প্রশাসনসহ সর্বস্তরের মানুষের ফুলেল শুভেচ্ছা আলমডাঙ্গায় যাত্রীবাহী বাস ও মোটর বাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত-১ কুৃষ্টিয়ার সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মিরপুরে মানববন্ধন এক বছরেও ইউপি নির্বাচনে ভোটের ডিউটির টাকা পাননি আনসার সদস্যরা  দৌলতপুরে পথ নির্দেশক স্থাপন কার্যক্রমের উদ্বোধন আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবসে কুমারখালী পাবলিক লাইব্রেরীর আয়োজনে একুশের কবিতা পাঠের আসর মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আজ ফুল বাগানের নতুন রাণী ‘নন্দিনী’ চাষ পদ্ধতি হংকংয়ে না খেলার বিষয়ে মেসির বিবৃতি একুশে পদক পেলেন ২১ জন

চন্দ্রমল্লিকা

  • প্রকাশিত সময় Saturday, January 30, 2021
  • 385 বার পড়া হয়েছে

কৃষি প্রতিবেদক ॥ মাসে ১/২ কিছু শুস্ক মাছের গুড়া চাপানো সার হিসাবে প্রয়োগ করলে ভালো ফুল পাওয়া যায়। সুপার ফসফেট গাছ লাগানোর সময় মাটিতে মিশিয়ে দিতে হবে। গাছে কুড়ি আসার সময় একবার বা দুইবার অ্যামোনিয়াম সালফেট বা ইউরিয়া সার প্রয়োগ করলে তাড়াতাড়ি ফুল ফোটে। গাছে নাইট্রোজেনের পরিমান বেশী হয়ে গেলে গাছ লম্বা হয়ে যায়, ফুলের আকার ছোট ও রং ফেকাসে হয়ে যায়। অতিরিক্ত পটাশ সার প্রয়োগ করলে ফুলের রং ভালো হয়। আবার অতিরিক্ত ফসফরাস সার প্রয়োগ করলে ফুলের রং খারাপ হয়ে যায়।
আগাছা পরিস্কারঃ বাগানের এবং টবের চন্দ্রমল্লিকা গাছের গোড়ার মাটি নিয়মিত খুড়ে আলগা করতে হবে এবং ঘাস আগাছা ইত্যাদি তুলে ফেলতে হবে।
খুটি দিয়ে ঠেকঃ দ্রুত গাছ বৃদ্ধি ও ঝোড়ো বাতাস থেকে গাছকে রক্ষার জন্য গাছের পাশে শক্ত কাঠি পুঁতে গাছের সঙ্গে আলতোভাবে বেধে দিতে হয়।
ডাল ছাটাইঃ চন্দ্র মল্লিকা একটি বা একাধিক ফুল নিয়ে ফুটতে পারে। যিনি একাধিক ফুল ফোটাতে চান তিনি শ্রাবণের মাঝামাঝি থেকেই ছাঁটাই শুরু করবেন। এটা গাছের এমন সময় করতে হবে যখন গাছের উপর দিকের পাতার কোণ থেকে ডাল বেরোনোর আভাস দেখা যাবে। এতে ফুল তাড়াতাড়ি ও ভাল হয়। একটি বড় ফুল পেতে হলে আগার মুুকুল রেখে অন্য মুকুল ও ডালপালা ভেঙ্গে দিতে হয়।
ডগা মোটা হলেঃ নাইট্রোজেন সারের মাত্রা বেশি হয়ে গেলে গাছের ডগা মোটা হয়ে যায় এবং ফুল ফোটে না। এক্ষেত্রে টবের মাটি শুকিয়ে নিয়ে মাঝে মাঝে চুনের পানি ব্যবহার করতে হয়।
বড় ফুল পাবার উপায়ঃ গাছের কুড়ি এলে ২/১ বার রাসায়নিক সার ব্যবহার করলে বড় ফুল পাওয়া যায়। অনেকে প্রথম দিকে রাসায়নিক সার ব্যবহার না করে কেবল জৈব সার ব্যবহার করেন। পরে কুড়ি আসার পর ২/১ বার ৩ ভাগ সুপার ফসফেট, ২ ভাগ মিঊরেট অব পটাশ, ১ ভাগ ইউরিয়া ও ১ ভাগ ম্যাগ সালফ গাছ প্রতি প্রতিবারে ১ চামুচের মত প্রয়োগ করে আশানুরূপ বড় আকারের ফুল পান। তবে পাপড়ির রং দেখা দিলেই অর্থাৎ কুড়ি ফুটবার সময় হলেই সার দেওয়া বন্ধ করে শুধু জল দিতে হবে।
ফুলের ভাল রং পাবার উপায়ঃ মাছের পিত্ত, ব্লাডমিল, রান্না ঘরের ঝুল এবং ফেরাস সালফেট জলে গুলে বা পরিচয়ে গাছের গোড়ায় প্রয়োগ করলে ফুলের রং সঠিক, ভাল ও দীর্ঘস্থায়ী হয়।
রোগ দমনঃ পাতায় মরিচা পড়া রোগই চন্দ্রমল্লিকার প্রধাণ শত্রু। ইহা ছত্রাক জাতীয় রোগ এ রোগের আক্রমণে পাতার উপর ফোস্কা ও ছোট ছোট দাগ পড়তে দেখা যায়।দাগগুলি প্রথমে হলদে থাকে, পরে ঘন বাদামী রং ধারন করে। এভাবে সমগ্র গাছে রোগ ছড়িয়ে পড়ে গাছটি মারা যায়।
ইহার পাউডারী মিলডিউ নামে আর একপ্রকার ছত্রাক জাতীয় রোগ দেখা যায়। এ রোগের আক্রমণে পাতার উপড় ধুসর বর্ণের পাউডারের মতো একপ্রকার আবরণ পড়তে দেখা যায়। কুটে রোগ নামে একপ্রকার ভাইরাস জাতীয় রোগও চন্দ্রমল্লিকায় আক্রমণ করে। এর আক্রমণে গাছের পাতাগুলি হলদে হয়ে যায়।
ছত্রাক জাতীয় রোগ দমণ ও প্রতিরোধ করতে হলে ব্লাইটক্স, বর্দোমিক্সাচার, ডাইথেন জেড, ইউনিজেব প্রভৃতি ছত্রাকনাশক ঔষধ নিয়মিত সেপ্র করতে হবে। ভাইরাস রোগ দেখা দিলে, আক্রান্ত গাছটি তুলে অথবা পুড়িয়ে ফেলতে হবে। নতুবা সমস্ত গাছেই ছড়িয়ে পড়ে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640