1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 24, 2024, 9:42 am

কুষ্টিয়া জেলার স্থায়ী শুমারি কমিটির ‘অবহিতকরণ ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

  • প্রকাশিত সময় Thursday, January 28, 2021
  • 262 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়া জেলার স্থায়ী শুমারি কমিটির ‘অবহিতকরণ ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১’ প্রকল্পের প্রথম জোনাল অপারেশন কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কুষ্টিয়া জেলার স্থায়ী শুমারি কমিটির অবহিতকরণ ও মতবিনিময় সভা ২৮ জানুয়ারি বিকেলে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন। সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ভেড়ামারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান  আক্তারুজ্জামান মিঠু। আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা স্থায়ী শুমারি কমিটির সদস্য সচিব ও জেলা পরিসংখ্যানের উপপরিচালক মোঃ আব্দুল আলীম। সভার সভাপতি আগামী ২৫-৩১ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য ষষ্ঠ জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১ ও এর প্রস্তুতিমূলক জোনাল অপারেশন কার্যক্রম বাস্তবায়নে কমিটির সদস্যগণের সহযোগিতা কামনা করেন। উল্লেখ্য বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) জাতীয় পরিসংখ্যান সংস্থা (ঘঝঙ) হিসেবে অফিসিয়াল পরিসংখ্যান প্রস্তুত ও প্রকাশ করে থাকে। জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ে পরিকল্পনা প্রণয়নে পরিকল্পনাবিদ, নীতি-নির্ধারক, সরকারি-বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান, উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা, এনজিও এবং সর্বোপরি জনসাধারণের ব্যবহারের জন্য আর্থসামাজিক, জনতাত্ত্বিক, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বাণিজ্য, স্থূল জাতীয় উৎপাদন, জাতীয় আয় নিরুপনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে নির্ভরযোগ্য তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ, সংকলন, বিশ্লেষণ ও প্রকাশের দায়িত্ব বিবিএস নিয়মিতভাবে পালন করে আসছে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো পরিচালিত বৃহত্তম জাতীয় পরিসংখ্যানিক কর্মকান্ড হল জনশুমারি ও গৃহগণনা । সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশে প্রথম আদমশুমারি ও গৃহগণনা অনুষ্ঠানের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে ১৯৮১, ১৯৯১, ২০০১ এবং ২০১১ সালে যথাক্রমে দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ এবং পঞ্চম আদমশুমারি ও গৃহগণনা অনুষ্ঠিত হয়। দশ বছর পর্যাবৃত্তি অনুসরণপূর্বক বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) এবার ষষ্ঠ বারের মত ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১’ আয়োজন করতে যাচ্ছে। পরিসংখ্যান আইন ২০১৩ অনুযায়ী ‘আদম শুমারি ও গৃহগণনা’ এর নাম পরিবর্তন করে ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা’ করা হয় । দেশের ষষ্ঠ ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা’ আগামী ২৫-৩১ অক্টোবর ২০২১ পরিচালনার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে । শুমারিতে একটি রেফারেন্স পয়েন্ট (২৪ অক্টোবর ২০২১ খ্রি. রাত ১২.০০ ঘটিকা)-এ দেশের প্রতিটি খানা ও জনগণকে গণনায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে। জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১ এর মাধ্যমে ব্যষ্টিক ও সামষ্টিক পর্যায়ে পরিকল্পনা গ্রহণ ও উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনার নিমিত্ত বেঞ্চমার্ক তথ্য সংগ্রহ করা হবে। জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১ কার্যক্রম ৪ (চার) টি পর্যায়ে সম্পন্ন করা হবে: (১) জোনাল অপারেশন পরিচালনা (২) শুমারির তথ্য সংগ্রহ (৩) পিইসি (চড়ংঃ ঊহঁসবৎধঃরড়হ ঈযবপশ) জরিপ পরিচালনা ও (৪) আর্থ-সামাজিক ও জনতাত্ত্বিক জরিপ পরিচালনা। শুমারির গুণগত মান সম্পূর্ণভাবে নির্ভর করে শুমারির প্রস্তুতিমূলক কর্মকান্ডের উপর – যা জোনাল অপারেশন নামে পরিচিত। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১’ প্রকল্পের আওতায় জোনাল অপারেশন (১ম) এর মাঠ পর্যায়ে তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম গত ২৩ জানুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে যা আগামী  ০১ ফেব্র“য়ারি ২০২১ পর্যন্ত পরিচালিত হবে। এতে জোনাল অফিসারগণ নির্ধারিত এলাকার জিওকোড সাম্প্রতিকীকরণ, মৌজা/মহল্লা ম্যাপের (স্যাটেলাইট ইমেজ/বেইজ ম্যাপের) মধ্যে গণনা এলাকার সীমানা পরিচিত আলামত দ্বারা চিহ্নিতকরণ, গণনা এলাকা ভিত্তিক খানার সংখ্যা নির্ধারণ, গণনা এলাকা ও সুপারভাইজার এলাকার স্ক্যাচ ম্যাপ প্রস্তুত এবং গণনাকারী ও সুপারভাইজার গণের তালিকা প্রস্তুত করবেন। এবারের শুমারিতে প্রথমবারে মত ২৪ অক্টোবর ২০২১ খ্রি. তারিখ বা তৎপূর্ব সুবিধাজনক সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিবেন, যা ইলেকট্রনিক মিডিয়াতে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে। অন্যান্য শুমারির তুলনায় এবারের শুমারির কিছুটা ভিন্নতা রয়েছে। তাছাড়া, শুমারিতে মাল্টিমোড পদ্ধতি যেমন-আইসিআর প্রশ্নপত্র/ মোবাইল অ্যাপ/ ড্রপ অ্যান্ড পিক/ কলসেন্টার ইত্যাদি পদ্ধতি অবলম্বন করে শুমারিতে তথ্য সংগ্রহ করা হবে । এছাড়া, এই শুমারিতে প্রথম ওহঃবমৎধঃবফ ঈবহংঁং গধহধমবসবহঃ ঝুংঃবস (ওঈগঝ) চালু হতে যাচ্ছে, যার মাধ্যমে সমগ্র বাংলাদেশে শুমারি কাজে নিয়োজিত তথ্যসংগ্রহকারী, সুপারভাইজার, জোনাল অফিসার, উপজেলা শুমারি সমন্বয়কারী, জেলা শুমারি সমন্বয়কারী, বিভাগীয় শুমারি সমন্বয়কারীগণের নামসহ বিস্তারিত পরিচিতি এক ক্লিকেই জানা সম্ভব হবে যা শুমারি ব্যবস্থাপনায় অত্যন্ত কার্যকরী হবে। তাছাড়া, এওঝ ম্যাপ ব্যবহার করে সারাদেশে প্রায় ৪ (চার) লক্ষ স্থায়ী গণনা এলাকা ভিত্তিক ম্যাপ প্রস্তুত করা হবে যা শুমারির বাস্তবায়ন ও ংঢ়বপরধষ ফরংংবসরহধঃরড়হ এ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। শুমারির মাধ্যমে সংগৃহীত তথ্য ঝউএ সংক্রান্ত বিভিন্ন রহফরপধঃড়ৎ প্রণয়নে এবং ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখব এবং যার মাধ্যমে বাংলাদেশের অগ্রগতির চিত্র পাওয়া যাবে। যা ভবিষ্যত বাস্তবসম্মত পরিকল্পনা প্রণয়নে অত্যন্ত সহায়ক হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640