1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 13, 2024, 3:21 am

দৌলতপুরে প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের নির্দেশে ॥ দৌলতপুরে ইএফটি ফরম পুরণে শিক্ষকদের কাছ থেকে অর্থ আদায়ের অভিযোগ

  • প্রকাশিত সময় Sunday, January 24, 2021
  • 386 বার পড়া হয়েছে

 

দৌলতপুর প্রতিনিধি কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ইএফটি (ইলেক্ট্রিক্যাল ফিন্যান্স ট্রান্সফার) ফরম পুরণে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কাছ থেকে ৎকোচের অর্থ আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। দৌলতপুর প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের নির্দেশে শিক্ষক নেতারা শিক্ষকদের কাছ থেকে জনপ্রতি ২৫০ টাকা করে আদায় করছেন বলে শিক্ষকবৃন্দ জানিয়েছেন। অনলাইন প্রশিক্ষিত শিক্ষকরা শিক্ষা অফিস থেকে বিনা খরচে ফরমটি পুরণ করার কাজটি করে থাকলেও সকল শিক্ষকদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হচ্ছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে গতকাল রোববার দুপুরে কয়েকজন শিক্ষক অভিযোগ করে বলেন, দৌলতপুর প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ফিরোজ খান নুন সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম সহ কয়েকজন প্রধান শিক্ষক শিক্ষা অফিসে বসে শিক্ষকদের কাছ থেকে ২৫০ টাকা করে আদায় করছেন। কেউ দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাদের ওপর চড়াও হচ্ছেন এবং তার ফরমটি পুরণ করা হবে না বলে হুমকি ধামকি দিচ্ছেন বলেও তারা জানিয়েছেন। আর টাকা আদায়ের সাথে জড়িত রয়েছেন দৌলতপুর প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের অফিস সহকারী রেজাউল ইসলাম, শরিফুল ইসলাম করিম। প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শিক্ষক নেতাদের নির্দেশে তারা টাকাগুলো আদায় করার কাজটি করছেন। দৌলতপুরে ১২০০ জন প্রাথমিক শিক্ষক রয়েছেন। জনপ্রতি ২৫০ টাকা করে লক্ষ টাকা আদায় করে বিপুল অংকের টাকা নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করা হবে বলে অভিযোগকারী শিক্ষকরা জানিয়েছেন। দৌলতপুরের সরকার দলীয় শীর্ষ স্থানীয় এক নেতা ইএফটি (ইলেক্ট্রিক্যাল ফিন্যান্স ট্রান্সফার) ফরম পুরণে দৌলতপুরের সকল প্রাথমিক শিক্ষকদের কাছ থেকে ২৫০ টাকা করে আদায় করার কথা উল্লেখ করে বলেন, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের নির্দেশে অফিস সহকারীরা শিক্ষক নেতারা টাকা আদায়ের কাজটি করে থাকেন। নিধেষ করা সত্বেও অবৈধভাবে টাকা আদায়ের কাজটি বন্ধ হয়নি বলে তিনি উল্লেখ করেন। তবে দৌলতপুর প্রাথমিক সমিতির সভাপতি ফিরোজ খান নুন বলেছেন, ইএফটি ফরম পুরণে শিক্ষকদের কাছ থেকে কোন টাকা নেওয়াও হচ্ছে না এবং শিক্ষা অফিসকে টাকা দেওয়াও হচ্ছে না।  শিক্ষকদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের বিষয়ে দৌলতপুর প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাইদা ছিদ্দিকা তার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, কোন শিক্ষকের কাছ থেকে টাকা আদায় করা হচ্ছে না। শিক্ষকরা নিজেরাই তাদের ইএফটি ফরম অফিস থেকে পুরণ করছেন। শিক্ষকদের কাছ থেকে অবৈধভাবে টাকা আদায়ের বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি সাধারণ শিক্ষকদের।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640