1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 28, 2024, 2:42 am

কুষ্টিয়ায় ঠান্ডাজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে শতাধিক শিশু হাসপাতালে

  • প্রকাশিত সময় Saturday, January 23, 2021
  • 250 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক কুষ্টিয়ায় হটা করেই শীত জনিত কারণে শিশুদের অসুখ বিসুখ মাত্রাতিক্ত হারে বেড়েছে। গত কয়েকদিনে কুষ্টিয়ায় শিশু রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় তাদের চিকিৎসা সেবা দিতে হিমসিম খেতে হচ্ছে কর্তব্যরত চিকিৎসক নার্সদের। তবে আক্রান্তের মধ্যে থেকে বছর বয়সী শিশুরাই বেশী এবং তীব্র শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ (এআরআই), জ্বর, ঠান্ডা কাশিসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত বলে ওয়ার্ড সুত্রে জানাগেছে গতকাল ১৪ জন রোগী ভর্তিসহ বর্তমানে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা  হাসপাতালের ২০ বেডের শিশু ওয়ার্ডে ৮০ জন শিশু চিকিৎসাধীন রয়েছে। কখনো কখনো  মাত্র ২০ বেডের স্থলে ১শ এর অধিক রোগীও শিশু ওয়ার্ডে চিকিৎসা নিচ্ছেন। হাসপাতালের ওয়ার্ডে প্রায় শতাধিক শিশু রোগীসহ বর্হিবিভাগে চিকিৎসা নিয়ে শত শত শিশু রোগী। গত কয়েকদিনে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের বর্হিরবিভাগসহ শিশু ওয়ার্ডে চিকিৎসা নিয়েছে প্রায় হাজার খানেক শিশু রোগী এদের বেশীর ভাগ রোগীই ঠান্ডা জণিত কারনে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত। সরকারিবেসরকারি হাসপাতালের বহির্বিভাগ শিশু বিশেষজ্ঞদের প্রাইভেট চেম্বারে বাড়ছে অসুস্থ শিশু নিয়ে উদ্বিগ্ন অভিভাবকদের ভীড়। তবে মাসের কম বয়সী শিশুরা এআরআই রোগে অধিক সংখ্যায় আক্রান্ত হচ্ছে বলে জানান চিকিৎসকরা। এদিকে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের মাত্র ২০ টি বেড থাকলেও সেখানে শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ২১ জন শিশু রোগী ভর্তিসহ বারান্দা মেঝেতে যত্র তত্র বিছানা করে চিকিৎসা নিচ্ছে  ৮০ জন শিশু রোগী। বৃহস্পতিবার হাসপাতালের বহির্বিভাগ সরেজমিন দেখা গেছে, শিশু বহির্বিভাগের টিকেট কাটার জন্য শিশু নিয়ে অভিভাবকদের লম্বা লাইন। টিকেট বিক্রেতার সঙ্গে আলাপকালে জানা যায়, গত তিনদিন ধরে শিশু রোগীর ভীড় বাড়ছে কয়েক গুন হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা গেছে, বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত শিশু স্বজনদের ভীড়ে শিশু ওয়ার্ডটি যেন মেছোহাটে পরিণত হয়েছে। কর্তব্যর এক নার্স জানান,এখন মাত্র ২০টি শয্যার স্থলে চিকিৎসাধীন রয়েছে ৮০ জন রোগী। তাদের চিকিৎসা সেবা দিতে সিনিয়র নার্সসহ বেশ কয়েক ছাত্রী নার্স রীতিমত হিমসিম খেতে হচ্ছে প্রতিদিন যত রোগী চিকিৎসা পেয়ে ছাড়পত্র নিয়ে বাসায় ফিরছে তার চেয়ে দিগুন আবার ভর্তি হচ্ছে বলে জানান ওই নার্স।এছাড়া ওয়ার্ডের জায়গা না পেয়ে মেঝেতে বিছানা করে চিকিৎসাধীন রোগীর স্বজনদের সাথে কথা বলে জানাগেল, চিকিৎসাধীন রোগীদের বেশীর ভাগই জ্বর, কাশি, ঠান্ডা জ্বরে ভূগছে শিশুরা। খোজ নিয়ে জানাগেল, কুষ্টিয়া জেলাই শুধু নয় মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ, পাবনা রাজবাড়ী জেলার রোগীরাও এখানে চিকিৎসা নিতে আসেন। ২০১২ সালে মার্চ ৫শ শয্যা বিশিষ্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। এই মেডিকেল কলেজ বছরের মধ্যে কাজ শেষ করার কথা থাকলেও বছরে কাজ হয়েয়ে অর্ধেক। যা কুষ্টিয়াবাসীর জন্য হতাশার এবং মেডিকেলে গিয়ে চিকিৎসা সেবা পাওয়ার স্বপ্ন একন দুঃস্বপ্ন হতে চলেছে। ঠিক সময়ে কাজ শেষ হলে ২০১৫ সালে মেডিকেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রোগী ভর্তিসহ চিকিৎসা সেবা পেতো কুষ্টিয়াসহ আশপাশ এলাকার রোগীরা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640